চা-বিক্রেতার মেয়ের বিয়েতে দেড় কোটি টাকা পণ

আপডেট: এপ্রিল ১৪, ২০১৭, ১:০৭ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


নিজের ছয় মেয়ের বিয়েতে ১ কোটি ৫১ লক্ষ টাকা পণ দিয়ে আয়কর দফতরের নজরে রাজস্থানের এক চা বিক্রেতা৷ কাঠপুতলির কাছে হাদুয়াতায় একটি চায়ের দোকান চালান লীলা রাম গুজ্জর৷ সম্প্রতি তাঁর ছয় মেয়ের বিয়েতে প্রায় দেড় কোটি টাকা খরচ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে৷
গত এপ্রিল মাসে নিজের ছয় মেয়ের বিয়েতে রাম গুজ্জরকে তাড়া তাড়া নোটের বান্ডিল গুনতে দেখে তাজ্জব বনে যান স্থানীয় গ্রামবাসীরা৷ শুধু পাত্রপক্ষের হাতে নোটের বান্ডিলই তুলে দেননি রাম গুজ্জর, চিৎকার করে নগদ টাকা গুনেছেন ও গ্রামবাসীদের সগর্বে জানিয়েছেন সে কথা৷ এমনটাই বলছেন গ্রামের মোড়লরা৷ এই ঘটনায় বুধবারই তাঁকে সমন পাঠিয়েছে আয়কর দফতর৷ রাম গুজ্জরের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে, ওই বিপুল পরিমাণ টাকা তিনি কোথা থেকে পেয়েছেন? তিনি কি আইটি ফাইল জমা দেন? এক সিনিয়র আইটি অফিসার বলেছেন, “গুজ্জরের কাছ থেকে তাঁর আয়ের উৎস জানতে চাওয়া হয়েছে৷”
শুধু কোটি টাকা পণ নয়, ওই চা বিক্রেতার বিরুদ্ধে আরও গুরুতর অভিযোগও উঠেছে৷ তিনি নাকি মোটা অঙ্কের পণ দিয়ে নিজের নাবালিকা মেয়েদের বিয়ে দিয়েছেন৷ এক নয়, দুই নয়, চার চারজন নাবালিকা মেয়ের বিয়ে দিয়েছেন তিনি, অভিযোগ স্থানীয় গ্রামবাসীদের৷ দুই বিবাহযোগ্য মেয়ের নামে বিয়ের কার্ড ছাপিয়েছিলেন, কিন্তু গত ৪ এপ্রিল ধুমধাম করে ছয় মেয়েরই বিয়ে দেন৷ ওই ছ’জনের মধ্যে চারজন পাত্রীই নাবালিকা বলে অভিযোগ গ্রামবাসীদের৷
অভিযোগ পেয়েই তৎপর হয়েছে পুলিশ৷ গুজ্জরের বাড়িতে হানা দিয়ে কাউকেই দেখতে পাওয়া যায়নি বলে পুলিশ সূত্রে খবর৷ ইতোমধ্যেই অভিযুক্ত চা বিক্রেতার নামে লুক আউট নোটিশ জারি করেছে পুলিশ৷ তাঁর আত্মীয়স্বজনদের জানিয়ে দেয়া হয়েছে, গুজ্জরকে কোথাও দেখতে পেলেই পুলিশকে খবর দিতে। – সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ