চিকিৎসক রায়ান সাদী নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত হওয়ায় ঈশ্বরদীতে আনন্দের বন্যা

আপডেট: অক্টোবর ৩, ২০২২, ১২:৪৩ পূর্বাহ্ণ

সেলিম সরদার, ঈশ্বরদী:


চিকিৎসা বিজ্ঞানে পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন ঈশ্বরদীর সন্তান ঢাকা মেডিকেল কলেজের (ঢামেক) সাবেক শিক্ষার্থী ডা. রায়ান সাদী। তিনি ঢামেকের কে-৪০ ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলেন। শনিবার বিকেলে ডা. দীপু মনি তার ফেসবুক ভেরিফাইড পেজে এ তথ্য নিশ্চিত করেন। এদিকে সামাজিক যোগাযোগ ও বিভিন্ন গণমাধ্যমের মাধ্যমে এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ডা. রায়ান সাদীর জন্মস্থান পাবনার ঈশ্বরদীর রূপপুর গ্রামে এবং ঈশ্বরদীর বিভিন্ন গ্রামে তাঁর আত্মীয়, বন্ধুস্বজনদের মাঝে আনন্দের আবহ সৃষ্টি হয়।
রূপপুর গ্রামের বাসিন্দা শিক্ষক মনিরুল ইসলাম বাবু জানান, শনিবার সন্ধ্যায় এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী উৎফুল্ল হয়ে ওঠেন।

রূপপুরের বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালেক জানান, ডা. সাদীর বাড়ি পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার রূপপুর গ্রামে। তিনি ঈশ্বরদী সরকারি কলেজের প্রাক্তন প্রয়াত অধ্যক্ষ তৈয়ব হোসেনের একমাত্র সন্তান। তিনি ১৯৬৪ সালে ৬ ডিসেম্বর ঈশ্বরদী উপজেলার সাহাপুরে জন্মগ্রহণ করেন। ডা. সাদীর ফুফাতো ভাই ও তাঁর ঘনিষ্ট বন্ধু উপজেলার লক্ষীকুন্ডা ইউনিয়নের পাকুড়িয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক আবু হেনা জানান, আমার ছোটবেলার বন্ধু ও আপন ফুফাতো ভাই চিকিৎসক সাদী বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন। তাঁর এই সফলতার খবর পেয়ে আমরা তাঁর আত্মিয়-স্বজন ও পরিবারের সদস্যরা খুবই আনন্দিত। তিনি বলেন, বর্তমানে ডা. সাদী আমেরিকার টেভোজেন বায়োকোম্পানির চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। তার সহধর্মীনী ডা. জুডি আক্তার এবং একমাত্র কন্যা এমিলিও তার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করেন। তার সঙ্গে মাঝে মধ্যে মোবাইলে কথা হয়।

ডা. সাদীর আরেক ফুফাতা ভাই মিডিয়াকর্মী কামরুজ্জামান পান্না বলেন, ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস শেষে যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসা-বিজ্ঞানে লিডারশিপ, ইয়েল ইউনিভার্সিটিতে হেলথ পলিসি এবং অর্থনীতিতে উচ্চতর ডিগ্রি গ্রহণ করেন ডা. রায়ান সাদী। আমরা তার সঙ্গে যোগাযোগ করে জানতে পেরেছি ক্যান্সার ও ভাইরাসের বিরুদ্ধে নতুন চিকিৎসা পদ্ধতি আবিষ্কারের জন্য তাকে এই মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাস করার পর যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসা-বিজ্ঞানে লিডারশিপ এবং ইয়েল ইউনিভার্সিটিতে হেলথ পলিসি এবং অর্থনীতিতে উচ্চতর ডিগ্রি গ্রহণ করেন।

পান্না বলেন, আমার বড় মামা ঈশ্বরদী সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ তৈয়ব হোসেন মারা যাওয়ার পর ডা. রায়ান সাদী আর দেশে ফেরেননি। পরিবার পরিজন নিয়ে যুক্তরাষ্টে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন তিনি।

এদিকে রোববার দিনভর ডা. রায়ান সাদীর সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপ ও মুঠোফোনে কয়েকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

উল্লেখ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের এক পোস্টে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি লিখেছেন, “আমাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজের কে-৪০ ব্যাচের বন্ধু রায়ান সাদী এমডি, এমপিএইচ, চেয়ারম্যান ও সিইও টেভোজেন বায়ো, এ বছরের নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনিত হয়েছেন।” মুলত এই পোষ্ট ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে ডা. রায়ান সাদীর নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনিত হওয়ার বিষয়টি আলোচনায় আসে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ