চিনা টিকায় যারা অগ্রাধিকার পাবেন

আপডেট: মে ৮, ২০২১, ৭:৪৬ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


চিন সরকার বাংলাদেশকে প্রায় ৬ লাখ টিকা উপহার দিচ্ছে। বাংলাদেশে অবস্থিত চিনা নাগরিকরা এই টিকা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পাবেন।
এছাড়া এই টিকায় বেশ কয়েকটি পেশার লোক অগ্রাধিকার পেতে পারেন।
শনিবার (৮ মে) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।
বাংলাদেশে প্রায় ১৫ হাজার চিনা নাগরিক বিভিন্ন প্রকল্পে কাজ করেন। বাংলাদেশ সরকার বিদেশি নাগরিকদের টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করলেও চিনা নাগরিকরা তার নিজ দেশের টিকা নিতেই আগ্রহী। সে কারণে চিনা নাগরিকরা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এই টিকা পাবেন।
চিনা নাগরিকদের সিনোভ্যাক টিকা দেওয়ার জন্য ইতোমধ্যেই বাংলাদেশকে সরকারকে অনুরোধ করেছে চিন। উপহারের টিকা থেকে ১৫ হাজার নাগরিককে ৩০ হাজার টিকা দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছে। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তাদের অনুরোধে সম্মতি দেওয়া হয়েছে।
এদিকে চিনের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত যেসব বাংলাদেশি শিক্ষার্থী এখন বাংলাদেশে অবস্থান করছেন, তারা এই টিকা নিতে আগ্রহী। দীর্ঘদিন ধরে এসব শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশে আটকে পড়েছেন। এসব শিক্ষার্থীদের অভিমত, চিনা টিকা নেওয়ার চিনে তাদের যাওয়া সহজ হবে।
বাংলাদেশি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন ইন চায়নার পক্ষ থেকে ইতোমধ্যেই চিনা টিকা পাওয়ার জন্য ঢাকার পররাষ্ট্র ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন ইন চায়নার সভাপতি ফজলে রাব্বী বলেন, বাংলাদেশে আটকেপড়া চিনা শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ুচনা টিকা দেওয়ার জন্য আবেদন জানিয়েছি। প্রায় তিন হাজার শিক্ষার্থীর তালিকাও মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছি। চিনা টিকা নেওয়ার পর শিক্ষার্থীরা দ্রুত চিনে ফিরতে পারবেন বলে প্রত্যাশা করেছেন তিনি।
এছাড়া চিনের সঙ্গে যেসব বাংলাদেশি নাগরিক ব্যবসা করছেন, যারা নিয়মিত চিনে যাতায়াত করেন। তারাও চিনা টিকায় অগ্রাধিকার পেতে পারেন। এসব ব্যবসায়ীরাও মনে করেন, টিকা দেওয়ার ফলে চিনে যাতায়াত সহজ হবে। ব্যবসায়ীরা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এই টিকা দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন জানান, চিনা টিকা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেওয়ার জন্য চিনে অধ্যায়নরত বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ও চিনের সঙ্গে ব্যবসা করেন, এমন ব্যবসায়ীরা আমাদের অনুরোধ করেছেন। তারা এই টিকা নিতে ব্যাপক আগ্রহী। আমরা বিষয়টি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে অবহিত করেছি। কিভাবে তাদের এই টিকা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেওয়া যায় তারা সেটা দেখছে।
আগামী ১২ মে ঢাকায় চিনা টিকার চালান এসে পৌঁছাবে। ইতোমধ্যেই ঢাকার চিনা দূতাবাস থেকে এই টিকার চালান পৌঁছানোর তারিখ নিশ্চিত করেছে। চিন থেকে পাওয়া উপহারের টিকা আগে ঢাকায় আসবে। তবে পরবর্তীতে চিন থেকে টিকা কিনে আনা হবে।
এদিকে গত ৭ মে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জরুরিভিত্তিতে ব্যবহারে চিনা টিকার অনুমোদন দিয়েছে।
তথ্যসূত্র: বাংলানিউজ