চিনের প্রায় ৩ কোটি বিবাহযোগ্য পুরুষ পাচ্ছেন না পাত্রী!

আপডেট: মে ১৮, ২০২১, ১:৪২ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


পাত্রের সংখ্যা প্রচুর। কিন্তু কনে মিলছে না। যার ফলে চিনের প্রায় ৩ কোটি যুবক অবিবাহিত রয়েছেন। অনেক দেশের এত জনসংখ্যাই নয়। যে পরিমাণ পুরুষ চীনে অবিবাহিত রয়েছে। সাম্প্রতিক সমীক্ষায় এমনই তথ্য উঠে এসেছে।
চিনে বরাবরই পুত্রসন্তানকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। তবে পরিস্থিতি এখন বদলাচ্ছে। কন্যাসন্তানের সংখ্যাও বাড়ছে। যার ফলে পুরুষদের পাত্রীর অভাবে বিয়ের সমস্যা দ্রুত মিটবে বলে জানিয়েছে দক্ষিণ চিন মর্নিং পোস্টের একটি সমীক্ষা। চিনের জনসংখ্যা সুমারি অনুযায়ী গতবছর ১ কোটি ২০ লক্ষ সন্তান জন্মেছে। যার মধ্যে পুত্র ও কন্যার অনুপাত যথাক্রমে ১১৩.৩:১০০। ২০১০ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী অনুপাত ছিল ১১৮.১:১০০। এক গবেষকের কথায়, ‘চিনে সাধারণত পুরুষরা বয়সের তুলনায় কম বয়সিদের স্ত্রী হিসেবে গ্রহণ করে। দেশে পুরুষদের তুলনায় মেয়েদের সংখ্যা বেশ কম বলেই এটা হচ্ছে।’ আর এক গবেষকের কথায়, ‘গত বছর যে ১ কোটি ২০ লক্ষ সন্তান জন্মেছে। তার মধ্যে অন্তত ৬ লক্ষ পুরুষ বিয়ের সময় পাত্রী পাবেন না।’
চিনে এক সন্তান নীতি ১৯৭৯ সালে কার্যকর করা হয়। তা আবার তুলে নেওয়া হয় ২০১৬ সালে। সমীক্ষা বলছে এখন চিনা নারী প্রতি সন্তানধারণের হার ১.৩। তা বাড়িয়ে ২.১ হলে নারী-পুরুষ ভারসাম্য বজায় থাকবে। সমীক্ষায় আরও উঠে এসেছে, চিনের নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের পুরুষদেরই কনে পেতে সমস্যা হচ্ছে। তার কারণ হিসেবে উঠে এসেছে অপুষ্টি ও দুর্বল স্বাস্থ্যের বিষয়টি। সামাজিক পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে এই বিষয়টিও পরিবর্তিত হবে বলে বিশেষজ্ঞদের মত।
চিনের জনসংখ্যা অত্যধিক হওয়ার এক সন্তান নীতি কার্যকর করা হলেও তা এখন তুলে নেওয়া হয়েছে। আশা করা হচ্ছে বিয়ের জন্য চিনা পুরুষদের কনে পাওয়ার সমস্যাও অল্প কয়েক বছরের মধ্যে মিটবে।
তথ্যসূত্র: আজকাল

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ