চুল খারাপ ভাবে কাটার মাশুল, দিল্লির পাঁচতারা হোটেলকে দু’কোটি ক্ষতিপূরণের নির্দেশ

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১, ৬:৩৪ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক


এক মডেলের চুল খারাপ ভাবে কেটে দেওয়ায় নয়াদিল্লির পাঁচতারা হোটেল আইটিসি মৌর্য-কে দু’কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ দিল জাতীয় গ্রাহক অভিযোগ নিরসন কমিশন (ন্যাশনাল কনজিউমার ডিসপুটস রিড্রেসাল কমিশন বা এনসিডিআরসি)।
বৃহস্পতিবার এনসিডিআরসি-তে মামলাটি উঠলে ‘খারাপ মানের পরিষেবা’ এবং ‘চুলের প্রতি গাফিলতি’র জন্য গ্রাহককে দু’কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আট সপ্তাহের মধ্যে ওই ক্ষতিপূরণ দিতে হবে বলে নির্দেশ দিয়েছে এনসিডিআরসি।
কমিশন তাদের পর্যবেক্ষণে জানিয়েছে, চুল মহিলাদের সৌন্দর্যের প্রতীক। চুল নিয়ে তাঁরা যথেষ্ট সচেতন। চুল কী ভাবে ভাল রাখতে হয়, তা নিয়ে তাঁরা রীতিমতো চর্চা করেন তাঁরা। চুলের সঙ্গে মহিলাদের একটা আবেগ জড়িয়ে আছে। কমিশন আরও জানিয়েছে, ওই মডেল চুলের সামগ্রীর বিজ্ঞাপন করেন। কিন্তু তাঁর কথামতো চুল না কাটায় ওই মডেলের কাজ পেতে বিপুল সমস্যা হয়েছে। বড় মডেল হওয়ার স্বপ্ন চুরমার হয়ে গিয়েছে। সামগ্রিক পর্যবেক্ষণের পরই হোটেল মৌর্য কর্তৃপক্ষকে দু’কেটি টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ দিয়েছে কমিশন।
ঘটনাটি ২০১৮-র ১২ এপ্রিলের। এক সাক্ষাৎকারের আগে হোটেল মৌর্যর স্যালোঁতে চুল কাটাতে গিয়েছিলেন মডেল আশনা রায়। অভিযোগ ছিল, কেশ পরিকল্পককে যে মাপের চুল কাটতে বলা হয়েছিল, তার ঠিক বিপরীত করে অনেকটাই চুল ছেঁটে ফেলেন। উপর থেকে ৪ ইঞ্চি ছে়ড়ে বাকিটা কাটতে বলা হয়েছিল। কিন্তু সেই কেশ পরিকল্পক নাকি পুরো চুলই ছেঁটে ফেলেছিলেন। শুধু তাই নয়, অতিরিক্ত অ্যামোনিয়া ব্যবহার করে চুলেরও ক্ষতি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন আশনা।
এর পরই বিষয়টি নিয়ে হোটেল ম্যানেজারের দ্বারস্থ হন আশনা। কিন্তু তাঁকে বিনামূল্যে চুলের অন্য পরিষেবার প্রস্তাব দেওয়া হয়। আশনার আরও অভিযোগ ছিল, এই ভুল করার পরেও ওই কেশ পরিকল্পকের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ করেননি হোটেল কর্তৃপক্ষ। এর পরই এনসিডিআরসি-তে মামলা করেন তিনি।
তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা