চোরের কান্ড : চুরি করা মিটার ফেরত পেতে লিখলো ফোন করুন !

আপডেট: জুলাই ৫, ২০২৪, ১১:৫৫ অপরাহ্ণ

নাটোর প্রতিনিধি:


সাধারণত চুরি করা হয় তা ভোগ করার জন্য। এ কেমন চোর চুরি করা মিটার ফেরত দিতে চিরকুট লিখে মিটারের পাশে পলিথিনে মুড়িয়ে চিরকুটে লিখে গেলো- ‘চুরি যাওয়া মিটার ফেরত পেতে ফোন করুন। শুক্রবার (৫ জুলাই) দিনগত রাতে উপজেলা গারিষাপাড়া, গোপালের মোড়সহ বেশ কয়েকটি এলাকার প্রায় ৩৬টি বৈদুতিক মিটার চুরি হওয়ার ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার রাতে উপজেলার গারিষাপাড়া, গোপালের মোড়সহ বেশ কয়েকটি এলাকার চাতাল, মিল, কারখানার ও বাড়ির প্রায় ৩৬টি বৈদুতিক মিটার চুরি হয়। চুরি হওয়া মিটারের পাশে চিরকুট লিখে যায় চোর। সেই নাম্বারে চুরি হওয়া মিটার ফেরত পেতে ভূক্তভোগীরা কল করলে তাদের কাছে চাঁদা দাবী করা হয়। ওই মোইল নম্বরে গ্রহকরা ফোন করলে বিকাশ ও নগদ নম্বরে দাবীকৃত চাঁদার টাকা পাঠানোর পর মিটার কোথায় পাওয়া যাবে তা বলা হবে বলে জানানো হয়। টাকা পাঠালে চুরি হওয়া মিটার নিদিষ্ট স্থানে পৌঁছে দেওয়া হবে বলে জানান।

গারিষাপাড়া এলাকার চাতাল ব্যবসায়ী মো. হাবিবুর রহমান জানান, আজ সকালে চাতালে এসে দেখেন তার মিটার নেই। তবে মিটারের নিচে পলিথিনে মুড়িয়ে থাকা একটি চিরকুট দেখতে পান তিনি। চিরকুটের ভেতরে একটি কাগজে লেখা ছিল, ‘চুরি যাওয়া মিটার ফেরত পেতে ফোন করুন’। নিচের নাম্বারে ফোন করলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

আরেক চাতাল মালিক রবিউল করিম জানান, মিটার চুরির ঘটনা নতুন নয়। দীর্ঘদিন ধরে চাতাল ব্যবসায়ী, মিল কারখানা ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে মিটার চুরি করে বিকাশে ৪/৫ হাজার টাকা নিয়ে মিটার ফেরত দেয়। তার মিটার আগেও একবার চুরি হয়েছিলো। মিটারের নিচে রেখে যাওয়া নম্বরে কল দিলে বিকাশ নম্বর দেয়। সেই নম্বরে আগেও ৪ হাজার টাকা পাঠিয়েছিলেন। তারপর চোরের দেওয়া তথ্যমতে, নদী তীরবর্তী স্থান থেকে মিটার সংগ্রহ করেছিলাম।

গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) উজ্জল হোসেন বলেন, এ বিষয়ে কোনো অভিযোগ পাইনি। পেয়ে তদন্ত করে জড়িতদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ