চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী

আপডেট: জানুয়ারি ১৮, ২০২০, ১:২৮ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


বিপিএলের সপ্তম আসরে ফাইনালে খেলার আক্ষেপ ঘুচিয়েছেন মুশফিকুর রহিম। কিন্তু ট্রফি জিততে পারলেন না খুলনা টাইগার্স অধিনায়ক। শুক্রবার ফাইনালে রাজশাহী রয়্যালসের কাছে ২১ রানে হেরেছে খুলনা। রাজশাহীর এটাই প্রথম বিপিএল শিরোপা।
মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ১৭১ রানের লক্ষ্যে খেলতে নামা খুলনার শুরুটা ভালো হয়নি। দলীয় ১১ রানে ফিরেছেন দুই ওপেনার মেহেদী হাসান মিরাজ (২) ও নাজমুল শান্ত (০)। তবে শামসুর রহমান ও রাইলি রুশোর ঝড়ো ব্যাটিংয়ে জয়ের পথে ছিল খুলনা। ৫৪ বলে ৭৪ রানের জুটি গড়েছেন দুজন। কিন্তু রাজশাহীর মোহাম্মদ নওয়াজ বল হাতে কাঁপিয়ে দেন খুলনাকে। রুশোকে ৩৭ রানে বোল্ড করে ভাঙেন গুরুত্বপূর্ণ জুটি। ২৬ বলে ৩৭ রানে ফিরেছেন রুশো।
এই জুটি ভাঙার পর চাপে পড়ে যায় খুলনা। একে একে ফিরে যান শামসুর ও নাজিবুল্লাহ জাদরান। শামসুর হাফসেঞ্চুরি করে কামরুল ইসলাম রাব্বির বলে ক্যাচ দিয়েছেন, ৪৩ বলে ৪টি চার ও ২ ছক্কায় করেছেন ৫২ রান। নাজিবুল্লাহও ৪ রানে ফিরেছেন রাব্বির বলে ক্যাচ দিয়ে।
চাপে পড়ে যাওয়া দলকে জয়ের আশা দেখিয়েছেন মুশফিক। কিন্তু মুশফিককে দুর্দান্ত ইয়ার্কারে বোল্ড করেছেন আন্দ্রে রাসেল। ১৫ বলে ২টি চার ও ১ ছক্কায় ২১ রান করা অধিনায়কের বিদায়ে সম্ভাবনা শেষ হয়ে যায় খুলনার। রবি ফ্রাইলিঙ্ক ১২ রানে ফিরলে ৮ উইকেটে ১৪৯ রানে থেমে যায় তারা।
রাসেল, ইরফান আর কামরুল নিয়েছেন দুটি করে উইকেট। নওয়াজের উইকেট একটি। টস হেরে ব্যাট করতে নামা রাজশাহীর রানের চাকা শুরুতে ছিল শ্লথ। রাসেল অবশ্য জবাব দিয়েছেন শেষ দিকে। নওয়াজের সঙ্গে তার ৭১ রানের ঝড়ো জুটি রাজশাহীকে এনে দিয়েছে ৪ উইকেটে ১৭০ রান।
তৃতীয় ওভারে আফিফকে (১০) মোহাম্মদ আমির ফেরানোর পর দলের হাল ধরেছেন অন্য ওপেনার লিটন দাস ও ইরফান শুক্কুর। যদিও পাওয়ার প্লে শেষে রান ছিল ১ উইকেটে ৪৩ ।
ফাইনালে জ্বলে উঠতে পারেননি লিটন, ২৮ বলে ২৫ রান করে ফিরেছেন। ইরফান অবশ্য ভালোই খেলেছেন, ৩৫ বলে ৫২ রান করে ফিরেছেন।
১৪.২ ওভারে শুক্কুর যখন ফিরে যান তখন স্কোর ৪ উইকেটে ৯৯! এর পরেই কাঙ্ক্ষিত ঝড়ের দেখা পায় রাজশাহী। পঞ্চম উইকেটে রাসেল ও নওয়াজ জুটি ৩৪ বলে করেছে ৭১ রান। ১৬ বলে ৩ ছক্কায় ২৭ রানে অপরাজিত ছিলেন অধিনায় রাসেল। নওয়াজ ছিলেন আরও বিধ্বংসী। ২০ বলে ৬টি চার ও ২ ছয়ে অপরাজিত থাকেন ৪১ রানে। ৩৫ রানে ২টি উইকেট নিয়েছেন মোহাম্মদ আমির। শহিদুল ইসলাম আর ফ্রাইলিঙ্কের উইকেট একটি করে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ