ছাগল মালিকের সংশোধনের জন্য জরিমানা পরিশোধ করলেন ইউএনও, ফেরালেন ছাগল

আপডেট: মে ২৯, ২০২১, ১২:৫৯ অপরাহ্ণ

আব্দুর রউফ রিপন, নওগাঁ প্রতিনিধি:


নওগাঁর পার্শ্ববর্তি বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা পরিষদে চত্বরে সৌন্দর্য্য বর্ধনের জন্য রোপণকৃত ফুলের গাছ বারবার ছাগলে খাওয়ায় সতর্কতামূলক জরিমানা করেছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। গত ১৭মে গণ উপদ্রব আইনে ২হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার সীমা শারমিন।
আবার পরে সেই জরিমানাকৃত টাকা নিজেই সরকারি কোষাগারে জমা করেন সীমা শারমিন এবং বৃহস্পতিবার (২৭মে) বিকেলে উপজেলা চত্বরে চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম খান রাজু, স্থানীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে ছাগলের মালিককে ছাগলটি ফেরত দেওয়া হয়েছে।
জানা যায়, উপজেলা পরিষদ চত্বরে শোভাবর্ধনের জন্য বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপণ করছিলেন নির্বাহী অফিসার সীমা শারমিন। উপজেলা পরিষদ চত্বরটি সবুজায়ন করার লক্ষ্যে তিনি বিভিন্ন গাছ রোপন করে বাগান তৈরি করেছেন। তাই তিনি আশেপাশের গৃহপালিত পশু পালনকারী সকলকে সাবধানে গবাদিপশুগুলোকে চরানোর জন্য একাধিকবার সতর্ক করাসহ নিষেধ করেছিলেন। কিন্তু নিষেধ অমান্য করে পাশের বাসিন্দা সাহারা বেগমের একটি ছাগল একাধিকবার শোভা বর্ধনের গাছগুলো নষ্ট করে আসছিলো। তখন তিনি বাধ্য হয়ে অন্যদের সতর্ক করতে ছাগলের মালিকের কিছু টাকা জরিমানা করেন।
সাহারা বেগমের এক প্রতিবেশী বলেন, সাহারা বেগমের ছাগলটি বেশ কয়েকবার উপজেলা পরিষদ চত্বরের গাছগুলো খেয়েছে। ওই চত্বরে অনেকের গরু-ছাগল ছেড়ে দেওয়া থাকে।
উপজেলার পরিষদে কাজ করতে আসা রাহুল পারভেজ বলেন, উপজেলাতে আসলেই ফুলের বাগানের সৌন্দর্য চোঁখে পড়া মতো। ছাগল বা গরু যদি এভাবে গাছগুলো খেয়ে ফেলে তাহলে পরিষদের সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যাবে। গৃহপালিত পশু পালনকারী সকলের উচিত তাদের গরু ছাগল সাবধানতা অবলম্বন করে চরানো।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার সীমা শারমিন বলেন, সাহারা বেগমেকে ছাগল ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমি তার সাথে রাগ বা অন্য কোনো ব্যক্তিগত স্বার্থে মোবাইল কোর্ট করিনি। তাকে ৩/৪ বার সতর্ক করার পরেও উপজেলা পরিষদে নির্মাণাধীন পার্কের সৌন্দর্য বিনষ্ট ও গণ উপদ্রবের কারণে সংশোধনের জন্য জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানা টাকা মানবতার কারনে আমি নিজেই দিয়েছি। ছাগল বিক্রি করার বিষয়টি সম্পন্ন ভিত্তিহীন। ছাগলটিকে দেখভাল করার জন্য নিরাপত্তাকর্মীদের কাছে রাখা হয়েছিলো।
বগুড়া জেলা প্রশাসক জিয়াউল হক বলেন, যেকোনো বিষয় গণউপদ্রব সৃষ্টি করলে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে শাস্তি দেওয়ার বিধান আছে। আমি যতটুকু শুনেছি, ছাগল মালিকের উপস্থিতেই এই জরিমানা করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।
উল্লেখ্য, গত ১৭ মে দিনের বেলায় সাহারা বেগমের গৃহপালিত ছাগল উপজেলা পরিষদ চত্বরে ঢুকে ফুলের গাছের পাতা খায়। পরে ছাগলটিকে নিরাপত্তার কর্মীরা ধরে নিয়ে এসে মালিকের অনুপস্থিতে সতর্কতামূলক জরিমানা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ