ছয়ে চোখ রেখে হকির প্রস্তুতিতে নামলেন হারুন

আপডেট: জুলাই ৬, ২০১৭, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


ঈদের বিরতি শেষে আবার শুরু হয়েছে এশিয়া কাপ হকির প্রস্তুতি। বুধবার মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে ক্যাম্পের খেলোয়াড়রা রিপোর্ট করেছেন প্রধান কোচ মাহবুব হারুনের কাছে। জার্মানির অলিভার কার্টজ বরখাস্ত হওয়ার পর মাহবুব হারুনকে জাতীয় দলের প্রধান কোচের দায়িত্ব দিয়েছে ফেডারেশন।
দায়িত্ব পাওয়ার পর ঈদের আগে হারুন একদিন ক্যাম্পে গিয়ে খেলোয়াড়দের সঙ্গে পরিচিত হলেও তার অধীনে প্রস্তুতি শুরু হলো বুধবারই। যদিও এ দিন কোনো প্র্যাকটিস করাননি দেশের সবচেয়ে সফল এ কোচ। রিপোর্টিংয়ের পর খেলোয়াড়দের ব্রিফ করেছেন। বৃহস্পতিবার থেকে স্টিক-বলে শিষ্যদের নিয়ে নেমে পড়বেন জাতীয় দলের সাবেক এ অধিনায়ক।
অক্টোবরে ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য এশিয়া কাপ হকি সামনে রেখে ৪০ জনকে ক্যাম্পে ডেকেছে ফেডারেশন। কয়েকজন আছেন জার্মানিতে, কয়েকজনের জ্বর। আবার কয়েকজন ফোনে কোচকে জানিয়েছেন বৃহস্পতিবার চলে আসবেন। এবারের হকি ক্যাম্পের বেশিরভাগই তরুণ খেলোয়াড়। রাসেল মাহমুদ জিমিকে ডাকা হয়নি শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে। পারফরম্যান্সের কারণে বাদ পড়েছেন কয়েকজন সিনিয়র খেলোয়াড়।
টুর্নামেন্ট শুরু হতে এখনো তিন মাসের বেশি বাকি। কোচ মাহবুব তিন মাসকে যথেষ্ট সময়ই মনে করছেন। তবে তার লক্ষ্য অনুশীলনের পাশপাশি বিদেশি দলের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলা। ‘ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। এক মাস পর আমরা ভারতে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে যাব। সেখানে ৪/৫ টি ম্যাচ খেলার পর সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে মালয়েশিয়া গিয়ে কয়েকটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে পারলেই চলবে। আমাদের লক্ষ্য থাকবে ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকায় ফেরা’-বলেছেন জাতীয় হকি দলের প্রধান কোচ মাহবুব হারুন।
এশিয়া কাপে খেলবে দক্ষিণ কোরিয়া, ভারত, পকিস্তান, মালয়েশিয়া, চীন, জাপান, ওমান ও বাংলাদেশ। টুর্নামেন্ট শুরুর আগে বাংলাদেশের অবস্থান ৮ নম্বরে। প্রধান কোচ মাহবুব হারুন নিজেদেরকে যতটা উপরে তোলা যায় সে চেষ্টার কথাই বলেছেন। তবে তার চোখটা ছয়ে। কারণ ৬ দলের মধ্যে টুর্নামেন্ট শেষ করতে পারলে পরবর্তী এশিয়া কাপের বাছাই পর্ব খেলতে হবে না।
তবে তরুণ একটা দল নিয়ে বাংলাদেশ অবস্থান উপরে তুলতে পারবে কিনা প্রশ্নটা সেখানেই। কোচ নিজেও চান ক্যাম্পের বাইরে থাকা আরো কয়েকজনকে নেয়ার। ‘ক্যাম্প শুরুর পর আমার যে দুই সকহারী ছিলেন তাদের কাছ থেকে আমি ১৫ দিন অনুশীলনের রিপোর্ট নেবো। তারপর সিলেকশন কমিটির সঙ্গে বসবো, আরো কাউকে ক্যাম্পে নেয়া যায় কিনা সে বিষয়ে আলোচনা করতে। তবে কারো বিরুদ্ধে শৃঙ্খলার ভঙ্গের অভিযোগ থাকলে সে বিষয়টা ফেডারেশন দেখবে’-বলেছেন মাহবুব হারুন।
এশিয়া কাপকে কোনো চাপ মনে করছেন কী? ‘টুর্নামেন্টটা ঘরে বলেই তো কিছুটা চাপ থাকবে। এখানে সবাই খেলাটা দেখবে। বাইরে গিয়ে ৮/১০ গোল খেয়ে আসলে সেটা মানুষ দেখে না। এখানে এমন হলে মিডিয়াও তা ফলাও করে প্রচার করবে। তাই ভালো করার তাগিদ যেমন থাকবে, তেমন কিছুটা চাপও থাকবে’-জবাব মাহবুব হারুনের।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ