জঙ্গিবাদ সৃষ্টিকারীদের শান্তির পথে ফিরে আসার আহ্বান নগরীতে আঞ্চলিক ইজতেমা শেষ

আপডেট: অক্টোবর ২২, ২০১৬, ১১:৩৮ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নগরীর হযরত শাহ মখদুম (র.) কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে তাবলীগ জামায়াতের তিন দিনের আঞ্চলিক ইজতেমা শনিবার আখেরী মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হয়েছে। গতকাল শনিবার বেলা ১১টা ২০ মিনিট থেকে ১১টা ৫৫ মিনিট পর্যন্ত মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। মোনাজাতে বাংলাদেশসহ গোটা বিশ্বের মুসলিম উম্মাহর সুখ, সমৃদ্ধি ও কল্যাণ কামনা করা হয়। এছাড়া ইসলামের নামে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ সৃষ্টিকারীদের ওই পথ পরিহার করে শান্তির পথে ফিরে আসার জন্য আহ্বান জানানো হয়।
দোয়া পরিচালনা করেন, রাজধানীর কাকরাইল মসজিদ থেকে আসা তাবলীগ জামায়াতের সুরা সদস্য মাওলানা জুবায়ের আহমেদ। এর আগে ফজরের পর থেকে কাকরাইল মসজিদের মুরব্বী মাওলানা রবিউল হক ও মাওলানা আবদুল মতিন মুসল্লিদের উদ্দেশে কোরআন ও হাদিস থেকে বয়ান করেন।
আখেরী মোনাজাতে অংশ নিতে নগরী ছাড়াও দূর-দূরান্ত থেকে সকাল থেকে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা ইজতেমা ময়দানে আসতে থাকেন। বেলা ১১টার আগেই ইজতেমা ময়দান ছাড়িয়ে এর আশপাশের এলাকা কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। ইজতেমা ময়দানের সংযুক্ত সড়কগুলো জনসমুদ্রে পরিণত হয়।
রাজশাহী মহানগর পুলিশের মুখপাত্র সিনিয়র সহকারী কমিশনার ইফতে খায়ের আলম বলেন, ইজতেমার আখেরী মোনাজাত উপলক্ষে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছিল। ইজতেমা ময়দানে পুলিশের পাশাপাশি সাদা পোশাকে পুুলিশ এবং গোয়েন্দা পুলিশও নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করেছে। প্রধান ফটকে  চেকপোস্ট বসানো হয়েছিল। সেখানে স্থাপন করা পুলিশ কন্ট্রোল রুম থেকে ছয়টি সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে নিরাপত্তা ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে।
গত বৃহস্পতিবার ফজরের নামাজের পর আমবয়ানের মধ্যে দিয়ে রাজশাহী আঞ্চলিক ইজতেমার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। মাগরিবের নামাজের পর থেকে চলে মূল বয়ান। ইজতেমায় রাজশাহী বিভাগের বিভিন্ন জেলা থেকে ২০০টি তাবলীগ জমায়েত অংশগ্রহণ করে।