জনগণের জন্য কাজ করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

আপডেট: নভেম্বর ৯, ২০১৬, ১২:১৬ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক
দেশের উন্নয়নের ধারা ধরে রাখতে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে আবারও ক্ষমতায় আনতে দলের নেতা-কর্মীদের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, যেভাবে জনগণ ২০০৮ আমাদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন, সেভাবে ২০১৪ সালে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন। আগামী ২০১৯ সালে নির্বাচনেও জনগণ আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে বিপুলভাবে জয়ী করবে। আর এজন্য নেতা-কর্মীদের এখন থেকেই জনগণের জন্য কাজ করতে হবে।
মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে তিনটায় গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায় নবনির্মিত প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে নবনির্বাচিত উপদেষ্টা পরিষদ ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের প্রথম যৌথসভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ বিশ্বে উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে, আমরা সেটা পারব। গ্রামে দিকে পড়ে থাকা মানুষগুলোর ভাগ্যের পরিবর্তন করতে একমাত্র আওয়ামী লীগ পারবে আর কেউ পারবে না। তাই আমরা চাই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। আর সেই ধারা অব্যাহত রাখার জন্য জনগণের সহযোগিতা আমাদের অবশ্যই লাগবে।
যে কোনো মূল্যে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস নির্মূল করার প্রত্যয় জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, জঙ্গিবাদ তৈরির পাশাপাশি দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে নানা ষড়যন্ত্র করছে বিএনপি-জামায়াত। এদের থেকে সাবধান থাকতে হবে।
দেশের উন্নয়নে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণের করা হয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা আরো বলেন, ২০২০ সালে জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী। সেই বার্ষিকী পালন উপলক্ষে আমাদের এখন থেকে পরিকল্পনা এবং কাজ করে যেতে হবে। ২০২১ সালে আমাদের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি হবে, আমরা সুবর্ণজয়ন্তী পালন করব, সে জন্যও আমাদের প্রস্তুতি নিতে হবে।
এর আগে টানা আটবারের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর বেলা ১২টায় টুঙ্গীপাড়ায় উপস্থিত প্রথমে সরকার প্রধান ও পরে আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে নিয়ে দলীয় প্রধান হিসেবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৗধে শ্রদ্ধা জানান। এ সময় তিনি কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন।
পরে প্রধানমন্ত্রী বড় বোন শেখ হাসিনার পাশে দাঁড়িয়ে ফাতেহা পাঠ করেন বঙ্গবন্ধুর ছোট মেয়ে শেখ রেহানাও। পরে বঙ্গবন্ধু পরিবারসহ মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়। এরপর প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু ভবনে বসে দোয়া মাহফিলে অংশ নেন। যৌথসভা শেষে বিকেল সাড়ে ৪টায় প্রধানমন্ত্রী হেলিকপ্টরযোগে ঢাকায় যান।
এ সময় দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, ফারুক খান এমপি, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, শিল্পমন্ত্রী আমীর হোসেন আমু, গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, উপদেষ্টামÐলীর সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।- রাইজিংবিডি