জনগণ তথ্য প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে ঘরে বসেই ভূমিসেবা পাচ্ছে : বিভাগীয় কমিশনার

আপডেট: মে ২২, ২০২২, ১০:৩০ অপরাহ্ণ

 

নিজস্ব প্রতিবেদক:


ভূমি সেবা সপ্তাহ উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিভাগীয় কমিশনার জিএসএম জাফরউল্লাহ্ এনডিসি বলেন, ভূমি সেবা সপ্তাহ একটা আনুষ্ঠানিকতা মাত্র, এই সেবা সারা বছর চলতে থাকবে। ভূমি সেবা নিয়ে দেশে অনেক জটিলতা ছিল। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় ভূমি মন্ত্রণালয় ভূমি ব্যবস্থাপনাকে ডিজিটালাইজড করেছে।

এর ফলে ভূমি নিয়ে সিংহভাগ জটিলতা নিরসন করা সম্ভব হয়েছে। তথ্য প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে ঘরে বসেই জনগণ যেন ভূমি সুরক্ষাসহ অন্যান্য কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারে, সেজন্য স্থাপিত হয়েছে ষধহফ.মড়া.নফ ভূমি সেবা প্ল্যাটফর্ম।

বর্তমান সরকার ভূমি ব্যবস্থাপনায় জনগণের হয়রানি বন্ধ করতে এবং এই সংক্রান্ত সেবা সহজলভ্য করতে ভূমি সেবাকে জনগণের দৌরগোড়ায় নিয়ে যেতে বদ্ধপরিকর। তাই ডাক বিভাগের মাধ্যমে ই-সেবার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ঘরে বসেই পেয়ে যাচ্ছে জনগণ। রোববার (২২ মে) সকালে বোয়ালিয়া থানা ভূমি অফিসে ‘ভূমি সেবা সপ্তাহ’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

বিভাগীয় কমিশনার আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশের জনগণের ভূমির অধিকার নিশ্চিত করার জন্য ২৫ বিঘা পর্যন্ত জমির খাজনা মওকুফ করে দিয়েছিলেন। মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নতি ছিল তার একমাত্র লক্ষ্য। তাঁর সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দক্ষ, স্বচ্ছ ও জনবান্ধব ভূমি সেবা প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলেছেন এবং ভূমি ব্যবস্থাপনা ডিজিটাইজড করার উদ্যোগ নিয়েছেন।

এছাড়াও ভূমি সেবা সপ্তাহে জবাবদিহিমূলক ভূমিসেবা প্রদান ও বাস্তবায়নে বিশেষ কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ মাঠ পর্যায়ে ভূমি অফিসে কর্মরতদের পুরস্কৃত করেছেন। যা প্রশংসার দাবিদার।

জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল এঁর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) আবু তাহের মো. মাসুদ রানা, জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার ড. সিতারা বেগম।

বোয়ালিয়া থানা ভূমি অফিসের সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহীন মিয়া’র সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্যে পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মুহাম্মদ শরিফুল হক।

উপস্থিত বক্তারা বলেন, ‘ভূমি অফিসে না এসেই ডিজিটাল ভূমি সেবা গ্রহণ’ প্রতিপাদ্যে দেশের ৬৪টি জেলা সহ রাজশাহীতেও ‘১৬১২২ নম্বরে কল সেন্টারের মাধ্যমে ভূমিসেবা’ এবং ‘ডাকযোগে ভূমিসেবা’ বিষয় দুটিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। ভূমি সেবা খাতে যেসব অনলাইন সেবা যুক্ত হয়েছে, সেগুলোকে জনগণের মাঝে ব্যাপক পরিচিত করানোয় ভূমি সেবা সপ্তাহের মূল উদ্দেশ্য।

বক্তারা আরও বলেন, ভূমি অফিসের কর্মকর্তাদের সেবা মায়ের মত যত্নশীল হওয়া উচিত। সেই লক্ষ্যে ভূমিসেবার সকল কার্যক্রম আপ টু ডেট করা হচ্ছে। এছাড়াও আরএস রেকর্ড, জমির নকশা ও খতিয়ান ডিজিটাল করা হচ্ছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের অংশ হিসেবে তথ্য প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে ঘরে বসেই যেন সাধারণ মানুষ নিজের ভূমি সুরক্ষাসহ অন্যান্য কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারে, সেজন্য এক ঠিকানায় সকল ভূমি সেবা নিয়ে আসার জন্য স্থাপন করা হয়েছে ষধহফ.মড়া.নফ ভূমি সেবা প্ল্যাটফর্ম।

এরপর ভূমি সেবা সপ্তাহে জবাবদিহিমূলক ভূমিসেবা প্রদান ও বাস্তবায়নে বিশেষ কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বিভাগীয় পর্যায়ে পাবনা সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. কাওছার হাবীবকে ‘বিভাগীয় পর্যায়ে সেরা সহকারী কমিশনার (ভূমি)’ হিসেবে পুরস্কার প্রদান করা হয়। জেলা পর্যায়ে সেরা কর্মকর্তা হিসেবে রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) শুভ দেবনাথ, জেলা পর্যায়ে সেরা সহকারী কমিশনার (ভূমি)’ পুরষ্কার প্রদান করা হয়।

এছাড়াও, জেলা পর্যায়ে সেরা সেটেলমেন্ট কর্মকর্তা-কর্মচারী হিসেবে রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার একেএম জিয়াউল করিম, নাটোর বাগাতিপাড়া উপজেলার উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার মো. আজগর আলী এবং সেটেলমেন্ট সার্ভেয়ার মোঃ হাবিবুর রহমানকে ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।

বোয়ালিয়া থানা ভূমি অফিসের কানুনগো মো. ওবাইদুল ইসলাম, বোয়ালিয়া থানা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মো. আজিমুল ইসলাম, চারঘাট উপজেলার চারঘাট ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সহকারী কর্মকর্তা মো. কোরবান আলী, পবা উপজেলার কাশিয়াডাঙ্গা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের উপ-সহকারী কর্মকর্তা মো. ইকবাল হোসেনকে ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।