জনদুর্ভোগ দেখে রাস্তা সংস্কার করলেন পুলিশ কনস্টেবল আকরাম

আপডেট: জুন ২০, ২০২১, ১০:১০ অপরাহ্ণ

লালপুর প্রতিনিধি:


জনদুর্ভোগ দেখে লালপুর থানার কর্তব্যরত কনস্টেবল আকরাম হোসেন নিজেই রাস্তা সংস্কারে লেগে যান। ছবিটি রোববার (২০ জুলাই) লালপুর থানার সামনে থেকে তোলা।

বানেশ্বর-বাঘা-লালপুর-ঈশ্বরদী সড়কের ধারে অবস্থিত নাটোরের লালপুর থানা। এই থানার সামনেই বোঝার উপায় নেই এটা পিচ ঢালা প্রধান সড়ক। রাস্তায় জমে আছে হাঁটু পর্যন্ত কাদা-পানি।
থানার সামনে ভাঙা রাস্তায় পানি-কাদা জমে থাকার কারণে মানুষের জনদুর্ভোগ দেখে রোববার (২০ জুন) লালপুর থানার কর্তব্যরত কনস্টেবল আকরাম হোসেন নিজেই কোদাল হাতে বৃষ্টির পানি মাথায় করে রাস্তা সংস্কারে নেমে পড়েন। পুলিশের এই মানবিক অচরণ সবাইকে হতবাক করে দেয়।
নাটোরের লালপুরের প্রধান সড়কগুলোর অবস্থা বেহাল। লালপুর থেকে গোপালপুর, বিলমাড়িয়া, আব্দুলপুর, ঈশ্বরদীগামী প্রধান সড়কগুলো খালখন্দে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।
সরেজমিন রোববার (২০ জুন ২০২১) বিভিন্ন রাস্তা ঘুরে দেখা যায়, লালপুর থানার সামনে, লালপুর বাজার, পাবলিক লাইব্রেরি, উত্তর লালপুর, কলেজ মোড়, ডেবরপাড়া, নুরুল্লাপুর, রামকৃষ্ণপুর, মাধবপুর, মঞ্জিলপুকুর, বিলমাড়িয়া পর্যন্ত পুরো রাস্তা, কচুয়া, সালামপুরসহ অন্তত ৫০ টি স্থানে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। সেই সাথে কয়েক দিনের বর্ষণে জমে থাকা পানি আর কাদাতে রাস্তাগুলোয় চলাচল করা গাড়ি ও মানুষদের ভোগান্তির অন্ত নেই। আর গ্রামের রাস্তাগুলোর যে কী হাল তা বলার অপেক্ষা রাখে না।
লালপুর থানার সামনে ক্ষতিগ্রস্থ রাস্তার পার্শ¦বর্তী মুদি দোকানদার এজাজুল হক মোল্লা বলেন, রাস্তায় চলাচলকারী গাড়ি থেকে ছুটে আসা কাদা-পানিতে প্রায়শই ভিজতে হয়। মালামাল নষ্ট হয়ে যায়। দেখে মনে হয় রাস্তাগুলো এতিম। কেউ দেখার নেই।
লালপুর উপজেলা প্রকৌশলী জুলফিকার আলী বলেন, ইতোমধ্যে জরুরি ভিত্তিতে রাস্তা সমুহ চলাচলের উপযোগী করার জন্য সংস্কার কাজ শুরু হয়েছে। আপাতত ইট বিছানো হচ্ছে। অল্প দিনের মধ্যে পরিপূর্ণ সংস্কার করা হবে।
লালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফজলুর রহমান বলেন, থানার গেট থেকে বেরিয়েই রাস্তার কাদা পানিতে চুবানি খেতে হয়। জনদুর্ভোগ দেখে কর্তব্যরত কনস্টেবল আকরাম হোসেন নিজেই রাস্তার সংস্কারে নেমে পড়েন। তিনি মানবিক পুলিশের দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ