জন্মদিনে শহিদ কামারুজ্জামানের প্রতি শ্রদ্ধা

আপডেট: জুন ২৯, ২০১৭, ১২:৪৮ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সমাধিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ ও মোনাজাত করা হয়েছে। গত সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় শহিদ কামারুজ্জামানের সমাধিতে গিয়ে এ মোনাজাত করা হয়।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও নগর সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, সহসভাপতি নিঘাত পারভীন, নওশের আলী, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মোস্তাক হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আসলাম সরকার, উপপ্রচার সম্পাদক মীর ইসতিয়াক আহমেদ লিমন, সদস্য আহসানুল হক পিন্টু, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আবদুল মমিন, সাধারণ সম্পাদক জেডু সরকার ও অ্যাডভোকেট ইব্রাহিমসহ নেতৃবৃন্দ।
উল্লেখ্য, এই মহান ব্যক্তিত্ব ১৯২৩ খ্রিস্টাব্দে ২৬ জুন বৃহত্তর রাজশাহী জেলার নাটোর মহকুমার বাগাতিপাড়া থানার মালঞ্চী রেলস্টেশন সংলগ্ন নূরপুর গ্রামে মাতুলালয়ে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈত্রিক নিবাস রাজশাহী শহরের কাদিরগঞ্জ মহল্লায়। তার দাদা গুলাই এর জমিদার হাজী লাল মোহাম্মদ সরদার (১৮৪৮-১৯৩৬) ব্রিটিশ আমলে একজন রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক হিসেবে খ্যাত ছিলেন। কামারুজ্জামানের বাবা আবদুল হামিদ মিয়া (১৮৮৭-১৯৭৬) ছিলেন একজন বিশিষ্ট রাজনীতিক ও সমাজসেবক। তিনি রাজশাহীতে মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠায় বিশেষ ভূমিকা পালন করেন। তিনি পূর্ববঙ্গ আইন পরিষদের সদস্য (এম.এল.এ) ছিলেন।
আবদুল হামিদ মিয়া ও মাতা জেবুন নেসার ১২ ছেলেমেয়ের মধ্যে এএইচএম কামারুজ্জামান ছিলেন প্রথম সন্তান। তার জন্মের সময়ে দাদা হাজী লাল মোহাম্মদ সরদার ছিলেন কলকাতায়। তিনি রাজশাহী এসে পৌত্রের আকিকার ব্যবস্থা করেন। পৌত্রের তিনি নামকরণ করেন আবুল হাসনাত মোহাম্মদ কামারুজ্জামান। ডাক নাম দিলেন দাদি ‘হেনা’। হাসনা-হেনা ফুলের গন্ধ ও সৌরভে বংশের সুনাম বৃদ্ধি করবে এই হেনা আদরের এই ছিল দাদির ঐকান্তিক প্রার্থনা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ