জমির বিরোধ নিয়ে বিবাদীকে বাদিপক্ষের প্রাণনাশের হুমকি

আপডেট: ডিসেম্বর ৬, ২০১৬, ১২:১২ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক



নগরীতে জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে বাদি পক্ষের হুমকির মুখে আতঙ্কে দিন পার করছেন বিবাদী ও তার পরিবারের সদস্যরা। আদালতে মামলা থাকলেও জমি দখলের চেষ্টা, প্রাণনাশের হুমকিসহ থানায় ডেকে নিয়ে নানানভাবে হয়রানি চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিবাদী পক্ষের লোকজন। এসব হয়রানির বিষয়ে বিবাদী পক্ষের লোকজন রাজশাহীর জেলা প্রশাসকসহ প্রশাসনের বিভিন্ন জায়গায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
মামলার বিবাদী জসিম উদ্দিন জানান, নগরীর বোয়ালিয়া থানার বোয়ালিয়া মৌজায় তাদের সাড়ে ৪ কাঠা  জমি রয়েছে। জমিদারি আমল থেকে শুরু করে সিএস, এসএ খতিয়ান তাদের নামে। কিন্তু কোনোভাবে আরএস খতিয়ানটি রেকর্ড হয় নগরীর সাগরপাড়া এলাকার মজিবর রহমানের নামে। এ বিষয়ে যখন মজিবর রহমানের ছেলে শাদীন মোহাম্মদ মাহবুর জমির মালিকানা দাবি করে বসেন, তখন তারা রেকর্ডের বিষয়ে জানতে পারেন। এরপর থেকেই শাদীন মোহাম্মদ মাহবুর বিভিন্নভাবে জমিটি দখলের চেষ্টা করে আসছেন। শাদীন এ বিষয়ে রাজশাহী আদালতে মামলাও দায়ের করেছেন। এরপরে আরএস রেকর্ড সংশোধনের জন্য তারাও আবেদন করেছেন।
আদালতে মামলা চললেও বাদি পক্ষের লোকজন নানানভাবে তাদের হুমকি দিয়ে আসছে। সম্প্রতি জমিটি দখলের চেষ্টা হিসেবে তারা থানায় অভিযোগ করেন। গত রোববার নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানার ভেতরে জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে উভয়পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে। উভয়পক্ষ তাদের আইনজীবীদের নিয়ে থানায় বসেন। ওইসময় বিবাদী পক্ষের আইনজীবী থানার ওসি শাহাদাত হোসেনকে জানান, জমি সংক্রান্ত মামলাটি আদালতে চলমান রয়েছে। এ অবস্থায় থানায় বসে মামলার নিস্পত্তি হওয়া আইনের বর্হিভূত হবে। এমন কথার প্রেক্ষিতে বাদি পক্ষের লোকজন বিবাদী জসিম উদ্দিন এবং তার লোকজনের ওপরে চড়াও হয়। বিবাদী পক্ষ থানায় চলমান মামলার তথ্য কপি জমা দিতে চাইলেও পুলিশ তা জমা নেয়নি।
বিবাদী জসিমের ছোট ভাই সেলিম চৌধুরী জানান, বিষয়টি আদালতে বিচারধীন আছে। যদি আদালতের রায়ে প্রতিপক্ষ জমি পান, তাহলে তাদের কিছু করার নেই। কিন্তু আদালতে চলমান মামলা ঠুকে দিয়ে বাদি পক্ষ নানান কৌশলে জমিটি দখলের চেষ্টা চালাচ্ছে।
এ বিষয়ে বোয়ালিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহাদত হোসেন জানান, দুই পক্ষের  জমি-জমার বিরোধ নিয়ে মীমাংসার কথা ছিলো। উভয়পক্ষ থানায় এসেছিলো। কিন্তু হট্টগোলের সৃষ্টি হলে তাদের থানা থেকে চলে যেতে বলা হয়েছে।
আদালতের মামলা বিষয়ে তিনি বলেন, আদালতে মামলার বিষয়ে তারা যে ইনফমেশন স্লিপ দিয়েছে তা জমা নেয়া হয়েছে। জমির বিরোধ নিয়ে নিয়ে যাতে আইন-শৃঙ্খলার কোনো অবনতি না হয় সে জন্য উভয়পক্ষকে বলা হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ