জমে উঠেছে স্পিনারদের ‘যুদ্ধ’

আপডেট: আগস্ট ২৮, ২০১৭, ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


লিওনকে ফিরিয়ে সাকিব দিলেন জবাব

ব্যাটে-বলে লড়াইয়ের আগেই শুরু হয়ে গিয়েছিল ‘কথার লড়াই’। বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে এ লড়াইয়ে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। তিনি বলেছিলেন, ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার চেয়ে বাংলাদেশের স্পিনাররা এগিয়ে। প্রতিপক্ষ দল থেকে এনিয়ে সবার আগে প্রতিক্রিয়া জানান অস্ট্রেলিয়ার মূল স্পিনার নাথান লিওন। সাকিবের কথাকে ‘বাড়াবাড়ি’ বলেছিলেন তিনি। তবে সহকারী স্পিনার অ্যাস্টন অ্যাগারকে নিয়ে মাঠেই এর জবাব দিতে চেয়েছিলেন তিনি। বাংলাদেশকে ২৬০ রানে প্রথম ইনিংসে অলআউট করতে দুজনে তিনটি করে উইকেট নিয়ে সেটা দিয়েও দিয়েছেন। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানদের দিশেহারা করতে মেহেদী হাসান মিরাজকে সঙ্গে করে পাল্টা জবাব দিয়েছেন সাকিবও। কথার লড়াইকে মাঠে ফলিয়ে দুই দলের স্পিনাররাই দেখিয়ে দিলেন জমে উঠেছে তাদের ‘যুদ্ধ’।
গতকাল রোববার ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনের শেষ সেশনের শুরুতেই বোঝা যাচ্ছিল মিরপুরের উইকেট স্পিনাদের দুইহাত ভরেই দেবে। চা বিরতির পর বাংলাদেশ ওই সেশনেই হারায় শেষ ৫ উইকেট। অবশ্য সেই ফাঁদ থেকে বাঁচতে পারে নি অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানরাও। স্মিথরা ব্যাটিংয়ে নেমেই মিরাজ-সাকিবের ভয়ঙ্কর সব ঘূর্ণির মুখোমুখি হলেন। তাদের জাদুকরি কয়েকটি বল সামলাতে বেশ হিমশিম খেতে হয়েছে ওয়ার্নার-খাজাদের। দ্বিতীয় দিনের শুরুটা অস্ট্রেলিয়ার জন্য কতটা ভয়ঙ্কর হবে, সেটা শেষ বিকেলের খন্ডচিত্রগুলো দেখলেই বোঝা যাচ্ছে।
ঢাকা টেস্ট শুরু হওয়ার আগে কথার লড়াইয়ে সবচেয়ে বেশি সরব ছিলেন সাকিব। যেখানে সাকিব-তামিমের প্রতিপক্ষ ছিলেন লিওন-স্মিথ। তারা প্রত্যেকে একে অন্যকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন। লিওনতো মাঠেই প্রমাণের ঘোষণা দিয়েছিলেন। তাদের এই ঠান্ডা যুদ্ধ মিরপুরের ২২ গজে স্পষ্টই দেখা গেছে। কাকতালীয় ব্যাপার হলো, লিওন-সাকিব দুজনেই আউট হয়েছেন দুজনের বলে।
প্রথম ম্যাচে মাঠে গড়ানোর বেশ আগে থেকেই উইকেট নিয়ে বেশ আলোচনা তৈরি হয়েছিল। সেই আলোচনা ছিল স্পিন বান্ধব উইকেট নিয়েই। ম্যাচ শুরুর সঙ্গে সঙ্গে এতোদিনের আলোচনায় ঘি ঢেলে দেন প্যাট কামিন্স। ১০ রানের মধ্যে তিনি একাই বাংলাদেশের তিন টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানকে সাজঘরের পথ দেখান। এর পরের চিত্রটা স্পিনারদের প্রমাণ দেওয়ার। স্পিন বান্ধব উইকেটে তারাই আধিপত্য দেখিয়েছেন। তামিম-সাকিবের ১৫৫ রানের জুটি ভেঙেছেন অনিয়মিত বোলার গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। সবমিলিয়ে বাংলাদেশের ৭ ব্যাটসম্যানকে ফিরিয়েছেন স্পিনাররা। এর পর অস্ট্রেলিয়া ব্যাটিংয়ে নেমে ১৪ রানের মধ্যে হারিয়েছে ৩ উইকেট, যার দুটি গেছে মিরাজ ও সাকিবের দখলে। উসমান খাজা রান আউট হয়েছেন সাকিবের ওভারেই।
এটা বলার অপেক্ষা রাখে না, স্বাগতিকরা নিজেদের পক্ষে ফল আনতে সব রকমের গোলা-বারুদ অজিদের বিপক্ষে ব্যবহার করবে। সোমবার দ্বিতীয় দিনের পরিকল্পনাগুলো ঠিকঠাক রাখতে রাতেই যে সভা করবেন মুশফিকরা! দিনের খেলা শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই উইকেটের দিকে এগিয়ে গেলেন প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে, তার সঙ্গে ছিলেন দুই সহকারি কোর্টনি ওয়ালশ ও সুনীল যোশি। খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে উইকেট দেখলেন। হয়তো দ্বিতীয় দিনে বোলারদের কীভাবে ব্যবহার করবেন, তার ছক আজ রাতেই মুশফিককে বুঝিয়ে দেবেন তারা। অবশ্য অধিনায়কের কাছ থেকে নতুন করে আর কী-ই বা বোঝার আছে সাকিব-মিরাজদের। তারা দুজন যে ‘যুদ্ধে’ জয়ী হতে মরিয়া, যেখানে সহযোদ্ধা হিসেবে তাকে সঙ্গ দেবেন তাইজুল ইসলাম।-বাংলা ট্রিবিউন