জলবায়ু সংকটকে আর কত উপেক্ষা করবেন: রাজনীতিবিদদের প্রতি গ্রেটা

আপডেট: এপ্রিল ২৩, ২০২১, ৭:৩৬ অপরাহ্ণ

সোনারে দেশ ডেস্ক


জলবায়ু পরিবর্তনের ইস্যুকে উপেক্ষা করায় ক্ষমতাশালী রাজনীতিবিদদের এক হাত নিয়েছেন পরিবেশবাদী অ্যাকটিভিস্ট গ্রেটা থানবার্গ। বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের এক শুনানিতে অংশ নিয়ে মার্কিন আইনপ্রণেতাদের প্রতি তিনি আহ্বান জানান, তারা যেন জলবায়ু সংকটকে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে। জীবাশ্ম জ্বালানি খাতে ভর্তুতি দেওয়া বন্ধ করারও আহ্বান জানিয়েছেন ১৮ বছর বয়সী গ্রেটা। ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি’র প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।
২০১৮ সালে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় পদক্ষেপ নেওয়ার দাবিতে অভিনব কায়দায় আন্দোলন শুরু করে বিশ্বব্যাপী আলোচনায় আসেন তৎকালীন ১৬ বছর বয়সী কিশোরী গ্রেটা থানবার্গ। ওই বছর ‘ইয়ুথ স্ট্রাইক’ নামক সে আন্দোলনের অংশ হিসেবে প্রতি শুক্রবার সুইডিশ পার্লামেন্টের বাইরে অবস্থান নেওয়া শুরু করেছিলেন তিনি। তার এই অবস্থানের মধ্য দিয়ে বিশ্বজুড়ে বেগবান হয় জলবায়ু আন্দোলন। তার প্রতি সমর্থন জানিয়ে দুনিয়াজুড়ে এই আন্দোলনে শামিল হন লাখ লাখ মানুষ। শুধু তাই নয়, জাতিসংঘের জলবায়ুবিষয়ক বিশেষ অধিবেশনেও জ্বালাময়ী বক্তৃতা দিয়েছিলেন তিনি।
বৃহস্পতিবার মার্কিন কগ্রেসের নিম্ন কক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে বক্তব্য রাখেন গ্রেটা। জলবায়ু পরিবর্তনের ভয়াবহতা থেকে যে ক্ষমতাশালীদেরও রেহাই মিলবে না সে কথা মনে করিয়ে দেন তিনি। আইনপ্রণেতাদের প্রতি প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে গ্রেটা বলেন,দআর কতদিন আপনারা বিশ্বাস করে যাবেন যে আপনাদের মতো ক্ষমতায় থাকা মানুষরা এর থেকে পার পেয়ে যাবেন? আর কতদিন ভাববেন যে জলবায়ু সংকট, ন্যায্যতার বৈশ্বিক দৃষ্টিভঙ্গি ও ঐতিহাসিক নির্গমনকারীদের দায়বদ্ধ করার বিষয়কে উপেক্ষা করে চালিয়ে নেওয়া যাবে?’
গ্রেটা যখন বক্তব্য দিচ্ছিলেন সে একই দিনে (২২ এপ্রিল বৃহস্পতিবার) আর্থ ডে উপলক্ষে ভার্চুয়াল জলবায়ু সম্মেলন আয়োজন করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। সে সম্মেলনে যোগদানকারী বিশ্ব নেতাদের উদ্দেশ্য করে গ্রেটা বলেন, ক্ষমতাশালী স্বার্থ ও আইনপ্রণেতারা বিশ্বজুড়ে জীবন-যাপনের ক্ষেত্রগুলো ধ্বংসে ভূমিকা রাখছেন।
এ পরিবেশকর্মী আরও বলেন ‘আপনারা এখন হয়তো পার পেয়ে যাচ্ছেন, কিন্তু শিগগিরই মানুষ বুঝতে পারবে যে আপনারা আসলে এ সময়ে কী করেছিলেন।’
চিনের পর যুক্তরাষ্ট্রই বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ কার্বন নিঃসরণকারী দেশ। সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন কার্বন নিঃসরণ কমানোর বৈশ্বিক উদ্যোগ থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে বের করে নিয়ে যান। তবে বাইডেনের প্রশাসন জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় আবারও বিশ্ব নেতৃত্বের আসন পুনরুদ্ধার করতে চাইছেন। এই লক্ষ্যে জলবায়ু বিষয়ক দুই দিনের ভার্চুয়াল সম্মেলন আয়োজন করেন তিনি। সম্মেলনে ২০৩০ সালের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের গ্রিনহাউজ গ্যাস নিঃসরণ অর্ধেক কমিয়ে আনার ঘোষণা দিয়েছেন বাইডেন। তার প্রশাসন আশা করছে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কার্বন নিঃসরণকারী অন্য বড় দেশগুলোও তাদের লক্ষ্যমাত্রা বাড়িয়ে নেবে।
বাইডেনের সিদ্ধান্তকে ‘গেম চেঞ্জিং’ আখ্যা দিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ২০৩০ সালের মধ্যে কার্বন নিঃসরনের মাত্রা ৪৬ শতাংশ কমানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছে জাপান। কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোও ৪০-৫০ শতাংশ কমানোর ঘোষণা দিয়েছেন।
তথ্যসূত্র: বাংলাট্রিবিউন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ