জাতীয় ক্রিকেট দলে ডাক পেলেন গোদাগাড়ীর আরেক সন্তান নয়ন

আপডেট: মার্চ ১৫, ২০১৭, ১২:২৩ পূর্বাহ্ণ

একে তোতা, গোদাগাড়ী



সানজামুল ইসলাম নয়ন। ক্রীড়া পরিবারে বেড়ে উঠেছেন। তবে অন্য ভাইগুলো ক্রিকেটের বড় পর্যায়ে খেলা না হলেও ছোট ভাই নয়ন সে আশা পুরুণ করেছে। দীর্ঘ দিন অপেক্ষার পর জাতীয় দলে ডাক পেয়েছেন গোদাগাড়ীর এই কৃতী সন্তান।
রাজশাহীর গোদাগাড়ী পৌর এলাকার ফাজিলপুর গ্রামের মৃত মফিজ উদ্দীন নায়েবের কনিষ্ঠ ছেলে সানজামুল ইসলাম নয়ন ৮ ভাইয়ের মধ্যে সবার ছোট। শ্রীলঙ্কা সফরে ওয়ানডে দলে জায়গা পাওয়া এই ক্রিকেটার বলেন, সব খেলোয়াড়ের মতো আমিও স্বপ্ন দেখি একদিন জাতীয় দলে খেলব। স্বপ্নটা এখানো পুরোপুরি পূরণ হয়নি ঠিকই, তবে সেটি পূরণে একটি ধাপ তো পেরিয়েছি।’
সুসংবাদের সুবাসে মনটা সানজামুলের ভরে গেছে আপার্থিব আনন্দে। তবে আনন্দক্ষনেই তাঁর ভীষণ মনে পড়ছে না ফেরার দেশে চলে যাওয়া বাবা মফিজ উদ্দীনকে। তিন বছর আগে যিনি চলে গেছের পৃথিবী ছেড়ে। বাবার কথা মনে পড়তেই অদ্ভুত বিষণ্নতা ঘিরে ধরে সানজামুলকে।
এই প্রসঙ্গে সানজামুল ইসলাম নয়ন বলেন, রাজশাহী শিরোইল স্কুল মাঠে আমার ক্রিকেটে খাতেখড়ি। বাবা ভাইদের প্রেরণায় ক্রিকেটে আসা। পেশাদার ক্রিকেট খেলছি সেটা বাবা দেখে গেছেন। তবে প্রথমবারের মতো জাতীয় দলে ডাক পেয়েছি, এ সুসংবাদটা তাঁর শোনা হলো না। বাবাকে খুব মনে পড়ছে। যদি ম্যাচ খেলার সুযোগ পাই, সেটাও দেখার সুযোগ হবে না। বাবা যদি দেখতে পেতেন! শুধু আফসোসই হবে আমার।’
এদিকে সানজামুলের জাতীয় ক্রিকেট দলে সুযোগের ঘোষণার পর গোদাগাড়ীতে বইছে আনন্দ। গোদাগাড়ী উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আকবর আলী সানজামুলের সাফল্য কামনা করে বলেছেন, সে জাতীয় দলে ডাক পেয়ে আমাদের উপজেলার সুনাম আরেক ধাপ বৃদ্ধি করেছে।’ শুধু আকবর নয়, পুরো গোদাগাড়ীবাসী তার সাফল্য কামনা করেছেন।
সানজামুল ইসলাম নয়ন যুব বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলে ও বিসিবি এ দলের হয়ে খেললেও জাতীয় দলে এই প্রথম ডাক পেলেন। সানজামুল ইসলাম নয়ন অলরাউন্ডার হিসেবে ৫৭ টি প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ২১২টি উইকেটের পাশাপাশি আছে ১টি সেঞ্চুরি ও ৫টি ফিফটি। ৬০ লিস্ট ‘এ’ ম্যাচে পেয়েছেন ৮ টি উইকেট এ সংস্করণে যদিও সেঞ্চুরি নেয়,তবে আছে একটি ফিটটি। সর্বশেষ বিসিএলটা দুর্দান্ত গেছে সানজামুলের। ৬ ম্যাচে ২৫ উইকেট নিয়ে শুভাগত হোমের সঙ্গে আছেন যৌথভাবে শীর্ষে। গত মাসে চট্টগ্রামে বিসিবি উত্তরাঞ্চলের হয়ে ওয়ালটনে মধ্যাঞ্চলের বিপক্ষে ৮০ রানে ৯ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ইনিংস সের বোলিংয়ের রেকর্ড গড়েছেন। গোদাগাড়ী আরেক ক্রিকেটার জহরুল ইসলাম অমি জাতীয় ক্রিকেট দলের উইকেট রক্ষক ও ব্যাটসম্যান।