জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জ রোহিঙ্গারা, সুপ্রিম কোর্টকে জানাল কেন্দ্র

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৭, ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


রেহিঙ্গাদের জন্য দেশের দরজা একরকম বন্ধই করল কেন্দ্র। কেন রোহিঙ্গাদের দেশে থাকার বা প্রবেশের অনুমতি দেয়া হচ্ছে না সে ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টকে ব্যাখ্যাও দেয়া হল। কেন্দ্র জানাল, রোহিঙ্গারা জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রে বড় চ্যালেঞ্জ। এদের সঙ্গে আইসিস-এরও যোগ থাকতে পারে।
মায়ানমারের রোহিঙ্গা সমস্যা এখন সারা পৃথিবীর কাছেই মাথাব্যথা। জঙ্গি যোগের কারণেই রাখাইন প্রদেশে রোহিঙ্গাদের উপর অভিযান চালায় মায়ানমার সেনা। তাতে ঘরছাড়া হয় বহু সাধারণ রোহিঙ্গা। ঘরছাড়া হয়ে ভারত ও বাংলাদেশে চলে আসতে বাধ্য হয়। বাংলাদেশে ইতোমধ্যেই কয়েক লক্ষ রোহিঙ্গা প্রবেশ করেছে। যার প্রভাব সরাসরি পড়েছে সে দেশের অর্থনীতিতে। এ নিয়ে রাষ্ট্রসংঘের সঙ্গে কথা বলেছেন সে দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোহিঙ্গা সমস্যায় ভুক্তভোগী ভারতও। ভারতও রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে চায় না। যদিও কূটনৈতিক ক্ষেত্রে কৌশলী পদক্ষেপ হিসেবে রোহিঙ্গা উদ্বাস্তু সামলাতে হিমশিম বাংলাদেশকে ত্রাণ পাঠিয়ে সাহায্য করেছে। কিন্তু কেন ভারত রোহিঙ্গাদের সম্পর্কে কঠোর অবস্থান নিচ্ছে? ভারতের কাছে এ জিনিস কাম্য ছিল না বলে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে রাষ্ট্রসংঘ। এই প্রেক্ষিতে ভারত জানিয়েছিল, পুরো বিষটি দেশের জাতীয় নিরাপত্তার সঙ্গে জড়িত। তাই রাষ্ট্রসংঘের আবেদন মেনে এ ব্যাপারে কোনও আপোশ করতে নারাজ ভারত। বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টকেও সে কথাই জানাল কেন্দ্র। রোহিঙ্গারা যে জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রে বড় থ্রেট তা দ্বিধাহীনভাবে জানানো হল। তুলে ধরা হল রোহিঙ্গাদের সঙ্গে আইসিস যোগের কথা। প্রসঙ্গত রোহিঙ্গাদের উপর অত্যাচারের কারণে মায়ানমারকে মাশুল দিতে হবে বলে হুমকি দিয়েছে আল কায়েদাও। তাই কোনও পরিস্থিতিতে ভারতকে যাতে এই ধরনের পরিস্থিতির মুখে পড়তে না হয়, সে ব্যাপারে সতর্ক দেশ। এই বার্তার পর দেশের দরজা রোহিঙ্গাদের জন্য বন্ধ বলেই মনে করা হচ্ছে।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন, কলকাতা