জাদেজার ঘূর্ণিতে ভারতের ইনিংস ব্যবধানে জয়

আপডেট: ডিসেম্বর ২১, ২০১৬, ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



চেন্নাই টেস্টের শেষ দিনের সকাল দেখে বোঝা যায়নি কী নাটকীয়তা অপেক্ষা করছে শেষ বেলায়। রবিন্দ্র জাদেজার ক্যারিয়ার সেরা বোলিং, ইংলিশদের কিছু বাজে শটে পঞ্চম ও শেষ টেস্টে দারুণ এক জয় পেয়েছে ভারত।
মুম্বাইয়ের পর চেন্নাইয়েও প্রথম ইনিংসে বড় স্কোর করেও ইনিংস ব্যবধানে হেরেছে ইংল্যান্ড। এমএ চিদাম্বরাম স্টেডিয়ামে অ্যালেস্টার কুকদের বিব্রতকর হারটি ইনিংস ও ৭৫ রানের। এই জয়ে ৪-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতেছে বিরাট কোহলির দল।
দলকে দুর্দান্ত এক জয় এনে দিতে ক্যারিয়ার সেরা ৪৮ রানে ৭ উইকেট নিয়েছেন জাদেজা। ম্যাচে ১৫৪ রানে বাঁহাতি এই স্পিনার নিয়েছেন ১০ উইকেট; এটাও ক্যারিয়ারে প্রথম।
গতকাল মঙ্গলবার কোনো উইকেট না হারিয়ে ১২ রান নিয়ে পঞ্চম ও শেষ দিন শুরু করে ইংল্যান্ড। প্রথম সেশনটা কোনো বিপদ ছাড়াই কাটিয়ে দেন কুক ও কিটন জেনিংস। তাদের শতরানের জুটিতে ভালো শুরু পাওয়া অতিথিদের বিপদে ফেলেন জাদেজা। তার ঘূর্ণির কাছে পরাস্ত হয়ে ফিরেন টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান। বাঁহাতি স্পিনারের বলে লেগ স্লিপে ক্যাচ দেন অধিনায়ক কুক। অর্ধশতক পাওয়া জেনিংস বিদায় নেন ফিরতি ক্যাচ দিয়ে। দুই অঙ্কে যাওয়ার আগেই এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন আরেক ব্যাটিং ভরসা জো রুট।
ইশান্ত শর্মার বলে অনেকটা দৌড়ে পেছন দিক থেকে আসা জনি বেয়ারস্টোর ক্যাচ তালুবন্দি করেন ব্যাটে-বলে-ফিল্ডিংয়ে নিজেকে মেলে ধরা জাদেজা। ১০৩/০ থেকে ইংল্যান্ডের স্কোর তখন ১২৯/৪। দ্বিতীয় সেশনের বাকি সময়টুকু নিরাপদেই কাটিয়ে দেন মইন আলি-বেন স্টোকস।
দুই বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের দৃঢ়তায় দিনের শেষ সেশন কাটিয়ে দেওয়া সম্ভব মনে হচ্ছিল। কিন্তু অহেতুক ঝুঁকি নিয়ে তারাই দলকে ফেলে দিলেন বিপদে। তৃতীয় সেশনের শুরুতে জাদেজার ওপর চড়াও হতে গিয়ে মিডঅনে ক্যাচ দেন মইন, মিডউইকেটে ক্যাচ দেন আরেক বাঁহাতি ব্যাটসম্যান স্টোকস।
অভিষেক টেস্টের প্রথম ইনিংসে অর্ধশতক পাওয়া লিয়াম ডসন এবার রানের খাতাই খুলতে পারেননি। বোল্ড হন লেগ স্পিনার অমিত মিশ্রর বলে। দ্বিতীয় নতুন বলে পয়েন্টে জাদেজার তালুবন্দি হন আদিল রশিদ। কিছুক্ষণের বিরতির পর আবার জাদেজাকে আক্রমণে ফেরান বিরাট কোহলি। নিজের দ্বিতীয় ওভারেই দলকে অসাধারণ এক জয় এনে দেন বাঁহাতি স্পিনার। স্টুয়ার্ট ব্রডকে ফেরানোর পর শেষ ব্যাটসম্যান জেইক বলকেও তুলে নেন তিনি। এক প্রান্তে দাঁড়িয়ে অসহায়ের মতো ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়া দেখেন জস বাটলার। ৬ রানে অপরাজিত ছিলেন এই মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান। কোনো উইকেট পাননি অফ স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিন। আরেক স্পিনার অমিত মিশ্র পেয়েছেন ১ উইকেট। কিন্তু জাদেজার ঘূর্ণির জবাব জানা ছিল না ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের। তাই ১০ উইকেট নিয়েও দুই সেশন কাটিয়ে দিতে পারেন নি তারা। দলকে টেস্টে নিজেদের সর্বোচ্চ রানের সংগ্রহ এনে দিতে ত্রিশতক করা করুন নায়ার পেয়েছেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার। দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেয়া কোহলি হয়েছেন সিরিজ সেরা।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
ইংল্যান্ড ১ম ইনিংস: ৪৭৭
ভারত ১ম ইনিংস: ১৯০.৪ ওভারে ৭৫৯/৭ ডিক্লে.
ইংল্যান্ড ২য় ইনিংস: ৮৮ ওভারে ২০৭ (কুক ৪৯, জেনিংস ৫৪, রুট ৬, মইন ৪৪, বেয়ারস্টো ১, স্টোকস ২৩, বাটলার ৬*, ডসন ০, রশিদ ২, ব্রড ১, বল ০; শর্মা ১/১৭, অশ্বিন ০/৫৬, জাদেজা ৭/৪৮, যাদব ১/৩৬, মিশ্র ১/৩০)
ফল: ভারত ইনিংস ও ৭৫ রানে জয়ী
সিরিজ: ৫ ম্যাচের সিরিজ ৪-০ ব্যবধানে জয়ী ভারত
ম্যান অব দ্য ম্যাচ: করুন নায়ার
ম্যান অব দ্য সিরিজ: বিরাট কোহলি।