জুতো মারায় এয়ারলাইন্সে ভারতীয় এক এমপি নিষিদ্ধ

আপডেট: মার্চ ২৫, ২০১৭, ১২:১৬ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


ভারতীয় যে এমপি বিমানের একজন কর্মীকে স্যান্ডেল দিয়ে মেরেছিলেন পাঁচটি ভারতীয় এয়ারলাইন্স তাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। এয়ার ইন্ডিয়ার একটি ফ্লাইটে বিজনেস ক্লাসে আসন না পেয়ে এমপি রাভিন্দ্রা গায়কোয়াদ তার স্যান্ডেল দিয়ে ওই কর্মীকে ‘২৫ বার মেরেছেন’ বলে তিনি নিজেই স্বীকার করেছেন।
তিনি বলেছেন, ওই কর্মীর ‘ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণের’ জন্যে তিনি তাকে তার পায়ের চপ্পল দিয়ে মেরেছিলেন।
এয়ার ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে এবিষয়ে বৃহস্পতিবার কর্তৃপক্ষের কাছে একটি অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে।
এয়ার ইন্ডিয়া বলছে, এমপি গায়কোয়াদকে ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের সবকটি ফ্লাইটেই নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এই ফেডারেশনের মধ্যে যেসব এয়ারলাইন্স রয়েছে সেগুলো হচ্ছে, ইন্ডিগো, গো এয়ার, স্পাইস জেট এবং জেট এয়ারওয়েজ।
ভারতে অভ্যন্তরীণ বিমান চলাচলের ক্ষেত্রে এই পাঁচটি এয়ারলাইন্স বড়ো ধরনের কোম্পানি। এসব এয়ারলাইন্সে প্রতি বছর প্রচুর যাত্রী চলাচল করেন।
ফেডারেশনের পক্ষ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে মি. গায়েকায়াদের বিরুদ্ধে ‘কড়া ব্যবস্থা’ নেয়ার জন্যে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি দাবি জানানো হয়েছে।
বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “আমরা মনে করি আমাদের কোন একজন কর্মীর ওপর আক্রমণ মানে আমাদের সবার উপরেই আক্রমণ।”
খবরে বলা হচ্ছে, এমপি গায়কোয়াদ পুনে থেকে দিল্লিতে যাওয়ার সময় বিজনেস ক্লাসে আসন চেয়েছিলেন। তখন তাকে বলা হয় যে ওই ফ্লাইটে সবই ইকোনমি ক্লাসের।
তখন তাদের মধ্যে শুরু হয় তর্কাতর্কি। এবং এক পর্যায়ে তিনি ওই কর্মীকে স্যান্ডেল দিয়ে মারতে শুরু করেন।
সংবাদ মাধ্যমকে এমপি বলেন, “আমি বিজেপির এমপি নই। আমি শিব সেনার এমপি। কোন ধরনের অপমান আমি সহ্য করবো না। ওই কর্মী অভিযোগ করুক। আমিও স্পিকার ও অন্যান্য জায়গায় অভিযোগ করবো।”
এনিয়ে সোশাল মিডিয়ায় তুমুল হৈচৈ শুরু হওয়ার পর শুক্রবারেও এমপি বলেছেন, তিনি ওই কর্মীর কাছে মাফ চাইবেন না।
বিমানের একজন কর্মকর্তা সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, তাকে এমনভাবে মারা হয়েছে যে তার চশমাও ভেঙে গেছে।
“যখন আমি তাকে বললাম যে তিনি যা চাইছেন তাকে সেটা দেয়া সম্ভব নয় তখন তিনি গালাগাল করতে শুরু করেন। এটা যদি কোনো এমপির আচরণ হয় তাহলে দেশের কি অবস্থা হবে!” বলেন তিনি।
বিমান চলাচল বিষয়ক মন্ত্রী অশোক গনপতি সংসদে সাংবাদিকদের বলেছেন, “কোনো নাগরিকই এধরনের আচরণ করতে পারেন না। শারীরিকভাবে মারধর করাও গ্রহণযোগ্য নয়। এধরনের আচরণকে সবসময় নিন্দা করতে হবে।”
গত বছর অন্ধ্র প্রদেশের এক বিমানবন্দরে আরেকজন এমপি একটি এয়ারলাইনের কর্মকর্তাকে চড় মারার অভিযোগ ওঠার পর ওই এমপিকে গ্রেফতার করা হয়েছিলো।
গেইট বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর ওই এমপির পরিবারকে বিমানে তুলতে অপারগতা প্রকাশ করার পর তিনি তাকে চড় মেরেছিলেন বলে অভিযোগ উঠেছিলো।- বিবিসি বাংলা

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ