জেএমবির ‘আধ্যাত্মিক নেতা’ কাশেম জাহাজবাড়ির মামলায় রিমান্ডে

আপডেট: মার্চ ৪, ২০১৭, ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



নব্য জেএমবির ‘আধ্যাত্মিক নেতা’ মাওলানা আবুল কাশেম ওরফে মুফতি কাশেমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের পুলিশ হেফাজতে পাঠিয়েছে আদালত।
কল্যাণপুরের জাহাজবাড়িতে জঙ্গিবিরোধী অভিযানের ঘটনায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় পুলিশের রিমান্ড আবেদনের শুনানি করে শুক্রবার ঢাকার মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদার এই আদেশ দেন।
বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর সেনপাড়া পর্বতা থেকে মুফতি কাশেমকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট।
এ ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম পরে সাংবাদিকদের বলেন, ২০১৩ সালে তামিম চৌধুরী ও মাওলানা মো. আবুল কাশেমের যৌথ প্রয়াসে বাংলাদেশে নব্য-জেএমবির জঙ্গিবাদি কার্যক্রমের সূচনা হয়। সংগঠনের কর্মী সমর্থকরা তাকে ডাকতেন ‘বড় হুজুর’ নামে।
দুপুরে কাশেমকে ঢাকার হাকিম আদালতে হাজির করে জাহাজবাড়ির মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক জাহাঙ্গীর আলম দশ দিনের হেফাজতে নিয়ে কাশেমকে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি চান।
রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, কাশেম ছিলেন জাহাজবাড়ির আস্তানার জঙ্গিদের মন্ত্রণাদাতা। তিনি জেএমবি সদস্যদের প্রশিক্ষক ছিলেন। তার অন্য সহচরদের নাম-ঠিকানা জানতে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা জরুরি।
আদালত পুলিশের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা এসআই আলতাফ হোসেন জানান, কাশেমের পক্ষে আদালতে কোনো আইনজীবী ছিলেন না। শুনানি শেষে বিচারক সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
গতবছর ২৬ জুলাই কল্যাণপুরে জাহাজবাড়ি নামে পরিচিত এক ভবনে পুলিশের অভিযানে সন্দেহভাজন নয় জঙ্গি নিহত হয়। ওই ঘটনার পর পুলিশ মিরপুর মডেল থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে এই মামলা দায়ের করে।- বিডিনিউজ