জেলায় জেলায় করোনার টিকা দেয়া শুরু ৭ ফেব্রুয়ারি সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে করোনা নির্মূল করতে হবে

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২১, ১২:৩২ পূর্বাহ্ণ

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা ছাড়া এই করোনা ভাইরাস দেশ থেকে একেবারে নির্মূল করা দূরূহ কাজ। ভ্যাকসিন প্রয়োগের ফলেই এর আগে পৃথিবী থেকে পোলিও, প্লেগসহ অন্যান্য মহামারিগুলি বিদায় নিয়েছে জানা সত্ত্বেও ভ্যাকসিন প্রয়োগে দেশে এখন কিছু মানুষ বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। এই বিভ্রান্তির ফলে শুরুতে মানুষের মনে ভয়ের শঙ্কা থাকলেও এখন ধীরে ধীরে তা কেটে যাচ্ছে।
আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে রাজশাহীতেও করোনার টিকা দেয়া শুরু হবে। রাজশাহীতে ১ লাখ ৮০ হাজার ডোজ এসেছে। এই ডোজ প্রয়োগ করার জন্য চাই সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা। আর এই ব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে করোনা নির্মূল করতে হবে। কোভিড-১৯ প্রতিরোধী ভ্যাকসিন পেতে শুরু করেছে বাংলাদেশের মানুষ।বৈশ্বিক মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক এত দ্রুত আবিষ্কার হবে সেটা কিছুদিন আগেও ভাবা যেত না। আবিষ্কার হলেও বাংলাদেশ কবে টিকা পাবে সেটা নিয়েও সংশয় ছিল। বিজ্ঞানীদের অক্লান্ত প্রচেষ্টায় পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ভ্যাকসিন আবিষ্কার হচ্ছে। আবিষ্কারের প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই বাংলাদেশে টিকা এসেছে। সেই সাথে আইনপ্রেনেতাসহ অনেকেই টিকা নেয়া শুরু করেছেন। দেশব্যাপী ২০টি সেক্টরের প্রায় ১ কোটি ৬৭ লাখ মানুষকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করোনার ভ্যাকসিন দেয়ার পরিকল্পনা করেছে সরকার। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনার বিরুদ্ধে হার্ড ইমিউনিটি গড়ে তুলতে হলে দেশের ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ মানুষকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনতে হবে। সরকার এ লক্ষ্য নিয়েই কাজ করছে। কিন্তু ভ্যাকসিন আবিষ্কারের আগে মানুষের মধ্যে যে আগ্রহ ছিল, টিকা নেয়ার ক্ষেত্রে সেই আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না। টিকা নিয়ে অনেক ভুল তথ্য প্রচার হচ্ছে। এর ফলে প্রান্তিক মানুষরাই বেশি বিভ্রান্ত হচ্ছে। এমনকি শিক্ষিত-সচেতন মানুষের মধ্যেও সংশয় তৈরি হয়েছে। এক দল মানুষ টিকাই নিতে চাচ্ছে না বলে জানা যাচ্ছে। আর এক দল মানুষ পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে টিকা নেয়া বা না নেয়ার সিদ্ধান্ত নিতে চাচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে টার্গেটেড জনগোষ্ঠীকে টিকাদান কর্মসূচির আওতায় আনা যাবে কিনা সেই প্রশ্ন উঠেছে।
করোনার টিকা প্রশ্নে মানুষের প্রকৃত মনোভাবটা আগে বুঝতে হবে। তাদের মধ্যে কোন বিভ্রান্তি বা দ্বিধা থাকলে সেটা দূর করতে হবে। এক শ্রেণির মানুষ কোভিড-১৯ রোগকে গুরুত্বহীন ভাবতে শুরু করেছে। তাদের এ বিপজ্জনক ভাবনার অবসান ঘটানো জরুরি। মানুষকে টিকা নিতে আগ্রহী করতে সুপরিকল্পিত প্রয়াস চালাতে হবে। এক্ষেত্রে ইপিআই কর্মসূচির অভিজ্ঞতা কাজে লাগানো যেতে পারে। ব্যাপক জনসচেতনতা তৈরির বিকল্প নেই।
টিকা দেয়া এবং টিকাপরবর্তী পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মোকাবিলায় কোন অব্যবস্থাপনা যেন না হয়, সেটা কঠোরভাবে নিশ্চিত করতে হবে। যদিও স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে যে, তারা সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। তবে অতীতে তাদের বিরুদ্ধে নানা অব্যবস্থাপনার অভিযোগ আছে। করোনার পরীক্ষা করাতে ও চিকিৎসা নিতে মানুষকে অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। টিকা নেয়ার বেলায় যেন এর পুনরাবৃত্তি না ঘটে, সে বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। করোনার টিকা দেয়া বিশাল এক কর্মযজ্ঞ। সঠিক ব্যবস্থাপনা ছাড়া এ কর্মযজ্ঞ সুচারুরূপে সম্পন্ন করা কঠিন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ