জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা পেলেন ৯ গুণী শিল্পী

আপডেট: আগস্ট ২৫, ২০২১, ৮:৫৫ অপরাহ্ণ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:


ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল এমপি বলেছেন, বঙ্গবন্ধু সুখী সমৃদ্ধি বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষে অন্যান্য সকল ক্ষেত্রের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক অঙ্গনে বিল্পব আনতে চেয়েছিলেন। বাঙালির জাতিসত্তা বিকাশে বঙ্গবন্ধু শিল্পকলা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। যাঁরা গুণী মানুষের কদর জানে না, সে দেশে গুণী মানুষ জন্মে না। তাদেরকে কে সম্মাননা দেবে, এ জায়গা থেকে কাজ করতে হবে। এ ব্যাপারে ভবিষ্যত প্রজন্মকে আরো আগ্রহী করে গড়ে তুলতে হবে। বুধবার (২৫ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১০টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৯ গুণী শিল্পীকে শিল্পকলা একাডেমির পক্ষ থেকে সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমৃদ্ধ শিল্প সংস্কৃতি বিকাশে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি কাক্সিক্ষত লক্ষে এগিয়ে চলেছে। জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ, মাদকমুক্ত ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে সংস্কৃতি বিকাশের বিকল্প নেই। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মহসিন মৃধার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন, জেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. রুহুল আমীন, নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. শংকর কুমার কুন্ডু।
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন, জেলা শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার মো. ফারুকুর রহমান ফয়সাল। এর আগে সম্মাননা শিল্পীরা তাদের অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন। পরে প্রধান অতিথি সম্মাননা প্রাপ্তদের উত্তরীয়, ১০ হাজার টাকার চেক, মেডেল ও সনদপত্র তুলে দেন। ২০১৯ সালে সম্মাননা প্রাপ্তরা হলেন, কন্ঠ সংগীতে গোলাম মোস্তফা, লোক সংস্কৃতি গবেষণায় তাসাদ্দক আহমদ জিন্নাহ, ঝান্ডি গানে আলাম হোসেন, আবৃত্তিতে আমিনুল হক আমির, তালযন্ত্র তবলায় মো. আজিজুর রহমান এবং ২০২০ সালে সম্মাননা প্রাপ্তরা হলেন, কন্ঠ সংগীতে রফিকুল ইসলাম বাবু, লোক সংস্কৃতি গবেষণায় ড. শহীদ সারওয়ার আলো, তালযন্ত্র বাঁশি মো. সাইফুল ইসলাম অনু, লোক সংস্কৃতি আলকাপে শ্রী সঞ্জয় কুমার ঘোষ ও সৃজনশীল সাংস্কৃতিকে ইলামিত্র স্মৃতি সাংস্কৃতিক যুব একাডেমি। শেষে, সাংস্কৃতিক পরিবেশনার মধ্যদিয়ে আয়োজন শেষ হয় ।