জোরপূর্বক রাস্তা বন্ধ করায় ১৫০ পরিবারের ভোগান্তি || সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগিদের অভিযোগ

আপডেট: জুলাই ১৩, ২০২০, ১০:৫৩ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহীতে জোরপূর্বক রাস্তা বন্ধ করায় প্রায় ১৫০ নিজস্ব ও ভাড়াটিয়া পরিবার ভোগান্তিতে পড়েছে। এমন অভিযোগ তুলে গতকাল সোমবার দুপুরে বিসিক মোড়ের ম্যাগো টাওয়ারে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগিরা। সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, রাস্তার সাথে থাকা ড্রেনও বন্ধ করা হয়েছে। এনিয়ে ২০১৯ সালের ২ আগস্ট নগরীর বোয়ালিয়া থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন ভুক্তভোরীরা।

 

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়- পবা মোজার দলিল নম্বর ৫৮৩৮, হোল্ডিং নম্বর ২৭৬২, খতিয়ান নম্বর ২৯২০, জেল নম্বর ৮১, ডিসিআর নম্বর ৮৬৮৩৩/৯। পুরো জমির মালিক আবদুস সালামসহ কয়েকজন। তারা দেশের বাইরে যাওয়ার পরে এই জমির দেখা শোনা করেন আবুল কালাম আজাদ ও তাজুল ইসলাম। এর পরে জমির মালিকরা জমিগুলো বেশ কয়েকজনের কাছে বিক্রি করেছেন। বিক্রির সময় জমির মালিক দলিলে উল্লেখ করেন ১২ ফুটের রাস্তার কথা। যদিও এই রাস্তার পাশে সরকারি ড্রেনও রয়েছে। এছাড়া সরকারি রাস্তার সাথে সংযুক্ত। তার পরেও রাস্তা পুরোপুরি ব্যবহার করতে দেওয়া হচ্ছে না।

 

সংসাদ সম্মেলনে আরও অভিযোগ করা হয়- সেই জমিতে অনেকই ভবন নির্মাণ করেছেন। ভবন থেকে বের হওয়া সম্ভব হচ্ছে না বসবাসকারিদে। জমি দেখভালকারী আবুল কালাম আজাদ ও তাজুল ইসলাম মিলে সবার রাস্তা বন্ধ করে রেখেছেন। তারা বিভিন্ন সময় চাঁদাও দাবি করেন। তাদের চাঁদার টাকা না দেওয়ায় রাস্তা ছাড়ছেন না এমন অভিযোগ করা হয় সংবাদ সম্মেলন থেকে।

এবিষয়ে কেয়ারটেকার তাজুল ইসলাম জানান, আমি আর সেই জমিগুলো দেখা-শোনা করি না। অন্যজন দেখা-শোনা করেন। আর জমির মালিকরা দেশের বাইরে আছেন। রাস্তার বিষয়ে কথা থাকলে তাদের সাথে বলতে হবে।

তিনি আরও জানান, জমির মালিক আবদুস সালাম, আবদুস সেলিম ও শাহানাজ বেগম। বিভিন্ন জনের কাছে জমি বিক্রি করেছেন। এই দলিলে উল্লেখ রয়েছে বিএনসিসির পাশের রাস্তা দিয়ে এয়ারপোটের রাস্তার সাথে সংযুক্ত। পুরানো নওহাটা সড়কের রাস্তা নিতে হলে শাহানাজ বেগমের সঙ্গে কথা বলতে হবে। তার জমি তিনিই সিদ্ধান্ত নিবেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, আবদুল মালেক, এহসানুল হক, আশিক ইসলাম টফি, দুরুল হুদা, আবদুর রহমান, আবদুল হামিদ, মাসুদ রহমান প্রমুখ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ