জ্বালানি সংকটে ধুঁকছে ইউরোপের অর্থনীতি

আপডেট: জুন ৬, ২০২২, ৮:১৮ অপরাহ্ণ

সোনার ডেস্ক ডেস্ক:


ফ্রান্স, জার্মানি, গ্রিস, অস্ট্রিয়া, বেলজিয়াম, সাইপ্রাস, এস্তোনিয়া, ফিনল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড, ইতালি, লাটভিয়া, লিথুয়ানিয়া, লুক্সেমবার্গ, মাল্টা, নেদারল্যান্ড, পর্তুগাল, স্লোভাকিয়া, স্লোভেনিয়া এবং স্পেন এই ১৯টি দেশ নিয়ে গঠিত ইউরো জোন। এক দশকের মধ্যে সর্বনিম্ন সুদের হার এবং নিম্ন মুদ্রাস্ফীতির কারণে ভালো অর্থনৈতিক অবস্থানে ছিলেন ইউরো জোনের মানুষরা।

কিন্তু বর্তমানে ভোক্তা মূল্য সূচক বার্ষিক ৮ শতাংশ ছাড়িয়ে যাচ্ছে, যেখানে ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাংকের (ইসিবি) লক্ষ্যমাত্রা ২ শতাংশ। ব্যাংকের গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্যরা সুদের হার বাড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছে এবং আগামী ৯ জুন অর্থনৈতিক পলিসি সংক্রান্ত বৈঠকে সেটি নিশ্চিত হতে পারে। কিন্তু ইসিবি নিজেই এখন একটি জটিল অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এমনটি চলতে থাকলে শুধু দ্রব্যমূল্য বেড়ে যাওয়া নয়, প্রবৃদ্ধি অর্জনেও জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে।

এ দুটি বিষয়কে জটিল করে তুুলেছে জ্বালানির তীব্র সংকট। ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের আগে থেকেই তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাসের দাম বাড়তে থাকে ইউরো জোনে, যুদ্ধের কারণে আরও কয়েক দফা দাম বেড়েছে। ক্রমবর্ধমান পণ্যের দাম আমেরিকার তুলনায় ইউরোপে ভোক্তা-মূল্যের মুদ্রাস্ফীতি বাড়াতে অনেক বড় ভূমিকা পালন করেছে।

মার্কিন বিনিয়োগ ব্যাংকিং সংস্থা গোল্ডম্যান স্যাকসের তথ্য বলছে, ইউরো অঞ্চলে জ্বালানির দাম-যা মে মাসে বার্ষিক ৩৯ শতাংশ হারে বেড়েছে। এটি আমেরিকার দুই পয়েন্টের তুলনায় মুদ্রাস্ফীতিতে প্রায় চার পয়েন্টের বেশি দাঁড়িয়েছে।

অন্যান্য ভোক্তা মূল্য সূচককেও প্রভাবিত করে এই মুদ্রাস্ফীতি। গত মে মাসে ইউরো জোনে অর্থনীতিবিদদের ধারণাকে ছাড়িয়ে গেছে মুদ্রাস্ফীতি। গত বছরের তুলনায় এপ্রিল মাসে জার্মানিতে উৎপাদন খরচ ৩৩ দশমিক ৫ শতাংশ বেড়ে গেছে। শুধু তেল, গ্যাস নয়, ধাতব দ্রব্য কংক্রিট ও রাসায়নিকের মতো পণ্যেরও দাম বেড়েছে।

এসব কারণে ব্যবসার খরচ এবং পরিবারের ক্রয় ক্ষমতার ওপর একটি বড় আঘাত এসেছে। এটা ইউরো অঞ্চলের অর্থনীতিকে কতটা বিপদের মধ্যে ফেলে সেটাই দেখার বিষয়।

এরই মধ্যে জ্বালানির আকাশচুম্বী দাম বিপদে ফেলেছে নিম্ন আয়ের পরিবারগুলোকে। মজুরি ইউরো জোনজুড়ে বাড়ানো হয়েছে, তবে এখনও মুদ্রাস্ফীতির কারণে স্থিতিশীল অবস্থার মধ্যে রয়েছে। কিছু নিয়োগকর্তা কর্মীদের একদফা অর্থ প্রদান করেছেন, দাম ও খরচের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে।

নেদারল্যান্ডসে বার্ষিক বেতন বৃদ্ধি করা হয়, উদাহরণস্বরূপ, ব্যবসায়িক মনোভাব চাঙা এবং কঠোর শ্রমবাজার থাকা সত্ত্বেও গত মে মাসে মাত্র ২ দশমিক ৮ শতাংশে দাঁড়িয়েছে সেটি। এক অর্থে, এটি ইসিবির জন্য সুসংবাদ, কারণ এটি মজুরি-মূল্য সর্পিল হওয়ার ঝুঁকি কমায়।

অবকাঠামোগত খাত এরই মধ্যে অসুবিধায় পড়েছে। চীনের সম্প্রতি লকডাউন জারি এবং জ্বালানির উচ্চমূল্যের ফলে নতুন করে সরবরাহে বিঘœ ঘটছে যা ব্যবসায় ধস এনেছে। জার্মানি পূর্ব ইউরোপে শিল্প মন্দার জন্য সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ বলে ধারণা করা হচ্ছে। গত মে মাসে ইউরো জোনের ম্যানুফেকচারিং কোম্পানিগুলোর ২০২০ সালের জুনের পর নতুন অর্ডার প্রথমবারের মতো কমেছে, যা দুর্বল চাহিদার নির্দেশক। রপ্তানি আদেশ দুই বছরের মধ্যে দ্রুত গতিতে হ্রাস পেয়েছে।
তথ্যসূত্র: জাগোনিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ