জয়পুরহাটে ২য় রাউন্ড ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন ১০ ডিসেম্বর

আপডেট: ডিসেম্বর ৬, ২০১৬, ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

জয়পুরহাট প্রতিনিধি
জয়পুরহাটে জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন ১০ ডিসেম্বর (২য় রাউন্ড) উপলক্ষে সাংবাদিকদের ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় নার্সিং ইন্সটিটিউটের সম্মেলনকক্ষে দিনব্যাপী এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।
কর্মশালার উদ্দেশ্য ও জেলার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের কর্মসূচি তুলে ধরেন জেলা সিভিল সার্জন ডা. জসিম উদ্দিন হাওলাদার, জেলা পরিবার পরিকল্পনা উপপরিচালক ডা. কেএম জোবায়ের গালীব, জেলা আধুনিক হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. খুরশিদ আনোয়ার প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন, সদর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. লাইলী আক্তার। ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন ২য় রাউন্ডে সফলতা কামনা করে সাংবাদিকদের করণীয় এর ওপর বক্তব্য দেন জেলা পরিষদের প্রশাসক, জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম সোলায়মান আলী, জয়পুরহাট প্রেসক্লাবের সভাপতি মোস্তাকিম ফাররোখ। সাংবাদিক মধ্য হতে মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন আবু বক্কর সিদ্দিক, অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, আলমগীর কবীর, অ্যাড. নন্দকিশোর আগরওয়ালা। ওরিয়েন্টেশন কর্মশালার আলোচনায় জানানো হয়, চলতি ২০১৬ সালের ১০ ডিসেম্বর ভিটামিন এ প্লাস ২য় রাউন্ডে ৬-১১ মাসের ১১ হাজার ৩৪ জন শিশু এবং ১২-৫৯ মাসের ১ লাখ ১৮ হাজার ৩৯৯ জন শিশুকে ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নেয়া হয়েছে। এই ক্যাম্পেইনে জেলার ৮৭০টি কেন্দ্রে বিভিন্ন পর্যায়ের ২ হাজার ৬১০ জন স্বাস্থ্য কর্মী ও ১ম সারির ১০২ জন ও ২য় পর্যায়ের ৪২ জন ফিল্ড তত্ত্বাবধায়ক এই কার্যক্রমে অংশ নেবেন।
আরো জানানো হয়, ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইনের উদ্দেশ্য হলো ৬-৫৯ মাস বয়সী শিশুদের মধ্যে ভিটামিন এ এর অভাবজনিত রাতকানা রোগের প্রাদুর্ভাব ১ শতাংশের নিচে কমিয়ে আনা এবং এসব শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করা। ভরা পেটে এই ক্যাপসুল খাওয়ানো ভালো। এই ক্যাপসুল শিশু মৃত্যুর ঝুঁকি কমায়। এছাড়া মায়ের শাল দুধ, ডিম, দুধ, কলিজা, মাছ, মাংস, মিষ্টি আলু, গাজর, কুমড়া, লালশাক, কচু শাক, পুঁইশাক, পালং শাক, শালগম, পাকা  আম, পাকা পেঁপে, পাকা কাঁঠাল ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার। কর্মশালায় পরিবারে খাবারে ভিটামিন এ সমৃদ্ধ ভোজ্য তেল ব্যবহারের পরামর্শ দেয়া হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ