জয় দিয়ে সফর শুরুর স্বস্তি বাংলাদেশের

আপডেট: ডিসেম্বর ১৫, ২০১৬, ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


অস্ট্রেলিয়ান বিগ ব্যাশের দল সিডনি সিক্সার্সকে হারিয়েই দিল টাইগাররা! মাশরাফি বিন মুর্তজার দল গতকাল বুধবার বাংলাদেশ সময় দুপুরে শুরু ম্যাচে তুলে নিয়েছে ৭ উইকেটের জয়। বৃষ্টির কারণে নতুন করে তাদের সামনে ৮ ওভারে ৮৪ রানের টার্গেট দেয়া হয়েছিল। সিডনি নর্থ ওভালে স্বাগতিক দলের বিপক্ষে ১ ওভার হাতে রেখেই ৩ উইকেট হারিয়ে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায় টাইগাররা। যদিও প্রস্তুতি ম্যাচ। তারপরও অস্ট্রেলিয়ায় দারুণ এক জয়েই টাইগারদের নিউজিল্যান্ড সফরের প্রস্তুতি শুরু হল। এরপর বিগ ব্যাশ চ্যাম্পিয়ন সিডনি থান্ডার্সের সাথে ১৬ ডিসেম্বর আছে আরেকটি প্রস্তুতি ম্যাচ।
আগে ব্যাট করে শুরু ও শেষের ঝড়ে ৯ উইকেটে ১৬৯ রান তুলেছিল সিক্সার্স। ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতে দারুণ মারছিলেন সিডনি সিক্সার্সের ব্যাটসম্যানরা। তাতে মনে হয়েছিল এই টি-টুয়েন্টি ম্যাচে রানের পাহাড়ে উঠে যাবে তারা। কিন্তু একের পর এক আঘাতে অস্ট্রেলিয়ান বিগ ব্যাশের দলটিকে আকাশছোঁয়া সংগ্রহ গড়তে দেননি টাইগার বোলাররা। বল হাতে ৩ উইকেট নিয়ে সবচেয়ে সফল সৌম্য সরকার। তাইজুল ইসলাম ও তাসকিন আহমেদ নিয়েছেন ২টি করে উইকেট। ১টি করে উইকেট মাশরাফি ও মেহেদী হাসান মিরাজের।
এরপর সৌম্য সরকার ও ইমরুল কায়েসের ওপেনিং জুটি ভালো শুরু এনে দেয়। প্রথম ওভারেই ১৭! ‘বাংলাদেশ, বাংলাদেশ’ স্লোগানে চারদিক মুখরিত করে তোলেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। ওপেনিং জুটি ২৯ রানের। ইমরুল ছক্কা দিয়ে শুরু করলেও দ্বিতীয় ওভারে ফিরেছেন। ২ ওভারে ১ উইকেটে ২৯ রান। এরপর সাব্বির রহমান ফিরে যান। ৩৭ রানের সময় ফেরেন সৌম্যও। তার মানে ৮ রানে ৩ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে ফেলেছিল টাইগাররা। সৌম্য ৯ বলে ২০ রান করেছেন। ১ রান সাব্বিরের। ইমরুল ফেরেন ১২ রান করে।
কিন্তু ‘ভায়রা ভাই’ মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ ঠিকই দলের হাল ধরে রেখেছেন। সিক্সার্সের বোলারদের বিপজ্জনক হয়ে উঠতে দেননি। ৪ ওভারেই ৪৩ রান হয়ে যায়। তাতে শেষের ২৪ বলে ৪১ দরকার পড়ে। মাহমুদউল্লাহ টানা দুটি ছক্কা হাঁকান। মুশফিকও বাউন্ডারিতে এগিয়ে যান। আসে জয়।মাহমুদ উল্লাহ ২৮ (১৩ বলে) ও মুশফিক ১৫ (৮ বলে) রানে অপরাজিত থাকেন। এই ম্যাচে খেলেন নি তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান ও মুস্তাফিজুর রহমান।
এর আগে টস হেরে দুই ওপেনার ড্যান হিউজ ও জেসন রয় সিক্সার্সের রানের চাকা দ্রুত  ছুটিয়েছেন। অষ্টম ওভারে এলবিডাব্লিউর ফাঁদে পড়ে ফিরে যান হিউজ। স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ এই উইকেট নিয়ে ব্রেক থ্রু এনে দেন। হিউজ করেন ৩১ বলে ৪৭ রান। ৭৩ রানে প্রথম উইকেট পড়ে সিক্সার্সের। পরের ওভারে বাঁ হাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম তুলে নেন ব্রাড হ্যাডিনের (৬) উইকেট।
এরপর রয় ২৩ বলে ৪২ রানে তাসকিন আহমেদের বলে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন। ওই ওভারে তাসকিন শিকার করেছেন স্যাম বিলিংসকেও। মাত্র ৫ রান করে ফিরে যান ইয়োহান বোথা। বাংলাদেশ আরো একটি উইকেট তুলে নিলে ১১৮ রানে তখন ৫ উইকেট সিক্সার্সের। মাশরাফি পরে কার্টার্সকে (৮) ফেরান।
এরপর টেল এন্ডারদের ব্যাটে লড়তে থাকে সিক্সার্সরা। শেষে জর্ডান সিল্কের ব্যাটে আবারো ঝড় তোলে সিক্সার্স। তাতেই সংগ্রহটা লাফিয়ে বাড়ে। শেষ ওভারে ৩ উইকেট পড়ে সিক্সার্সের। সিল্ক ৩৫ রান করে ফেরেন। আউট হন বেন ডোয়ারসিস (৪) ও মেন্নি। কিন্তু বাংলাদেশের ব্যাটিংয়েও কম ঝড় দেখা যায়নি। শেষ হাসিটা তাই টাইগারদেরই।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
সিডনি সিক্সার্স : ২০ ওভারে ১৬৯/৯ (হিউজ ৪৭, জেসন রয় ৪২; সৌম্য ৩/৫, তাসকিন ২/৩৮, তাইজুল ২/৩৮, মিরাজ ১/৭, মাশরাফি ১/২৯)।
বিসিবি একাদশ (লক্ষ্য ৮ ওভারে ৮৪) : ৬.৪ ওভারে ৮৪/৩ (মাহমুদউল্লাহ ২৮*, সৌম্য ২০, মুশফিক ১৫*, ইমরুল ১২, সাব্বির ১)।
ফল : বিসিবি একাদশ ৭ উইকেটে জয়ী।
বাংলাদেশ একাদশ : ইমরুল কায়েস, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন, শুভাগত হোম, মাশরাফি বিন মুর্তজা, মেহেদী হাসান মিরাজ, শুভাশিষ রায়, তানভীর হায়দার, তাইজুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ ও কামরুল ইসলাম রাব্বি।
সিডনি সিক্সার্স একাদশ : শন অ্যাবোট, স্যাম বিলিংস, ইয়োহান বোথা, রায়ান কার্টার্স, সৌমিল চিব্বার, বেন ডোয়ারসিস, ব্র্যাড হ্যাডিন, জেসন রয়, ড্যানিয়েল হিউজ, জোয়ি মেন্নি, জর্ডান সিল্ক।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ