ঝুঁকি নিয়ে বাসের ছাদে বাড়ি ফেরা

আপডেট: আগস্ট ২৮, ২০১৭, ১:০৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


নগরীর বহরমপুরে চাপাইনবাবগঞ্জগামী বাসে উঠছেন নিম্ন আয়ের সাধারণ মানুষ-সোনার দেশ

প্রতিদিন জীবন জীবিকার খোঁজে লোকালয় থেকে শহরের পথে মানুষের সমাগম ঘটে। সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত সারাদিন কাজ শেষে বাড়ি ফেরার অপেক্ষা থাকে। প্রতিনিয়ত নিরাপদ ও শান্তিতে বাড়ি ফেরার প্রচেষ্টা সবারই থাকে। কিন্তু বাড়ি ফেরার যাত্রাটা যদি জীবনবাজি রেখে হয় তাহলে তার দায়টুকু কাদের? পথের যাত্রা নিয়ন্ত্রণবিহীন ও অনিরাপদ যানবাহন চলাচল ব্যবস্থার প্রতিকার নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট বাস মালিকদের জোরালো পদক্ষেপ প্রয়োজন।
নগরীর বিন্দুর মোড়, বর্ণালির মোড়, বহরমপুর মোড় ও সিটি বাইপাস একটি গুরুত্বপূর্ণ জনবহুল এলাকা। এসব মোড়ে বিশেষ করে সকাল ৮ টা ও বিকেল ৫টার দিকে খেটে খাওয়া, দিনমজুর ও শ্রমজীবী মানুষের আসা-যাওয়ার ভীড় লক্ষ করা যায়। এসব খেটে খাওয়া মানুষ নগরীর বিভিন্ন এলাকা থেকে কাজ শেষ করে অল্প টাকায় বাসে কিংবা বাসের ছাদে করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সড়কের রাজবাড়ি ও গোদাগাড়ির উদ্দেশ্যে যাওয়া-আসা করে থাকে। কাজ শেষ করে কম খরচে বাড়ির পথে ও গন্তব্যে যাওয়া নিয়ে কথা, এ যাত্রা নিরাপদ হোক আর অনিরাপদ হোক। এসব খেটে খাওয়া মানুষের জন্য নগরী থেকে বাস চলাচল করে প্রতিদিনই।
নগরীর বিভিন্ন এলাকা থেকে কাজ শেষ করে বিকেল থেকে শুরু করে সন্ধ্যার আগে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাড়ি ফেরেন কর্মজীবী ও শ্রমিকরা। তাড়াহুড়ো করে আগেই বাসের ভেতর ও বাসের ছাদে ওঠার জন্য লাইন ধরে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এক পর্যায়ে বাসের ভেতর ও ছাদে উপচে পড়া ভীড় লক্ষ করা যায়। নগরীর বহরমপুর থেকে পশ্চিম দিকে গোদাগাড়ি-চাঁপাইনবাবগঞ্জের যাওয়া-আসার সড়ক। শ্রমিকদের জন্য চাঁপাই থেকে রাজশাহী পর্যন্ত বাস ভাড়া ১০ থেকে ৩০ বা ৪০ টাকার মধ্যে হওয়ায় বাসের ছাদে করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাত্রা করে জানান শ্রমিকরা।
নগরীর সিটি বাইপাশ মোড়ে চাঁপাইমুখি সড়কে ‘সূচনা ট্রাভেলসে’ শ্রমজীবী মানুষ গন্তব্যে যাওয়ার দৃশ্য প্রতিদিনই লক্ষ করা যায়। বাসের চালক ঝুঁকির ব্যাপারে বলেন, ওরা ঝুঁকি নিতে পারলে আমার পরিবহণে সমস্যা নেই।
বাসচালক আরো বলেন, এটা তো একদিনের যাওয়া-আসার সমস্যা না, প্রতিদিনই এভাবে যাওয়া আসা করে তারা। এসময় বাসটি চাঁপাইনবাবগঞ্জ এর দিকে যাচ্ছিল।
এবিষয়ে মহানগর পুলিশের সহকারি পুলিশ কমিশনার (সদর) ইফতে খায়ের আলম বলেন, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাসযাত্রা কখনো আমাদের কাম্য না। সবাই সচেতনতার সঙ্গে চলাফেরা করবে সেটা নিয়ে সতর্কতা অবলম্বন করার জন্য প্রচারণা করি। এজন্য বাস পরিবহণ মালিকদেরও যাত্রীদের সতর্কতা অবলম্বন করার পরামর্শ দিতে হবে। রাজশাহী পুলিশ ও ট্রাফিক বিভাগ সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে জনগণকে নিরাপদভাবে বাসযাত্রা করার জন্য।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ