টাকা নিয়ে মাদক ব্যবসায়ীর গরু ফেরত দিলেন ইউপি চেয়ারম্যান

আপডেট: নভেম্বর ২৩, ২০১৬, ১২:০১ পূর্বাহ্ণ

বদলগাছী প্রতিনিধি



নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার মথুরাপুর গ্রামের ফেরদৌস হোসেন (৪৫) নামে এক ফেন্সিডিল ব্যবসায়ীর বাড়ি থেকে ৪টি গরু ধরে নিয়ে যাওয়ার দুইদিন পর টাকার বিনিমিয়ে ফেরত দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত সোমবার সকালে ফেরদৌস তার প্রতিবেশী বাবু নামের এক ব্যক্তিকে ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে পাঠিয়ে ওই ৪টি গরু ফেরত নিয়ে আসেন।
গতকাল মঙ্গলবার মথুরাপুর গ্রামে গিয়ে জানা যায়, ওই গ্রামের বাসিন্দা ফেরদৌস ফেন্সিডিল ও ইয়াবার ব্যবসা করেন। ফেরদৌসের বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মাদকের মামলা রয়েছে। গত রোববার দুপুরে জয়পুরহাট র‌্যাব ক্যাম্পের কয়েকজন সদস্য ফেন্সিডিলের ক্রেতা সেজে মথুরাপুর গ্রামে আসেন। তাঁরা গ্রামের ত্রিমুহনী সেতুর সড়কের কাছে অবস্থান করছিলেন। ওই পথ দিয়ে আজিজুল ইসলাম (৩৫) নামে একব্যক্তি মাদক ব্যবসায়ী ফেরদৌসের বাড়িতে আসছিলেন। এসময় র‌্যাব সদস্যরা তাকে আটক করে তার কাছে থাকা ৭৫ বোতল ভারতীয় ফেন্সিডিল উদ্ধার করে। র‌্যাবের আসছে এমন খবর পেয়ে ফেরদৌস হোসেন ও তাঁর স্ত্রী বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। ওই ঘটনায় র‌্যাব-৫ জয়পুরহাট ক্যাম্পের পক্ষ থেকে বদলগাছী থানায় মামলা করে। ওই মামলায় আটক পতœীতলা উপজেলার চকভবানী গ্রামের আজিজুল ইসলাম ও পলাতক ফেরদৌসকেও আসামি করা হয়।
প্রত্যক্ষদর্শী ও গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায়, মথুরাপুর গ্রাম থেকে র‌্যাব সদস্যরা চলে যাওয়ার পর মথুরাপুর ইউপির এক নম্বর ওর্য়াডের চৌকিদার আলিম মথুরাপুর ইউপির যুবলীগের র্শীষ নেতাদের নিয়ে ফেরদৌসের বাড়িতে গিয়ে ফেরদৌসের গোয়ালঘর থেকে চারটি গরু নিয়ে যায়। ৪টি গরুই মথুরাপুর ইউপির যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রাসেলের বাড়িতে রাখা হয়। মথুরাপুর ১ নম্বর ওর্য়াড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম গরুগুলো ফেরত আনতে ইউপির চেয়ারম্যান আব্দুর রহমানের কাছে যান। সাইফুল ইসলাম বলেন, ইউপি চেয়ারম্যানের লোকজনেরা আমার কাছে ৬০ হাজার টাকা দাবি করেছিলেন। একারণে গরুগুলো না নিয়েই চলে এসেছি। তিনি আরও বলেন, গত সোমবার সকালে ফেরদৌসের গরুগুলি ফেরত দিয়েছে বলে শুনেছি।
গত সোমবার বেলা এগারোটার সময় ফেরদৌসের প্রতিবেশী বাবু ফেরদৌসের গরু চারটি নিযে আসেন। বাবু বলেন, এই ৪ টি গরু ফেরদৌসের বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে আটকে রাখা হয়েছিল। ইউপি চেয়ারম্যান ৫৪ হাজার টাকা হাতে বুঝে পাওয়ার পর আমাদেরকে গরুগুলি ফেরত দিয়েছে। এই টাকা ফেরদৌস আমাদের দিয়েছিল। মথুরাপুর ইউপি যুবলীগের সভাপতি এশরাক হোসেন বলেন, ফেরদৌস এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। র‌্যাব সদস্যরা র্সোসের মাধ্যমে ফেরদৌসকে পঞ্চাশ হাজার টাকা দিয়েছিল। সেই টাকা নিয়ে ফেরদৌস  ও তার স্ত্রী বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। র্সোসের টাকা খোয়া যাওয়ায় র‌্যাব সদস্যরা ইউপি চেয়ারম্যানের শরণাপন্ন হন।
মথুরাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান গতকাল মঙ্গলবার বিকেল পাঁচটায় মোবাইল ফোনে বলেন, ফেরদৌস র‌্যাব সদস্যদের র্সোসের পঞ্চাশ হাজার নিয়ে বাড়ি থেকে উধাও হয়ে যান। অভিযানে থাকা র‌্যাব সদস্যরা আমার কাছে এসে ঘটনাটি খুলে বলেন। তারা আমার কাছ থেকে ওই টাকা নিয়েছেন। বিনিময়ে তারা আমাকে ফেরদৌসের ৪টি গরু এনে দিয়েছেন। গত সোমবার আমাকে ৫৪ হাজার টাকা দিয়ে  ফেরদৌসের  লোক গরুগুলি ফেরত নিয়ে গেছে।
বদলগাছী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জালাল উদ্দিন বলেন, ফেরদৌস আলমের বাড়ি থেকে ৪ টি গরু ধরে নিয়ে যাওয়ার ঘটনা আমার জানা নেই। তবে র‌্যাব পঁচাত্তর বোতল ফেন্সিডিলসহ একব্যক্তিকে থানায় সোর্পদ্দ করেছে। এঘটনায় র‌্যাবের ডিএডি নায়েব সুবেদার রুহুল আমিন বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। র‌্যাব-৫ জয়পুরহাট ক্যাম্পের ডিএডি রুহুল আমিনের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এখন ব্যস্ত আছি, পরে কথা বলব। ফেরদৌস পলাতক থাকায় তাঁর সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।