টাঙ্গাইলে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১১ || অন্যত্র আরো সাতজন নিহত

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৭, ১২:৫৬ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


টাঙ্গাইলে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ১১ জন নিহত ও চারজন আহত হয়েছেন।
বৃহস্পতিবার বাসাইলে ট্রাক ও মাইক্রোবাসের সংঘর্ষে এবং মধুপুরের বনাঞ্চলের টেলকি এলাকায় বাইক রেস করতে গিয়ে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে।
ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে ট্রাক-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নয় জন নিহত ও সাত জন আহত হয়েছে।
বৃহস্পতিবার দুপুর সোয়া ৩টার দিকে মহাসড়কের টাঙ্গাইলের বাসাইল লিংক রোড এলাকায় দুর্ঘটনা ঘটে।
হাইওয়ে মধুপুর (এলেঙ্গা) ফাঁড়ির ইনচার্জ সার্জেন্ট জাহাঙ্গীর আলম জানান, দুপুরে বাসাইল লিংক রোডে ঢাকামুখী মাইক্রোবাসের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু সেতুমুখী ট্রাকের সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলে মাইক্রোবাসের চার যাত্রী নিহত হন।
এ ঘটনায় উভয় গাড়ির অন্তত ১২ জন আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে এদের মধ্যে পাঁচ জন মারা যায়।
মোটরসাইকেল রেস করতে গিয়ে টাঙ্গাইলের মধুপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই বন্ধু নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার টেলকি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।
মধুপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শফিকুর ইসলাম জানান, দুপুরে ময়মনসিংহ থেকে ফেরার পথে মধুপুরের টেলকি এলাকায় কয়েকজন যুবক মোটরসাইকেল প্রতিযোগিতা করছিল। এ সময় মোটরসাইকেলের চাকা পিছলে সোহাগ নামে এক যুবক ঘটনাস্থলেই নিহত হন। সোহাগ টাঙ্গাইল সদর উপজেলার হাজরাঘাট এলাকার মজুনু মিয়ার ছেলে।
তিনি আরো জানান, এ ঘটনায় গুরুত্বর আহত মোটরসাইকেলের অপর আরোহী হিমেলকে (২৪) প্রথমে টাঙ্গাইল মেডিক্যাল কলেজে নেয়া হয়। সেখানে থেকে ঢাকা নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। হিমেল হাজরাঘাট এলাকার লিয়াকত আলীর ছেলে।
রাজধানীতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪
রাজধানীতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুসহ চার জনের মৃত্যু হয়েছে।
রাজধানীর সবুজবাগে সড়ক দুর্ঘটনায় দু’জন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন। বুধবার দিবাগত রাত রাত ১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তাদেরকে মুমূর্ষু অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
নিহতরা হলেন, রিমন (২৫) ও তার খালাতো বোন সাদিয়া আহমেদ শারিন (২২)। মৃত রিমন-শারিন ঢাকার পৃথক ২টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন।
অন্যদিকে রাজধানীর বনানীতে বাসের ধাক্কায় এম আলাল উদ্দিন (৩০) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৫ টায় বনানী থানার এয়ারপোর্ট রোডের ১১ নং রোড সংলগ্ন ফুটওভার ব্রিজের নিচে এ দুর্ঘটনা ঘটে। আলাল উদ্দিন শেরপুর সদর উপজেলার মৃত তৈমুদ্দিনের ছেলে। তিনি বাংলাদেশ নৌ বাহিনিেিত এল এস পদে নারায়ণগঞ্জে কর্মরত ছিলেন বলে জানা গেছে।
তৃতীয় দুর্ঘটনায় এক শিশু নিহত হয়। যাত্রাবাড়ি এলাকায় ঘুড়ি উড়াতে গিয়ে বাসচাপায় সাইম হাওলাদার নামে নয় বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সাইম পটুয়াখালির দশমিনা উপজেলার মৌ-বাড়িয়া গ্রামের আবু জাফরের ছেলে এবং স্থানীয় একটি স্কুলের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে হানিফ ফ্লাইওভারের ঢালে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
চট্টগ্রামে বৃদ্ধা নিহত
রাস্তা পেরুতে গিয়ে সিএনজি অটোরিকসার ধাক্কায় কুলসুম বেগম (৬৫) নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার বেলা ২ টার দিকে বাঁশখালির পুঁইছড়ি ইউনিয়ন এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। কুলসুম বাঁশখালির শীলকুপ ইউনিয়নের সিদ্দিক আহমেদের স্ত্রী।
কিশোরগঞ্জে সাইকেল আরোহী নিহত
কিশোগঞ্জের কটিয়াদিতে ব্যাটারি চালিত অটোরিকসা চাপায় বকুল মিয়া (৪৫) নামে বাইসাইকেলের এক আরোহী নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে কিশোরগঞ্জ- ভৈরব সড়কের কটিয়াদির মধ্যপাড়ায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। বকুল পাকুন্দিয়া উপজেলার পাটুয়াভাঙ্গা ইউনিয়নের জারিরপাড় গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে।
যশোরে ভান চাপায় শ্রমিকনেতা নিহত
যশোর- বেনাপোল মহাসড়কে কাভার্ডভ্যান চাপায় বাবলুর রহমান কালা নামে এক শ্রমিক নেতা নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় শার্শার নাভারন বাজার এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত বাবলুর মাগুড়ার মিরপাড়া এলাকার মীর সারোয়ােিরর ছেলে। ওাি শ্রমিক নেতা মোটর সাইকেলযোগে বেনাপোল থেকে বাড়ির উদ্দেশে ফিরছিলেন।
তথ্যসূত্র: রাইজিংবিডি, বাংলানিউজ, জাগোনিউজ