টানা বৃষ্টির মধ্যেও বাঘা উৎসব পার্কে মানুষের ঢল

আপডেট: জুলাই ৬, ২০১৭, ১২:৩৮ পূর্বাহ্ণ

আমানুল হক আমান, বাঘা


টানা বৃষ্টির মধ্যেও বাঘা উৎসব পার্কে মানুষের ভিড়ে মুখরিত হয়ে উঠেছে-সোনার দেশ

টানা বৃষ্টির মধ্যেও বাঘা উৎসব পার্কে মানুষের ঢল মেনেছে। হাজার হাজার মানুষের ভিড়ে মুখরিত হয়ে উঠেছে উৎসব পার্ক। উপচেপড়া ভিড় সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে পার্ক কর্তৃপক্ষ। টানা বৃষ্টির মধ্যেও নিরাপত্তার নিশ্চিত করে যাচ্ছে তারা। এবারের ঈদে দর্শনার্থীদের বিনোদনের জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।
রাজশাহীর বিভাগীয় শহর থেকে ৪৯ কিলোমিটার পূর্ব-দক্ষিণ কোনে বাঘা উপজেলার প্রাণকেন্দ্রে উৎসব পার্ক। ১শ বিঘা জমির উপর উৎসব পার্ক ২০১৪ সালে ৩ মার্চ উদ্ধোধন করেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সাংসদ শাহরিয়ার আলম। পার্কে কৃত্রিম দৃষ্টিনন্দন করা হয়েছে বাঘ, সিংহ, হাতি, জেব্রা, জিরাফ, শতাধিক প্রজাতি, বিভিন্ন প্রাণি, সিংহ, ভাল্লুক, হাতি, হরিণ, কুমির, উটপাখি, কেংরি, দোয়েল, ঈগল, পরী, চায়না প্যাডেল বোর্ড, চায়নাঠেটা বোড, নাগর দোলা, ওয়ান্ডার চেয়ার, ট্রেন, বিজেট খেলনা, ফ্লাওয়ার পপ, ওয়াটার গেম। পার্কেও মধ্যে রয়েছে পুকুর ১১টি। এছাড়া রয়েছে বিভিন্ন পশু পাখির ভাস্কর্য, দৃষ্টিনন্দন আম বাগান।
টানা বৃষ্টির মধ্যেও প্রতিদিন পার্কে দর্শনার্থীদের ভিড় লক্ষ্য করার মতো। বিভিন্ন বয়সী নারী-পুরুষ ও শিশুরা স্বজনদের সঙ্গে ঈদ আনন্দ উপভোগ করছেন। ইতোমধ্যে উৎসব পার্কটি বিনোদন কেন্দ্র হিসেবে খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ফলে ঈদের নামাজের পর থেকেই হাজারো দর্শনার্থীর পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে এই পার্ক। পার্কে ঘুরতে এসেছেন অনেক কর্মব্যস্ত মানুষ। সারা বছর কাজের চাপে পরিবার নিয়ে যারা সময় দিতে পারে না। তারা ঈদের নতুন পোশাক পরে পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসছেন।
বাগাতিপাড়া উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসের সুপারভাইজার কামরুল হোসেন পরিবার নিয়ে ঘুরতে এসেছেন। তিনি বলেন, ঈদ উপলক্ষে পরিবার নিয়ে ঘুরতে এসেছি। বেশ ভালো লাগছে। ঈদের আনন্দ আরো বাড়িয়ে দিয়েছে পার্কটি। শিশুদের জন্য বাঘ, সিংহ ছাড়াও প্রজাপতি, পাখি, বিভিন্ন প্রজাতির মাছ, কুমির, বোটে চড়ে হাঁস দেখা, হাতিতে চড়ে আনন্দ উপভোগ করা হয়েছে।
উৎসব পার্কের মালিক ও পরিচালক উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি আজিজুল আলম বলেন, বিনোদন প্রেমী দর্শনার্থীদের সার্বিক নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। তারা অনায়াসে নিরাপত্তার মধ্যে আনন্দ উপভোগ করতে পারছে। ফলে বৃষ্টির দিনেও মানুষের উপস্থিত লক্ষনীয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ