টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ : রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে আজ রাতে মুখোমুখি ভারত-পাকিস্তান

আপডেট: জুন ৯, ২০২৪, ১:০৭ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :


বিশ্ব ক্রিকেটের দুই হেভিওয়েট চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দেশ ভারত-পাকিস্তানের মহারণ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আজ (রোববার) রাতে। ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপনও বলা যেতে পারে দুই দলের এই লড়াইকে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাকিস্তান শুরুটা করেছে হোঁচট খেয়ে, তাই প্রতিপক্ষ যেই থাকুক তাদের জয় ভিন্ন অন্য কিছু ভাবার সুযোগ নেই। অন্যদিকে, প্রথম ম্যাচে জয় পাওয়া ভারত রোমাঞ্চকর এই লড়াইয়েও অবশ্যই অপরাজেয় থাকার লক্ষ্যে নামবে।

নিউইয়র্কের নাসাউ কাউন্টি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৮টায় শুরু হবে ম্যাচটি। সীমান্তের উত্তেজনা ও রাজনৈতিক বৈরিতার কারণে ভারত-পাকিস্তান প্রায় ১৭ বছর দ্বিপাক্ষিক কোনো সিরিজে মুখোমুখি হচ্ছে না। ফলে এমন মর্যাদাপূর্ণ লড়াই দেখতে ক্রিকেটবিশ্বকে অপেক্ষা করতে হয় আইসিসি কিংবা এশিয়ান ক্রিকেটের কোনো মেগা আসরের দিকে। যুক্তরাষ্ট্র ও ওয়েস্ট ইন্ডিজে চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সেই সুযোগটি করে দিয়েছে।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম আসরের দুই ফাইনালিস্টের লড়াই দেখতে মুখিয়ে আছেন কিংবদন্তি ক্রিকেটার, বিশ্লেষক থেকে শুরু করে সবাই। যে অপেক্ষা বিশ্বকাপের সূচি ঘোষণার পর থেকেই শুরু। এমন ইতিহাস, গৌরব ও মর্যাদার ম্যাচে শেষ পর্যন্ত যেই জিতুক; জয়টা যে আসলে ক্রিকেটেরই হয়। যদিও দুই দলের শক্তিমত্তায় বর্তমানে বেশ ফারাক। ভারত আমেরিকান মাটিতে পা রেখেছে টুর্নামেন্ট অন্যতম ফেবারিট হিসেবে, অন্যদিকে আনপ্রেডিক্টেবল পাকিস্তানকে ধরা হচ্ছে ডার্ক হর্স হিসেবে।

 

দুই দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে পাকিস্তানের আধিপত্য থাকলেও, বড় টুর্নামেন্টে বাবর আজমদের কাছে ভারত একটি জুজুর নাম। সংক্ষিপ্ত সংস্করণের প্রথম মেগা আসরে তারা শিরোপা খুইয়েছিল রোহিত শর্মাদের কাছে। যদিও ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির পর ২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতকে হারিয়েছিল পাকিস্তান। তবে ২০২২ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপে জয় গেছে ভারতীয়দের পকেটে। সর্বশেষ এশিয়া কাপে গ্রুপপর্বে পাকিস্তান জিতলেও, সুপার ফোরে জিতে ভারত ফাইনাল খেলে। এরপর শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে রোহিত-কোহলিদের হাতে এশিয়াসেরার মুকুটও ওঠে।

২০১১ ওয়ানডে বিশ্বকাপে ভারতের কোচ ছিলেন গ্যারি কারস্টেন। তার অধীনেই এবার ভারতের বিপক্ষে খেলতে নামছেন বাবররা। আজকের ম্যাচের পরিকল্পনা জানিয়ে কারস্টেন জানান, ‘এটা বড় ম্যাচ যে সেটা অস্বীকার করার কিছু নেই। তবে ক্রিকেটকে ক্রিকেটের মতোই দেখা উচিৎ। প্রতিটি খেলায় আপনাকে সেরাটা দিতে হবে। সঠিক জায়গায় বল মারতে হবে, যথেষ্ট রান করতে হবে ও ক্যাচ নিতে হবে। আমরা অবশ্যই আগামীকাল সেটাই করার চেষ্টা করব, যদি আমরা আমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী খেলি, তাহলে আমাদের ম্যাচ জেতার ভালো সুযোগ রয়েছে।’

যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হারের ধাক্কা সামলে নতুন উদ্যমে খেলার প্রত্যাশা পাকিস্তান কোচের, ‘দু’দিন আগে যা হয়েছে, সেটা আমরা ভুলে গেছি। কোনো ম্যাচ হারা অবশ্যই ভালো বিষয় নয়। আমার মনে হয়ে এখন আর দলের কাউকেই আলাদাভাবে অনুপ্রেরণা দিতে হবে না। আমরা চাই ব্যক্তিগত নৈপুণ্যেও ক্রিকেটাররা জ্বলে উঠুক, তবে এই ম্যাচটিকে অন্য সব ম্যাচের মতো দেখছি আমরা, আলাদাভাবে কোনো চাপ নিতে চাই না, এখানে পিচ মূলত বোলিং সহায়ক।’

পাকিস্তানের বিপক্ষে নামার আগে প্রতিপক্ষ কে ভাবছেন না বলে জানান ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত শর্মা, ‘ভালো ক্রিকেট খেলাটা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিপক্ষ বা পিচের দিকে মন না দিয়ে, নিজেদের খেলায় মনোযোগ দেওয়া জরুরি। পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচের ক্ষেত্রে কিছুই বদলায়নি।

সাত মাস আগে এশিয়া কাপ এবং বিশ্বকাপে আমরা ওদের বিপক্ষে খেলেছি। কঠিন সময়েও আমরা সফল হয়েছি। আমি ম্যাচ জেতার জন্য কখনও একজন ব্যক্তির ওপর নির্ভর করতে চাই না। সবাইকে নিজের ভূমিকা পালন করতে হবে।’

পাকিস্তান প্রথম ম্যাচে আমেরিকানদের কাছে হারলেও, সেটিকে বড় করে দেখছেন না রোহিত, ‘আমরা ওদের (পাকিস্তান) বিপক্ষে সাম্প্রতিক অতীতে বেশ কিছু ম্যাচ খেলেছি। তবে আগে প্রতি চার বছর পর একটি করে খেলা হতো। যাইহোক এই ম্যাচে খুব বেশি আগে থেকে চিন্তা করা যায় না।

প্রতি ওভারে খেলার রঙ বদলাতে থাকে। গত বিশ্বকাপে জিম্বাবুয়ের কাছে হেরে গেলেও, ফাইনালে উঠেছিল পাকিস্তান। এটি এমন এক আলাদা ফরম্যাট, যেখানে নির্দিষ্ট দিনে কে কীভাবে খেলছে, সেটা গুরুত্বপূর্ণ হয়। ওরা অবশ্যই দেখবে, কোথায় ওদের সমস্যা হচ্ছে।’- ঢাকা পোস্ট

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Exit mobile version