টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের উন্নতি

আপডেট: মে ৪, ২০২২, ৮:৪৮ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


আফগানিস্তানকে পেছনে ফেলে আইসিসি টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে অষ্টম স্থানে উঠে এসেছে বাংলাদেশ। র‌্যাঙ্কিংয়ের বার্ষিক হালনাগাদে বাংলাদেশ এগিয়েছে একধাপ। টেস্টে আগের মতোই নবম ও ওয়ানডেতে সপ্তম স্থানে রয়েছে তারা।
আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ের বার্ষিক হালনাগাদ প্রকাশ করা হয় বুধবার। তিন সংস্করণে শীর্ষ স্থানে কোনো পরিবর্তন আসেনি। টেস্টে আগের মতোই অস্ট্রেলিয়া, ওয়ানডেতে নিউ জিল্যান্ড ও টি-টোয়েন্টিতে ভারত শীর্ষে আছে।
র‌্যাঙ্কিং হালনাগাদের ক্ষেত্রে ২০১৯ সালের মে থেকে দলগুলোর সব পারফরম্যান্স বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে। হিসেবের বাইরে চলে গেছে ২০১৮-১৯ মৌসুমের পারফরম্যান্স।
২০২১ সালের মে থেকে দলগুলোর পারফরম্যান্স বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে শতভাগ। আগের দুই বছরের পারফরম্যান্স বিবেচনায় এসেছে ৫০ ভাগ করে।
বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টিতে এখনও পায়ের নিচে মাটি খুঁজছে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভরাডুবির পর দেশের মাটিতে হোয়াইটওয়াশড হয় পাকিস্তানের বিপক্ষে। আফগানিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের সবশেষ সিরিজ ১-১ ব্যবধানে ড্র করে মাহমুদউল্লাহর দল।
বিশ্বকাপের আগে দেশের মাটিতে স্পিন মঞ্চ সাজিয়ে অস্ট্রেলিয়া (৪-১) ও নিউ জিল্যান্ডের (৩-২) বিপক্ষে সিরিজ জেতে বাংলাদেশ। এর আগে জিম্বাবুয়েতে সিরিজ জেতে ২-১ ব্যবধানে। এই জয়গুলো র‌্যাঙ্কিংয়ে উন্নতিতে বড় ভূমিকা রেখেছে।
দুই রেটিং পয়েন্ট বেড়ে বাংলাদেশের নতুন রেটিং এখন ২৩৩। আফগানিস্তান এই সময় ৬ রেটিং পয়েন্ট হারিয়েছে। ২২৬ রেটিং নিয়ে দুই ধাপ পিছিয়ে দশ নম্বরে নেমে গেছে দলটি। এক ধাপ এগিয়ে নবম স্থানে উঠেছে শ্রীলঙ্কা, তাদের পয়েন্ট ২৩০।
শীর্ষস্থান ধরে রাখা ভারতের রেটিং পয়েন্ট আগের মতোই ২৭০। তবে দুইয়ে থাকা ইংল্যান্ডের চেয়ে ৫ পয়েন্ট এগিয়ে দলটি, ইংলিশরা চার পয়েন্ট হারিয়েছে (২৬৫)। তিন পয়েন্ট হারিয়েছে তৃতীয় স্থানে থাকা পাকিস্তান (২৬১)।
নিউ জিল্যান্ডকে পেছনে ফেলেছে দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া। ২৫০ পয়েন্ট নিয়ে কেন উইলিয়ামসনের দল রয়েছে ষষ্ঠ স্থানে। ২৫৩ পয়েন্ট নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা চতুর্থ এবং ২৫১ পয়েন্ট নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার অবস্থান পঞ্চম।
২৪০ পয়েন্ট নিয়ে বাংলাদেশের এক ধাপ ওপরে সপ্তম স্থানে রয়েছে দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ।
টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে থাকা অস্ট্রেলিয়া দ্বিতীয় স্থানে থাকা ভারতের সঙ্গে পয়েন্টের ব্যবধান এক থেকে বাড়িয়ে নয়ে নিয়ে গেছে। জানুয়ারিতে ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডকে ৪-০ তে সিরিজ হারানো অস্ট্রেলিয়ার বর্তমান পয়েন্ট ১২৮, যা আগে ছিল ১১৯। এক পয়েন্ট বেড়ে ভারতের এখন ১১৯ পয়েন্ট।
বাজে সময় কাটানো ইংল্যান্ড ৯ পয়েন্ট হারিয়েছে, র‌্যাঙ্কিংয়েও পাঁচ থেকে নেমে গেছে ছয়ে। দলটির পয়েন্ট এখন ৮৮, ১৯৯৫ সালের পর যা তাদের সর্বনিম্ন।
তৃতীয় স্থানে থাকা নিউজিল্যান্ড (১১১) চার পয়েন্ট হারিয়েছে। চতুর্থ স্থানে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকা (১১০) এখন তাদের চেয়ে মাত্র এক পয়েন্ট পিছিয়ে। ৯৩ রেটিং নিয়ে পঞ্চম স্থানে পাকিস্তান।
টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ের পরের চারটি স্থানে কোনো পরিবর্তন আসেনি। আগের মতোই সপ্তম স্থানে শ্রীলঙ্কা (৮১), অষ্টম স্থানে ওয়েস্ট ইন্ডিজ (৭৭), নবম স্থানে বাংলাদেশ (৫১) ও দশম স্থানে জিম্বাবুয়ে (২৫)।
আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ড র‌্যাঙ্কিংয়ে নেই। র‌্যাঙ্কিংয়ে আসার মতো পর্যাপ্ত টেস্ট খেলার সুযোগ পায়নি তারা।
ওয়ানডেতে নিউ জিল্যান্ড শীর্ষস্থান ধরে রাখলেও দ্বিতীয় স্থানে থাকা ইংল্যান্ড পয়েন্টের ব্যবধান একে নামিয়ে এনেছে। তিন পয়েন্ট বেড়ে নিউ জিল্যান্ডের নতুন পয়েন্ট ১২৫, ইংল্যান্ডের পয়েন্ট বেড়েছে ৫।
১০৭ পয়েন্ট নিয়ে তিনে অস্ট্রেলিয়া, ২ পয়েন্ট কম নিয়ে চারে ভারত। তাদের পরের দুই অবস্থানে পাকিস্তান (১০২) ও দক্ষিণ আফ্রিকা (৯৯)।
সপ্তম স্থান ধরে রাখা বাংলাদেশের দুই রেটিং বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯৫। তাদের পরের তিনটি স্থানে শ্রীলঙ্কা (৮৭), ওয়েস্ট ইন্ডিজ (৭৩) ও আফগানিস্তান (৬৬)।
তথ্যসূত্র: বিডিনিউজ