টেনিস কমপ্লেক্সে প্রতিবাদের পর আজীবন সদস্য হলেন লিটন

আপডেট: জুন ১৭, ২০১৭, ১২:৫৪ পূর্বাহ্ণ

ক্রীড়া প্রতিবেদক


জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্সের বার্ষিক সাধারণ সভায় প্রতিবাদের পর সম্মানিত আজীবন সদস্য হলেন সাবেক সিটি মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।
গতকাল শুক্রবার কমপ্লেক্সের পিংক ক্যাসিয়া হল রুমে সাধারণ সভায় আরো দুইজনকে সম্মানিত আজীবন সদস্য করা হয়েছে। এরা হলেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম ও সাংসদ ফজলে হোসেন বাদশা। এই দুজনের নাম আগে থেকেই বর্তমান টেনিস কমপ্লেক্সের নির্বাহী কমিটির সভায় অনুমোদন করে তা সাধারণ সভায় প্রস্তাব করা হয়েছিল। কিন্তু শাহরিয়ার আলম ও ফজলে হোসেন বাদশার সদস্য পদ নিয়ে কোন আপত্তি ছিল না সাধারণ সদস্যদের পক্ষ থেকে। তবে সাধারণ সদস্যদের দাবি ছিল এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন টেনিস কমপ্লেক্সের জন্য অনেক অবদান রয়েছে। কিন্তু তাকে কেন সদস্য পদ দেয়া হচ্ছে না। সাধারণ সদস্য এহেসানুল হুদার প্রশ্নের জবাবে সাধারণ সম্পাদক আক্কাস আলী সভায় বলেছিলেন ‘তার কোন অবদান নেই’। এই নিয়ে আক্কাস আলীর বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে সাধারণ সদস্যদের তোপের মুখে পড়ে এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকে সম্মানিত আজীবন সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।
এ ব্যাপারে জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্সের সাধারণ সম্পাদক আক্কাস আলী বলেন, শাহরিয়ার আলম ও ফজলে হোসেন বাদশা যেভাবে নিয়মিত টেনিস কমপ্লেক্সে অবদান রেখে চলেছেন। সেভাবে খায়রুজ্জামান লিটনের অবদান নেই। তবে খায়রুজ্জামান লিটন মেয়র থাকাকালীন টেনিস কমপ্লেক্সে বিভিন্ন অবদান রেখেছিলেন। এহেসানুল হুদার প্রশ্নের জবাবে এভাবে বলতে চেয়েছিলাম। কিন্তু তারা অন্যভাবে বিষয়টি নিয়েছে।
তিনি আরও বলেন, শাহরিয়ার আলম ও ফজলে হোসেন বাদশার নামটি নির্বাহী কমিটির সভায় অনুমোদন নিয়ে সাধারণ সভায় প্রস্তাব রাখা হয়েছিল। আর আগে খায়রুজ্জামান লিটনের নির্বাহী কমিটির সভায় অনুমোদন করা হয়নি। তবে পরবর্তী নির্বাহী কমিটির সভায় লিটনের সদস্য পদটি অনুমোদন করে নেয়া হবে।