ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে শিশু সন্তানসহ মায়ের ‘আত্মহত্যা’

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২২, ৯:৫১ অপরাহ্ণ

নওগাঁ ও বগুড়া প্রতিনিধি:


বগুড়ার আদমদীঘিতে ট্রেনে কাটা পড়ে মরিয়ম বেগম (২৮) ও ছয় বছরের শিশু নুরজাহান মৃত্তিকার মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে নওগাঁর রাণীনগর স্টেশনের হোম সিগন্যালের পাশে বগুড়ার আদমদীঘির ডাঙ্গাপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য খলিল প্রামাণিক বলছেন, দাম্পত্য কলহে ওই গৃহবধু শিশু সন্তানসহ আত্মহত্যা করেছেন। তবে সান্তাহার রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাকিউল ইসলাম জানান, তদন্ত ছাড়াই এ ব্যাপারে মন্তব্য করা সম্ভব নয়। মরদেহ উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে বলে জানান তিনি।

নওগাঁর রানীনগর উপজেলার কাশিমপুর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য খলিল প্রামাণিক ও স্থানীয়রা জানান, নিহত মরিয়ম বেগম বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার প্রাণনাথপুর গ্রামের ভ্যান চালক নাঈম হোসেনের স্ত্রী। নুরজাহান মৃত্তিকা তাদের একমাত্র সন্তান। নাঈম হোসেন ২০১৫ সালের শেষের দিকে নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার এনায়েতপুর গ্রামের মরিয়ম বেগমকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকেই ওই দম্পতির মধ্যে বিরোধ চলে আসছে।

এ নিয়ে রানীনগর উপজেলার কাশিমপুর ইউনিয়নের বেশ কয়েকবার শালিস বসে। বুধবার রাতে নাঈম ও মরিয়ম বেগমের মধ্যে আবারও ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে নাঈম স্ত্রী মরিয়মকে মারধর করেন। এতে মরিয়ম বেগম প্রচন্ড কষ্ট পান। বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে মরিয়ম তার মেয়ে মৃত্তিকাকে সাথে নিয়ে আধা কিলোমিটার দূরে নওগাঁর রাণীনগর রেলস্টেশনে উত্তরে হোম সিগন্যালের পাশে আদমদীঘি উপজেলার ডাঙ্গাপাড়ায় যান। এ সময় তিনি মেয়েকে নিয়ে ঢাকা ছেড়ে আসা কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেসের নিচে ঝাঁপিয়ে পড়েন। ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়।

সান্তাহার রেলওয়ে স্টেশন থানার এসআই নরেশ জানান, দাম্পত্য কলহে শিশুসহ গৃহবধু ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। নিহত মা ও মেয়ের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাশের নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে রাণীনগর স্টেশন মাস্টার আতাউল হক খান জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকাগামী কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনে কাটা পড়ে মা ও মেয়ের মৃত্যু হয়েছে।