ঢাকা পর্বে ছিল দেশিদের দাপট

আপডেট: নভেম্বর ১৫, ২০১৬, ১১:৪৫ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক
অনেক জল্পনা কল্পনা শেষ করেই মাঠে গড়িয়েছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) এর চতুর্থ আসর। নির্ধারিত ৪ নভেম্বর শুরু হলেও বৃষ্টি বিঘিœত হওয়ায় আবার নতুন করে ৮ নভেম্বর শুরু হয় ধুম ধারক্কা ক্রিকেট। সোমবার ঢাকা পর্ব শেষ করে চট্টগ্রাম পর্ব শুরু হবে আগামী ১৭ নভেম্বর। আর ঢাকার এই পর্বেই ছিল দেশিদের দাপট। আশার গান শুনিয়ে ব্যাটে-বলে স্টেডিয়াম মাতিয়েছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। এবার পরিসংখ্যানের আলোয় ঢাকা পর্বের চিত্র পাঠকদের সামনে তুলে ধরা হলো-
ব্যাটে-বলে দেশিদের দাপট : সর্বাধিক রানের তালিকার শীর্ষ পাঁচটি স্থানই বাংলাদেশ ব্যাটসম্যানদের দখলে। শীর্ষে আছেন বরিশাল বুলসের ১৮৪ রান করা শাহরিয়ার নাফিস। এরপরে অবস্থান করা তার অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের রান ১৭৪, ঢাকা ডায়নামাইটসের ওপেনার মেহেদি মারুফ ১৭০ রান করে রয়েছেন তৃতীয় স্থানে। আর রাজশাহী কিংসের সাব্বির রহমান ১৫৭ রান করে চতুর্থ ও চিটাগং ভাইকিংসের তামিম ইকবাল ১৪৩ রান করে আছেন পঞ্চম স্থানে।
বোলিংয়েও বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে দাপট দেখিয়েছেন দুই পেসার খুলনা টাইটানসের শফিউল ইসলাম ও ঢাকা ডায়নামাইটসের মো. শহীদ। তারা যৌথভাবে আটটি করে উইকেট নিয়ে আছেন তালিকার শীর্ষে।
এরপরে থাকা পাকিস্তানি তারকা শহীদ আফ্রিদি ও আফগান অলরাউন্ডার মো. নবি নিয়েছেন সাতটি করে উইকেট।
ছক্কা মারার শীর্ষে মেহেদি মারুফ : ধুম ধারাক্কার এই ক্রিকেটে ছক্কা মারার শীর্ষে রয়েছেন দেশি তারকা মেহেদি মারুফ। ঢাকা ডায়নামাইটসের মেহেদি মারুফের বিগ হিটের ক্ষমতা ছাড়িয়ে গেছে বাকি সবাইকে। চার ম্যাচে তিনি হাঁকিয়েছেন মোট ১০টি ছক্কা। বিপিএল-এ ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের মালিক সাব্বির রহমানের ভা-ারে আছে নয়টি ও বরিশাল বুলসের ওপেনার ডেভিড মালানের ঝুলিতে আছে আটটি ছক্কা।
২০০% স্ট্রাইক রেট সাব্বিরের : ছক্কার শীর্ষে থাকতে না পারলেও স্ট্রাইক রেটের শীর্ষে রয়েছেন সাব্বির রহমান। এবারের আসরে ২০০% স্ট্রাইক রেট সাব্বিরের। বরিশাল বুলসের বিপক্ষে সাব্বির রহমানের ৬১ বলে ১২২ রানের ইনিংস টি-টোয়েন্টি রেকর্ড বুকে অনন্য এক ইনিংস বলেই বিবেচিত হবে। কারণ সর্বোচ্চ রানের ক্ষেত্রে ছাড়িয়ে গেছেন গেইলকে। ৯টি চারে ৩৬ ও ৯টি ছক্কায় ৫৪ রানসহ মোট ৯০ রান করেন তিনি ১৮টি বলে। বাকি ৪৩ বলে তার রানের সংখ্যা ৩২। আর ২০০% শতাংশ স্ট্রাইক রেটের ছোট ইনিংস অনেক দেখা গেলেও সেঞ্চুরি বিরল।
মাহমুদউল্লাহ ভেলকি : খুলনা টাইটানস অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ চার ম্যাচের তিনটিতে বল করেছেন, বাকি একটিতে করেননি। সেই তিনটি ম্যাচে মোট বল করেছেন সাত ওভার আর ৫৮ রানে নিয়েছেন মোট ছয়টি উইকেট। রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে শেষ ওভারে দলের ছয় রান রক্ষা করতে নেমে তিনি তিন রানে নেন তিন উইকেট। আর চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে আবারও শেষ ওভারে ছয় রান রক্ষা করতে গিয়ে দুই রানে তিনটি উইকেটর পতন ঘটান জাতীয় দলের অন্যতম এই ভরসা। তার নৈপুণ্যেই দুটি নিশ্চিত হারের মুখ থেকে বেরিয়ে এসে জয়ের স্বাদ নেয় এবারের নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজি খুলনা টাইটানস।-বাংলা ট্রিবিউন