তথ্য না দেয়ায় প্রধান শিক্ষককে জরিমানা

আপডেট: জুলাই ৬, ২০১৭, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


তথ্য অধিকার আইনে তথ্য না দেয়ায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন প্রধান শিক্ষককে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেছে তথ্য কমিশন।
ঢাকার আগারগাঁওয়ে কমিশন কার্যালয়ে বুধবার শুনানি শেষে বরগুনার ১৪ নম্বর পূর্ব গুদিঘাটা নূরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল হোসেনকে জরিমানা করা হয়।
কমিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২০০৭ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত গুদিঘাটা নূরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উপবৃত্তি ও পরিচালনা পর্যদ সংক্রান্ত তথ্য চেয়ে বরগুনা সদরের সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে আবেদন করেন আবুল হাসান বেল্লাল নামে এক ব্যক্তি।
এরপর শিক্ষা কর্মকর্তা সেসব তথ্য দিতে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে নির্দেশ দেন। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তথ্য না দেয়ায় পরে কৈফিয়ত চেয়ে আবারও তথ্য দিতে নির্দেশ দেন শিক্ষা কর্মকর্তা।
তথ্য না পেয়ে আবেদনকারী আপিল করেন। তাতেও তথ্য না পেয়ে তিনি তথ্য কমিশনে অভিযোগ করেন। এর ধারাবাহিকতায় কমিশন উভয়পক্ষের উপস্থিতিতে শুনানি করে প্রধান শিক্ষককে জরিমানা করে বলে জানানো হয় সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে।
সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও সংবিধিবদ্ধ সংস্থা এবং সরকারি ও বিদেশি অর্থায়নে পরিচালিত বেসরকারি সংস্থার স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করে দুর্নীতির সুযোগ কমিয়ে সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ২০০৯ সালে সরকার তথ্য অধিকার আইন করে।
এর আওতায় নির্দিষ্ট ফরম পূরণ করে নির্ধারিত কর্মকর্তার মাধ্যমে তথ্য চাইতে পারেন যে কোনো নাগরিক। আর প্রযোজ্য ক্ষেত্রে তথ্য না দিলে তথ্য কমিশন প্রতিদিন বিলম্বের জন্য ৫০ টাকা করে সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করতে পারে।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বুধবার তথ্য কমিশনে নয়টি অভিযোগের শুনানি করে সাতটির নিষ্পত্তি এবং দুটির ক্ষেত্রে শুনানির পরবর্তী তারিখ ঠিক করে দেয়া হয়।
প্রধান তথ্য কমিশনার অধ্যাপক মো. গোলাম রহমান এবং তথ্য কমিশনার নেপাল চন্দ্র সরকার ও অধ্যাপিকা খুরশীদা বেগম সাঈদ শুনানিতে অংশ নেন।
তথ্যসূত্র: বিডিনিউজ