তবু অনেক প্রাপ্তি বাংলাদেশের

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৭, ১২:২৪ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


সিরিজের শুরুর সঙ্গে শেষের কোনও মিলও নেই। শুরু হয়েছিল ২০ রানের অবিস্মরণীয় জয় দিয়ে। শেষটা ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ৭ উইকেটের হতাশার হারে। অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশের অবিশ্বাস্য কীর্তি গড়া না হলেও দুই টেস্টের সিরিজে বাংলাদেশের প্রাপ্তি কম নয়।
কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে সিরিজ শুরুর আগে আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে বলেছিলেন, অস্ট্রেলিয়াকে দুই ম্যাচেই হারানো সম্ভব। গুরুর মন্ত্রে উজ্জীবিত শিষ্যরাও টাইগারভক্তদের মনে জ্বেলেছিলেন আশার প্রদীপ। ঢাকার সাফল্য অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশের স্বপ্ন দেখিয়েছিল স্বাগতিকদের। চট্টগ্রামে হতাশাজনক ব্যাটিংয়ে স্বপ্নটা পূরণ হয় নি। তবে বাংলাদেশের কৃতিত্বকে খাটো করে দেখার অবকাশ নেই।
টেস্ট অঙ্গনে প্রায় দেড় যুগ কাটিয়ে দিলেও পাঁচ দিনের ক্রিকেটে খেলার তেমন সুযোগই পায় না টাইগাররা। চট্টগ্রামে ১০২তম টেস্ট খেলা বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হলো ষষ্ঠবারের মতো। ক্রিকেটের সবচেয়ে সফল দলের সঙ্গেই সবচেয়ে কম টেস্ট খেলেছে টাইগাররা। এবার তো টেস্ট খেললো দীর্ঘ ১১ বছর পর! আগের দুই সিরিজের চার টেস্টেই অস্ট্রেলিয়া জিতেছিল হেসেখেলে, ইনিংস ব্যবধানে। শুধু ২০০৬ সালে ফতুল্লায় জয়ের সুবাস পেয়েও বাংলাদেশ হার মেনেছিল ৩ উইকেটে।
সেদিনের বাংলাদেশের সঙ্গে আজকের বাংলাদেশের বিস্তর ফারাক। তখন লড়াই করার আশাবাদ জানিয়ে টেস্ট ম্যাচ পঞ্চম দিনে নিতে পারলেই সন্তুষ্ট থাকতো। কিন্তু এখন শুধু জয়ের প্রত্যয় নয়, জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে টাইগাররা। ইংল্যান্ড-শ্রীলঙ্কার পর অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টেস্ট ক্রিকেটেও উঠে আসার বার্তা ছড়িয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ।
ওয়ানডেতে শক্তিশালী দলের সম্মান পেলেও টেস্টে টাইগারদের সামর্থ্য নিয়ে ক্রিকেট দুনিয়ার অনেকেই সন্দিহান ছিল। তবে ইংল্যান্ড আর অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে টেস্ট সিরিজ ড্রয়ের পর তাদের মনোভাব পাল্টাতে বাধ্য। অস্ট্রেলিয়ার মতো দলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে লড়াই করা সহজ নয়। কিন্তু বাংলাদেশ কঠিন কাজটিই করেছে অনায়াসে। প্রথম টেস্টে সাকিব-তামিম-মুশফিক-মিরাজদের দুর্দান্ত পারফরম্যান্স গড়ে দিয়েছিল জয়ের ভিত। চট্টগ্রামেও প্রথম তিন দিন দারুণ লড়াই করেছে স্বাগতিকরা। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং ব্যর্থতায় সিরিজ জয়ের সম্ভাবনা শেষ হলেও মনখারাপের কিছু নেই। টেস্ট ক্রিকেটের সবচেয়ে সফল দলের সঙ্গে সিরিজ ড্র করাও অনেক বড় সাফল্য।
অস্ট্রেলিয়া সিরিজ শেষ, এবার দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের চ্যালেঞ্জ। দুটি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে ও দুটি টি-টোয়েন্টি খেলতে কয়েক দিনের মধ্যে দেশ ছাড়বে টাইগাররা। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে লড়াইয়ের আত্মবিশ্বাস নিয়েই দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে পা রাখবে বাংলাদেশ দল। হার-জিত পরে, প্রোটিয়াদের বিপক্ষে টাইগারভক্তদের প্রত্যাশার সীমানায় প্রথম শব্দটি হলো ‘লড়াই’। গত কয়েক বছরে বাংলাদেশ যেভাবে পরিপূর্ণ দল হয়ে উঠেছে, তাতে দক্ষিণ আফ্রিকাতেও ভালো পারফরম্যান্সের আশা করাই যায়।-বাংলা ট্রিবিউন