তানোরে অর্থের বিনিময়ে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ

আপডেট: মে ২১, ২০২৪, ৯:০১ অপরাহ্ণ


তানোর প্রতিনিধি:


রাজশাহীর তানোরে অর্থের বিনিময়ে অবৈধ মটরে পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ দেবার অভিযোগ উঠেছে।
স্থানীয়রা জানান, উপজেলার কামার গাঁ ইউনিয়নের (ইউপি) চকপ্রভুরাম গ্রামের ফেলু মন্ডলের পুত্র এরশাদ আলী চকপ্রভুরাম মাঠে সেচ নীতিমালা লঙ্ঘন করে বিএমডিএ’র গভীর নলকূপের কমান্ড এরিয়ায় ৫ হর্স পাওয়ারের অবৈধ সেচ মটর স্থাপন করেছেন।

এদিকে পল্লী বিদ্যুতের কতিপয় কর্মকর্তা ও কথিত লাইনম্যান এবং টেকনিশিয়ান বুলবুলের মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা ঘুষ নিয়ে অবৈধ মটরে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়েছে।উপর দিকে আব্দুল কাদেরের পুত্র মিজান হাপানিয়া

মাঠে আবারও সেচ নীতিমালা লঙ্ঘন করে একটি বাড়ি থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে বিএমডিএ’র গভীর নলকূপের কমান্ড এরিয়ায় ৫ হর্স পাওয়ারের অবৈধ সেচ মটর স্থাপন করেছেন। আবার টেকনিশিয়ান বুলবুল মিটার সংযোগ দেওয়ার নাম করে কৃষ্ণপুর গ্রামের ময়েজ উদ্দিন পুত্র আয়েস আলী কাছ থেকে বিশ হাজার টাকা ঘুষ নিয়ে বিদ্যুৎ সংযোগ দেন।
এ বিষয়ে টেকনিশিয়ান বুলবুল বলেন, বিদ্যুৎ দেয়ার মালিক আমি না, বিদ্যুৎ দেয়ার মালিক পল্লী বিদ্যুৎ অফিস। অফিস আমাকে যেখানে যেতে বলে আমি সেখানে যায়।

সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়, বিগত ২০১৪ সালে কৃষি মন্ত্রণালয় পরিপত্র জারি করেন। পরিপত্রে বলা হয় বরেন্দ্র অঞ্চলে ভূগর্ভস্থ পানির সংকট মোকাবেলায় সেচ মটর স্থাপন নিরুৎসাহিত (বন্ধ) করে তা বাস্তবায়নের জন্য সংশ্লিষ্ট উপজেলা সেচ কমিটিকে কঠোর নির্দেশনা দেয়া হয়। অথচ ১২মে রোববার সেই নির্দেশনা লঙ্ঘন করে অবৈধ সেচ মটর স্থাপন করা হয়েছে।আবার সেই মটরে পল্লী বিদ্যুৎ থেকে সংযোগ দেয়া হয়েছে।

এবিষয়ে উপজেলা সেচ কমিটির এক সদস্য বলেন, যেখানে মটর বসানোর সুযোগ নেই। সেখানে মটরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয় কিভাবে? এবিষয়ে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের সাবের আলী বলেন, পল্লী বিদ্যুতের পরামর্শে তারা মটর স্থাপন ও বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়েছেন, এখানে অনিয়মের কিছু নেই।

এবিষয়ে বিএমডিএ তানোর জোনের সহকারী প্রকৌশলী জামিলুর রহমান বলেন, গভীর নলকূপের কমান্ড এরিয়ায় সেচ মটর স্থাপনের কোনো সুযোগ নেই। বিদ্যুৎ সংযোগের তো প্রশ্নই উঠেনা। তিনি বলেন, অবৈধ মটরের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে পল্লী বিদ্যুৎকে বলা হয়েছে।

অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার বিষয়ে তানোর পল্লী বিদ্যুৎ কর্মকর্তা (এজিএম) কামাল হোসেন বলেন, এসব বিষয়ে ডিজিএম স্যার ভাল বলতে পারবেন। আমি কিছুই জানি না।
এবিষয়ে পল্লী বিদ্যুৎ তানোরের ডিজিএম জহুরুল ইসলাম বলেন, লোকমুখে শুনেছি। লিখিত অভিযোগ পাই নাই। অভিযোগ পেলে বুলবুলের বিরুদ্ধে প্রশাসনিকভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Exit mobile version