তানোরে আগ্রহ বাড়ছে কুড়ি কচু চাষে

আপডেট: এপ্রিল ২৯, ২০১৭, ১২:২২ পূর্বাহ্ণ

লুৎফর রহমান, তানোর


তানোরে চাষ হওয়া কুড়ি কচু- সোনার দেশ

রাজশাহী তানোরে কুড়ি কচু চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে চাষিরা। উৎপাদন খরচ ও পানি কম লাগার পাশাপাশি লাভ বেশি হওয়ার কারণে গত কয়েক বছরে এ উপজেলায় কচুর আবাদ বেড়েছে।
উপজেলার কৃষি সম্প্রাসরণ অফিসের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৬ সালে এ উপজেলায় ১২৫ হেক্টর জমিতে কচু চাষ হয়েছিল। এ মৌসুমে তার চেয়ে আরো ৭৫ হেক্টর বেশি জমিতে কচু চাষ হয়েছে। এ মৌসুমে উপজেলায় ২শ হেক্টর জমিতে কচু চাষ হয়েছে।
ধানসহ অন্য ফসলের লাভের চেয়ে উৎপাদন খরচ বেশি পরে। আর কচু চাষে খরচ কম, ফলনও ভালো। সম্প্রতি সময়ে বাজারে এর দামও ভালো। মৌখিক, মান, জাতি ও লতিরাজ নামে উচ্চফলনশীল কচুর চাষ এবার মাঠে বেশি হয়েছে।
তানোর উপজেলার মোহম্মাদপুর, তালন্দ উপরপাড়া, কলমা কেওয়াপাড়া, দুবইল, চিনাশোসহ অধিকাংশ গ্রামের চাষিরা চলতি মৌসুম কচু চাষ করেছেন। তাদের একজন আবদুর রাজ্জাক। তিনি জানান, আমন ধানের দাম না পেয়ে লোকসান গুণতে হয়েছে। তাই ধানের পরির্বতে বাড়ির পাশে ৩০ শতক জমিতে কচু চাষ করেছেন। প্রচুর ফলন হয়েছে। বাজার যা তাতে ভালোই দাম পাবেন বলে তিনি আশা করেন।
মোহনপুর গ্রামের মাসুম বিল্লাহ জানান, উপজেলায় চাষিরা ধান চাষের পাশা পাশি বেগুন, কাঁচা মরিচ, ফুলকপি, বাধাকপিসহ বিভিন্ন সবজি বেশি উৎপাদন করছে। সবজির মধ্যে কয়েক বছরে কচুর চাষ বেড়েছে।
তিনি আরো জানান, অন্য সবজি চেয়ে কুড়ি কচু ফলন ভালো হয় এবং বাজারে আলুর চেয়ে দাম ভালো। তাই চলতি মৌসুমে তিনি অন্য সবজির পাশাপাশি তিন বিঘা জমিতে কচু চাষ করেছেন বলে জানান তিনি।
তানোর উপজেলার মুণ্ডুমালা পৌর এলাকার ময়েনপুর গ্রামে রাকিবুল ইসলাম জানান, গত বছর লতিরাজ জাতের কচু এক বিঘা জমিতে চাষ করেছিলেন। বীজসহ উৎপাদন খরচ হয়েছিল প্রায় ১৮ থেকে ২০ হাজার টাকা। ফলন হয়েছিল ৬০ মণ। বিক্রি হয়েছে প্রতি মণ কচু এক হাজার ২শ টাকা থেকে এক হাজার ৩শ টাকায় বিক্রি করেছেন। খরচ বাদে এক বিঘা জমি থেকে বছরে আয় ৪০ থেকে ৪২ হাজার টাকা।
তিনি আরো জানান, গত বছরের লাভের টাকায় চলতি মৌসুমে দুই বিঘা জমিতে কচু চাষ করেছেন।
এ বিষয়ে তানোর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান, কচু চাষ আমাদের পার্শ্ববর্তী উপজেলা মোহনপুরে বেশি হতো। অল্প পরিশ্রমে বেশি লাভ। বেশি ফলন হয়। বাজারে আলুর চেয়ে এখন কচুর দাম বেশি পাওয়াই কচু চাষে বেশ আগ্রহ বাড়ছে তানোর উপজেলার চাষিদের বলে জানা তিনি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ