তানোরে কমিউনিটি ক্লিনিকে মানসম্মত সেবা পাচ্ছে না দরিদ্র জনগোষ্ঠী

আপডেট: অক্টোবর ২০, ২০১৯, ১২:৫৫ পূর্বাহ্ণ

লুৎফর রহমান, তানোর


তানোরের প্রকাশনগর কমিউনিটি ক্লিনিক-সোনার দেশ

তানোর উপজেলার কমিউনিটি ক্লিনিক গুলোর দায়িত্ব পালনে স্বাস্থ্য কর্মীদের উদাসিনতা ও অনিহার কারণে সেবা প্রদানের হিমসিম খাচ্ছেন প্রোভাইডাররা। প্রতিটি ক্লিনিকেই ২ জন করে স্বাস্থ্য কর্মীর ৩ দিন করে ৬ দিনই সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত কমিউনিটি ক্লিনিকে বসে হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডারদের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সেবা প্রদানের দায়িত্ব দেয়া হলেও তারা কেউ বসেন না। অথচ ক্লিনিকগুলোর প্রতিটিতেই তাদের জন্য আলাদা কক্ষ টেবিল দেয়াসহ সকল উপকরণ দিয়ে সাজানো রয়েছে।
ফলে কমিউনিটি ক্লিনিকের যথাযত ও মান সম্মত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন দরিদ্র জনগোষ্ঠির সাধারণ মানুষ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মহতী চিন্তার ফসলের পুরোপুরি বাস্তবায়ন না হওয়ায় সফল হচ্ছেনা। অপর দিকে ক্লিনিকে প্রতিদিন শতাধিক রোগীকে প্রোভাইডাররা একাই সব বিষয়ে সেবা প্রদানে হিমসিম খাচ্ছেন। সেই সঙ্গে ৩টার আগেই বন্ধ হয়ে যায় কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো।
সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও কমিউনিটি ক্লিনিকের প্রজ্ঞাপন থেকে জানা গেছে, শুক্রবার ব্যতীত সপ্তাহে কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার কমিউনিটি ক্লিনিকে উপস্থিত থেকে সেবা প্রদান করবেন স্বাস্থ্য কর্মী এবং পরিবার কল্যাণ সহকারীগন। সপ্তাহে ৩ দিনকরে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩ পর্যন্ত কমিউনিটি ক্লিনিকে বসবেন এবং নিজ নিজ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সেবা প্রদান করবেন। কিন্তু কোন কমিউনিটি ক্লিনিকেই নিয়মিত বসছেন না কোন দায়িত্বপ্রাপ্তরা।
অপরদিকে একই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডারগন স্বাস্থ্য সহকারী ও পরিবার কল্যাণ সহকারীদের (নতুন ৩ ওয়ার্ডের ৩ মাঠ কর্মী) তদারকী করবেন। কিন্তু এটাও করা হয় না। প্রশাসনিকভাবে স্বাস্থ্যকর্মী এবং পরিবার কল্যাণ সহকারীগন যে যার দায়িত্ব পালন করবেন। কিন্তু কমিউনিটি ক্লিনিকের কাজের সুবিধার জন্য প্রতি ইউনিয়নকে ২ ভাগ করে ১টি অংশে একীভূত সমন্বিত কার্যক্রমের (স্বাস্থ্য, পরিবার পরিকল্পনা ও পুষ্টি বিষয়ক সেবা প্রদান) তদারকির দায়িত্ব সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক এবং অন্য অংশের তদারকীর পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক দায়িত্ব পালন করবেন। এখানে এর বাস্তবায়ন হচ্ছেনা।
প্রজ্ঞাপনে আরো বলা হয়েছে, কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডারদের অনুপুস্থিতিতে স্বাস্থ্য সহকারী/পরিবার কল্যাণ সহকারী কমিউনিটি ক্লিনিকের যাবতীয় দায়িত্ব পালন করবেন। কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডারদের অনুপুস্থিতিতে কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো বন্ধ থাকে। এছাড়াও স্বাস্থ্য সহকারী/পরিবার কল্যাণ সহকারী একে অপরের অনুপুস্থিতিতে কমিউনিটি ক্লিনিকের সকল সেবা নিশ্চিত করবেন। কিন্তু তা হচ্ছেনা তানোর উপজেলার কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে। ফলে তানোর উপজেলার দরিদ্রজনগোষ্ঠী মান সম্মত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।
এনিয়ে গ্রামাঞ্চলের একাধীক নারী পুরুষ বলেন, ক্লিনিকে শুধু শর্দি ও মাথা ব্যাথা আর চুলকানীর ওষুধ ছাড়া অন্য কোন সেবা পাওয়া যায়না। অপর দিকে তানোর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (টিএইচও) রোজিয়ারা খাতুন কমিউনিটি ক্লিনিক প্রকল্পের গাড়ী ব্যবহার করলেও তিনি নিয়মিত ক্লিনিক ও এর সেবা বিষয়ে এবং প্রোভাইডারদের কর্মস্থলসহ পুরো বিষয়ে উদাসীন রয়েছেন।
এবিষয়ে নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক একাধীক হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, স্বাস্থ্য সহকারী ও পরিবার কল্যাণ সহকারীদের কারো কোন সহযোগিতা পাওয়া যায়না একাই প্রতিদিন শতাধীক রোগীর সব ধরনের চিকিৎসা সেবা প্রদান করতে হচ্ছে।
এব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে তানোর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (টিএইচও) রোজিয়ারা খাতুন বলেন, স্বাস্থ্য সহকারী ও পরিবার কল্যাণ সহকারীর সংখ্যা কম থাকায় কমিউনিটি ক্লিনিকে বসতে পারেন না। এবিষয়ে কিছু বলার থাকলে মেডিকেল আসেন তবেই বলবো জানিয়ে ফোনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ