তানোরে ছত্রাকনাশক ওষুধে পুড়লো প্রায় এক হাজার বিঘা জমির আলু গাছ

আপডেট: ডিসেম্বর ২০, ২০২০, ৯:৪৪ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


ছত্রাকনাশক ওষুধ স্প্রে করার পর রাজশাহীর তানোর উপজেলায় প্রায় এক হাজার বিঘা জমির আলু গাছ পুড়ে নষ্ট হয়ে গেছে। এতে অনেক কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। কৃষকরা জানান, আলু জমিতে ছত্রাক ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে তারা ‘এন্ট্রাকল’ নামের একটি ওষুধ স্প্রে করেছিলেন। এরপরই তাদের আলু গাছ হলদে হয়ে মরে যেতে শুরু করে। অনেকের আলু জমি পুরো ফাঁকা হয়ে গেছে। কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা এর কোনো সমাধান দিতে পারছেন না।
তানোরের চাষিরা উপজেলা সদরের ‘মেসার্স সৈয়ব আলী ট্রেডার্স’ থেকে এই ওষুধ কিনেছিলেন। প্রতিষ্ঠানটির মালিক সৈয়ব আলী ওষুধ কোম্পানিটির পরিবেশক। শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) রাতে ক্ষতিগ্রস্ত কয়েকজন চাষি তার কাছে ছুটে যান। তারা সৈয়ব আলীকে নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে যান। সেখানে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তাদের সঙ্গে কথা বলেন।
উপজেলার শুকদেবপুর গ্রামের নাদের আলীর ছেলে প্রান্তিক আলু চাষী শামিম হোসেন জানান, এবছর তিনি সাড়ে ৩ বিঘা জমিতে আলু চাষ করেছেন। সব ধরনের মোড়ক থেকে আলুকে রক্ষার জন্য শুক্রবার তিনি বায়ার কোম্পানির ঔষুধ জমিতে স্প্রে করার পর দিন শনিবার সকালে জমিতে গিয়ে দেখেন স্প্রে করা জমির সবগুলো আলুর গাছ পুড়ে গেছে। একই কথা বলেন, তার সাথে আসা তার গ্রামের ইয়াদ আলী ছেলে আসমত আলী। তিনি বলেন, তিনিও এবছর ২ বিঘা জমিতে আলু চাষ করেছিলেন তারও একই অবস্থা।
ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ‘বেয়ার ক্রপসায়েন্স লিমিটেড’ এর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। প্রতিষ্ঠানটির তানোরের পরিবেশক সৈয়ব আলীও কোনো কথা বলতে চাননি। ফোন ধরেননি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুশান্ত কুমার মাহাতো এবং উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শামিমুল ইসলাম।
জানতে চাইলে তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাকিবুল হাসান বলেন, আমরা এ ব্যাপারে কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। তবে আলু নষ্ট হয়েছে শুনেছি। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা যেন ক্ষতিপূরণ পান সে বিষয়টি উপজেলা প্রশাসন ও কৃষি কর্মকর্তা বিষয়টি দেখছেন। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক যদি মামলা করতে চাইলে থানায় এলে আমরা মামলা নেব।
এ বিষয়ে রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামছুল হক জানান, তানোরে ঔষুধ প্রয়োগে আলু গাছ পুড়ে গেছে বিষয়টি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আমাদের জানিয়েছে। শুনেছি প্রায় ১৫ বিঘামতো জমির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বিষয়টি সমাধানে কাজ করা হচ্ছে।