তানোরে ছেলের মামলায় মা কারাগারে

আপডেট: মার্চ ২৪, ২০১৭, ১২:১৫ পূর্বাহ্ণ

তানোর প্রতিনিধি


রাজশাহীর তানোরে মায়ের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ছেলের দায়ের করা মামলায় (মা) বানেছা বিবিকে (৩৮) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত বুধবার দিবাগত রাতে চাপড়া গ্রামে বানেছা বিবির এক পরিচিত ব্যক্তির বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।
মামলার বিবরণ ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, তানোর উপজেলার কামারগাঁ ইউনিয়নের মাদারীপুর গ্রামের শুকুর উদ্দীন ১৭ বছর ধরে সৌদি আরবে চাকরি করেন। বিদেশ থেকে চাকরির টাকা স্ত্রী বানেছা বিবির নামে তানোর শাখা জনতা ব্যাংকের ৪১২৪ নম্বর সঞ্চয় হিসাব নম্বারে পাঠাতেন। বিভিন্ন সময়ে ৫০ লাখ টাকা পাঠায়। সেই টাকা দিয়ে জমি কেনার কথা ছিল। শুকুর আলীর সংসারে এক মেয়ে ও এক ছেলে রয়েছে। মেয়ের বিয়ে হয়ে গেছে। ছেলে সুফিয়ান তানোর কলেজে পড়ে। বাড়িতে তার স্ত্রী বানেছা সংসার দেখাশুনা করেন।
এদিকে শুকুরের বন্ধু নিয়ামতপুর থানার নাকইল মধ্যপাড়া গ্রামের এলাহী বক্সের ছেলে ডা. আনোয়ার হোসেনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে বানেছার। বিষয়টি বিদেশে থাকা অবস্থায় শুকুর উদ্দীন ও তার ছেলেমেয়ে জানতে পারেন। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে বানেছা কৌশলে আনোয়ারের সহযোগিতায় ব্যাংকে থাকা টাকা উত্তোলন করে নিজ নামে জমি ক্রয় করেন এবং টাকা নিয়ে আনোয়ারের সঙ্গে পালিয়ে যায়। বিষয়টি জানার পর শুকুর উদ্দীন সৌদিআবর থেকে দেশে ফিরে তানোর শাখা জনতা ব্যাংকের গিয়ে খোঁজখবর নিয়ে দেখে তার স্ত্রীর হিসাব নম্বারে কোন টাকা নেই।
শুকুর উদ্দীন তার স্ত্রী বানেছা বিবিকে ফিরে আনতে একাধিকবার চেষ্টা করে ও ফল পায় নি। পরিশেষে বাধ্য হয়ে শুকুর উদ্দীনের ছেলে আবু সুফিয়ান বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়। মামলার আসামিরা হলেন তার মা বানেছা বিবি, ডা. আনোয়ার হোসেন ও জামাল উদ্দীন।
শুকুর উদ্দীন জানান, ব্যাংকের টাকাসহ বিদেশ থেকে পাঠানো ৬ ভরি স্বর্ণালঙ্কার হাতিয়ে নিয়েছে বানেছা।
এ বিষয়ে তানোর থানার অফিষার ইনচার্জ (ওসি) মীর্জা আবদুর সালাম জানান, ছেলের মামলার পরিপ্রেক্ষিতে তার মাকে গ্রেফতার করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ