তানোরে বাল্যবিয়ের দায়ে কাজীসহ গ্রেফতার তিন

আপডেট: জুলাই ১৩, ২০১৭, ১:০৩ পূর্বাহ্ণ

তানোর পৌর প্রতিনিধি


রাজশাহীর তানোরে স্কুল পড়–য়া নবম শ্রেণির ছাত্রীকে অপহরণ করে বাল্যবিয়ে দেবার দায়ে এক কাজীসহ অপহরণকারীদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ভুক্তভোগীর বাবার মামলার সূত্র ধরে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা ও রাতে পৃথক পৃথক স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের গতকাল বুধবার বেলা ১২টার দিকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।
মামলার বিবরণ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ভাগনা মানিককন্যা গ্রামের খলিলুর রহমানের কলেজ পড়–য়া ছেলে শাকিল (১৯) একই উপজেলার মোহর গ্রামের সাহাবুদ্দিনের নবম শ্রেণিতে পড়–য়া মেয়ে সারমিন আক্তার শিক্কার (১৩) সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। প্রেমের টানে চলতি মাসের ৭ জুন স্কুল থেকে তারা পালিয়ে যায়। পরে মেয়ের বাবা খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন জেলার মোহনপুর উপজেলার সইপাড়া গ্রামের বিবাহ রেজিস্ট্রার (কাজী) মোকাদ্দিন হোসেন তাদের বিয়ে রেজিস্ট্রি করেন। এ নিয়ে মেয়ের বাবা সাহাবুদ্দিন বাদি হয়ে গত মঙ্গলবার তানোর থানায় অপহরণ ও বাল্যবিয়ে দেবার অপরাধে মামলা দায়ের করেন। এতে আসামি দেখানো হয়- অভিযুক্ত ছেলে শাকিল ও তার বাবা খলিলুর রহমান, খালু আইনাল হক এবং তার বন্ধু রফিকুলসহ কাজী মোকাদ্দিনকে।
এদিকে, মামলার সূত্র ধরে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজশাহীর নগরীর জিয়াপার্ক থেকে শাকিল ও তার বন্ধু রফিকুলকে গ্রেফতার করে এবং সঙ্গে থাকা মেয়ে শিক্কাকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরে গ্রেফতারকৃত শাকিলকে জিজ্ঞাসাবাদ করে কাজী মোকাদ্দিন হোসেনকে গত মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৪টার দিকে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়।
এ ব্যাপারে তানোর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল ইসলাম জানান, অভিযুক্তদের গ্রেফতার ও উদ্ধার হওয়া শিক্কাকে সংশ্লিষ্ট আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। মেয়ে শিক্কাকে আদালত তার মা-বাবার হেফাজতে দিয়েছেন।