তানোরে ভেস্তে গেছে আউস চাষের লক্ষ্য মাত্রা

আপডেট: জুন ২০, ২০১৭, ১২:৫২ পূর্বাহ্ণ

লুৎফর রহমান তনোর  


রাজশাহীর তনোরে আউস চাষ না হলেও খাতা কলমে রির্পোট দেয়া হয়েছে উপজেলায় সাড়ে ৬ হাজার হেক্টর জমিতে আউস চাষ হয়েছে । এতে করে আউস চাষের লক্ষ্য মাত্রা ভেস্তে গেছে।  বিনামূল্যের প্রনোদনা দেবার পরেও আউস চাষ না হওয়ায় খাদ্য ঘাটতির আশঙ্কা করছেন কৃষকরা। ফলে আউস চাষ না হলেও কৃষি বিভাগের এমন রির্পোট প্রকাশ পেলে হইচই পড়ে উপজেলা জুড়ে।
বিভিন্ন মাঠ ঘুরে দেখা গেছে উত্তর বঙ্গের কৃষি ভান্ডার নামে খ্যাত তানোর উপজেলা। উপজেলার বিভিন্ন মাঠে গিয়ে দেখা যায় এখনো আলুর জমিতে রোপিত বোরো ধান কাটা মাড়াইয়ে ব্যাস্ত হয়ে আছেন উপজেলার কৃষকরা। বিভিন্ন রাস্তায় ভিজে ধান কেটে হপার মেশিনে মাড়াই করছেন কৃষকরা। উপজেলার প্রাণপুর পাঠাকাটা ধানী মাঠে ও কলমা এলাকায় কয়েক একর জমিতে রোপন করা হয়েছে আউস। কৃষকরা জানান বিনামূল্যের প্রনোদনা দেয়া হয়েছে দলীয় লোকজনদের। প্রকৃত কৃষকরা পায়নি প্রনোদনা। যার ফলে কয়েক বছর ধরে তানোর উপজেলায় হচ্ছে না আউস চাষ। তারপর উপজেলা কৃষি দফতর সাড়ে ৬ হাজার হেক্টর জমিতে আউস চাষ হয়েছে মর্মে কর্তৃপক্ষের কাছে রির্পোট পেশ করেছে।
কৃষকদের অভিযোগ আলুর জমিতে যেসব বোরো ধান চাষ করা হয়েছিল সেই সব জমির আউস চাষের রির্পোট করা হয়েছে বলে জানান কৃষকরা। কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায় আউস চাষে লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৭ হাজার হেক্টর জমিতে। কিন্তু লক্ষ্য মাত্রা তো দুরে থাক তার এক অংশও হয়নি চাষ। কৃষি অফিস জানায় এ পর্যন্ত উপজেলায় আউস চাষ হয়েছে সাড়ে ৬ হাজার হেক্টর জমিতে।  নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কৃষিবিভাগের কর্মচারীরা জানান মাঠে না গিয়েই অফিসে বসে তৈরী করা হয় ফাইল পত্র। সরেজমিন তদন্ত করলেই দেখা যাবে উপজেলায় হয়নি আউস চাষ।  কলমা ইউপি এলাকার কৃষক বদের আলী জানান, বিগত কয়েক বছর ধরেই হচ্ছে না তানোরে আউস চাষ। কি করে অফিস বলেন যে উপজেলায় সাড়ে ৬ হাজার হেক্টর জমিতে আউস চাষ হয়েছে । মাঠে না গিয়ে অফিসে বসে মনগড়া ভাবে দেয়া হয় রির্পোট বলে জানান তিনিসহ একাধিক কৃষক।
এনিয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান, আউস চাষাবাদ দিন দিন কমে যাচ্ছে। আমরা সেই আউস চাষাবাদ ধরে রাখার জন্য কৃষকদের নিয়মিত পরামর্শ দিচ্ছি। তবে ভেস্তে যাওয়ার বিষয়টি এড়িয়ে জানান তিনি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ