তালাকপ্রাপ্তা স্ত্রীকে অপহরণ করতে এসে পাঁচজন শ্রীঘরে

আপডেট: জুলাই ২৮, ২০২১, ৯:২৯ অপরাহ্ণ

মান্দা প্রতিনিধি:


নওগাঁর মান্দায় তালাকপ্রাপ্তা স্ত্রীকে অপহরণ করতে এসে পাঁচজনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয়রা। গত মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) সন্ধ্যায় উপজেলার নুরুল্লাবাদ ইউনিয়নের রামনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
আটককৃতরা হলেন নাটোর জেলার সিংড়া উপজেলার মহিষমারী গ্রামের মহসীন আলী (৩০), ইব্রাহীম খলিলুল্লাহ (২৫), মানসুরুল ইসলাম (৩৬), জাহিদুল ইসলাম (২৮) ও নাজমুল হোসেন (২৫)।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, নওগাঁর মান্দা উপজেলার রামনগর গ্রামের হজরত আলী মোল্লার মেয়ে মুক্তা পারভীন রাজশাহী শহরে লেখাপড়ার সময় নাটোরের সিংড়া উপজেলার মহিষমারী (পূর্বপাড়া) গ্রামের মৃত আব্দুল করিমের ছেলে মহসীন আলীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরে ২০১৬ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি তাঁরা রাজশাহীর একটি আদালতে বিয়ে করেন। এরপর শহরের একটি ভাড়াবাসায় বসবাস করছিলেন।
স্থানীয় ইউপি সদস্য উজ্জল হোসেন জানান, মঙ্গলবার বিকেলে একটি মাইক্রোবাসে স্বামী মহসীন আলী ৯-১০ জন লোক নিয়ে মুক্তা পারভীনের বাসায় আসেন। এসময় তাঁরা মুক্তা পারভীনকে ওই মাইক্রোবাসে তুলে অপহরণ করে নিয়ে যাচ্ছিলেন। বিষয়টি টের পেয়ে ধাওয়া দিয়ে রামনগর উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকায় তাঁদের আটক করেন স্থানীয়রা।
ভিকটিম মুক্তা পারভীন জানান, বিয়ের কিছুদিন পর বাড়িতে তুলে নেওয়ার জন্য চাপ দিলে স্বামী মহসীন আলী টালবাহানা করে। এক পর্যায়ে তাঁর ওপর নির্যাতন শুরু করা হয়। এ অবস্থায় গত ১৯ এপ্রিল স্বামী মহসীন আলীকে তালাক দেন তিনি। এনিয়ে উভয় পরিবারের মাঝে কয়েক দফা বৈঠক হলেও তা নিষ্পত্তি হয়নি।
তিনি আরো বলেন, গত মঙ্গলবার বিকেলে স্বামী মহসীন আলী ৯-১০ লোক নিয়ে আমাদের বাড়ি আসেন। বাড়িতে লোকজন না থাকার সুযোগে আমাকে মাইক্রোবাসে তুলে অপহরণ করে নিয়ে যাবার চেষ্টা করেন তাঁরা।’
ঘটনায় মেয়ে মুক্তা পারভীন বাদি সাবেক স্বামী মহসীন আলীসহ আটজনের নাম উল্লেখ করে মান্দা থানায় মামলা করেন।
মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিনুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ভিকটিমের দায়েরকৃত মামলায় আটককৃতদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।