তাসকিনে আলোকিত দিনের শেষটায় আলোর স্বল্পতা

আপডেট: এপ্রিল ৩০, ২০২১, ৮:০৭ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


ফর্মহীনতা হয়ে পড়েছিল নিত্যসঙ্গী। আর চোটের সঙ্গে তো তার সখ্যতা ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই! দুয়ের ‘বন্ধুত্বে’ তাসকিন আহমেদের ক্যারিয়ারের ইতিচিহ্নও এঁকে ফেলেছিলেন অনেকে। আর সবার কথা বাদ দিন, তাসকিন নিজেই তো শেষ দেখে ফেলেছিলেন। তবে হার মানেননি। চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞায় ঘুরে দাঁড়ানোর সংকল্প গেঁথে নেন হৃদয়ে। যার প্রতিদান তিনি পাচ্ছেন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে।
কী গতি, কী বাউন্স- এ যেন নতুন তাসকিন। মাঝেমধ্যে সুইংও পেয়েছেন ক্যান্ডির ব্যাটিং-বান্ধব উইকেটে। তাই শ্রীলঙ্কার আধিপত্য ভেঙে ম্যাচে ফেরে বাংলাদেশ। যে পিচে শুধু ব্যাটসম্যানদের দাপট চলছিল, সেখানে ‘গেম চেঞ্জারের’ ভূমিকায় আবির্ভূত হয়ে ডানহাতি পেসার দারুণ এক দিন উপহার দিয়েছেন বাংলাদেশকে। তবে আলোর স্বল্পতায় দ্বিতীয় দিনের খেলা আগেভাগে শেষ হয়ে যাওয়ায় উইকেট বাড়ানো হয়নি তার। ক্যান্ডি টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে শ্রীলঙ্কার স্কোর ১৫৫.৫ ওভারে ৬ উইকেটে ৪৬৯ রান।
আলোর স্বল্পতায় যখন মাঠ ছেড়ে গেছেন খেলোয়াড়রা, দিনের খেলা তখনও বাকি ছিল ২৪.১ ওভার। তাই তৃতীয় দিনে খেলা শুরু হবে নির্ধারিত সময়ের ১৫ মিনিট আগে, বাংলাদেশ সময় ১০-১৫ মিনিটে।
পাল্লেকেলের ‘মরা’ উইকেটে আগুন ঝরিয়েছেন তাসকিন। দ্বিতীয় দিনের দ্বিতীয় ঘণ্টা থেকে বিষাক্ত পেসে ঘায়েল করেছেন শ্রীলঙ্কান ব্যাটসম্যানদের। উইকেট থেকে বাড়তি বাউন্সার আদায় কের্ কাঙ্ক্ষিত সাফল্য এনে দিয়েছেন তিনি। দিন শেষে তার নামের পাশে জ্বলজ্বল করছে ৩ উইকেট। ৩২.৫ ওভারে ১১৯ রান খরচার বোলিং ফিগারটা আরেকটু সুন্দর দেখাতো যদি নাজমুল হোসেন শান্ত আরেকটি ক্যাচ মিস না করতেন। এদিন সাফল্য পেয়েছেন দুই স্পিনার তাইজুল ইসলাম ও মেহেদী হাসান মিরাজও। দুজনই পেয়েছেন একটি করে উইকেট।
তথ্যসূত্র: বাংলাট্রিবিউন