তিনদিনের রিমান্ডে আব্বাস

আপডেট: ডিসেম্বর ৭, ২০২১, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলীর তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালক। সোমবার (৬ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজশাহীর মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট (এমএম) আদালত-২ এর বিচারক শংকর কুমার শুনানি শেষে আব্বাসের জামিন আবেদন নাকচের পর এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আব্বাস বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরাল স্থাপন নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে আলোচনায় আসেন।

জানা গেছে, গ্রেফতারের পরে গত বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) বোয়ালিয়া থানা পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে তোলেন। ওই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শুনানি শেষে তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

জাতির পিতার ম্যুরাল স্থাপন নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলীর বিরুদ্ধে গত ২৩ নভেম্বর রাতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ১৩ নম্বর ওয়ার্ড কউন্সিলর আব্দুল মোমিন মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় মেয়র আব্বাসকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভকেট মোসাব্বিরুল ইসলাম জানান, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ১০ দিনের রিমান্ড চেয়েছিলেন। শুনানি শেষে আদালত ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা থানায় নিয়ে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করবে।

এবিষয়ে বোয়ালিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নিবারণচন্দ্র বর্মন জানান, ‘বিকেল সাড়ে পাঁচটা থেকে রিমান্ড শুরু হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে এই অবস্থায় কিছুই বলা যাচ্ছে।’

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি মেয়রের একটি কথোপকথনের অডিও ভাইরাল হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ২২ নভেম্বর রাতে ১ মিনিট ৫১ সেকেন্ডের ওই অডিওটির কথা ফেসবুক লাইভে এসে আব্বাস আলী রেকর্ডটি তার বলে স্বীকার করেন। এনিয়ে মামলা পরে গ্রেফতার এড়াতে ২৩ নভেম্বর থেকে ঢাকার বিভিন্ন হোটেলে আত্মগোপনে ছিলেন। এর পরে গত ১ ডিসেম্বর ভোরে তাকে ঢাকায় আটক করে র‌্যাব।

এছাড়া আব্বাস আলী রাজশাহীর পবা উপজেলার কাটাখালী পৌর আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক এবং রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য। তিনি আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে নির্বাচিত হয়ে টানা দুই মেয়াদে মেয়রের দায়িত্বে আছেন। তাকে দলীয় পদ থেকে অপসারণ করা হয়েছে। এছাড়া আব্বাসকে অপসারণে অনাস্থা এনেছেন কাউন্সিলররা। তিনি পৌর মেয়র পদও হারাচ্ছেন বলেও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।