তিন জেলায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে ৪ জন নিহত

আপডেট: জুলাই ২৫, ২০২০, ১২:৪৮ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক :


কথিত বন্দুকযুদ্ধে কক্সবাজার, চট্টগ্রাম ও কুষ্টিয়ায় ৪ জন নিহত হয়েছে। কক্সবাজারে দুই রোহিঙ্গা মাদকব্যবসায়ী, চট্টগ্রেিম ১ জন জলদস্যু এবং কুষ্টিয়ায় এক মাদক ব্যাবসায়ী নিহত হয়েছে।
কক্সবাজার
কক্সবাজারের টেকনাফে কথিত বন্দুকযুদ্ধে দুই রোহিঙ্গা নিহত হয়েছে; যাদের মাদক বিক্রেতা বলছে বিজিবি। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয়েছে ইয়াবা-অস্ত্র।
বিজিবির টেকনাফ ২ ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. ফয়সল হাসান খান জানান, উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের নাফ নদীর তীরবর্তী মোচনী লবণ মাঠ এলাকায় ছুরিখালের মোহনায় শনিবার ভোরে গোলাগুলির ওই ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলেন- উখিয়া উপজেলার বালুখালী ১ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এইচ-৩৯ ব্লকের বাসিন্দা হাবিব উল্লাহর ছেলে মোহাম্মদ ফেরদৌস (৩০) ও একই ক্যাম্পের এইচ-২০ ব্লকের বাসিন্দা ছৈয়দ আহমাদের ছেলে আব্দুস সালাম (৩৫)।
বিজিবি বলছে, নিহতরা চিহ্নিত মাদক বিক্রেতা; তারা দীর্ঘদিন ধরে সীমান্ত দিয়ে ইয়াবা পাচারে জড়িত।
এ ঘটনায় জিবির ৩ সদস্য আহত এবং ঘটনাস্থল থেকে ২ লাখ ১০ হাজার ইয়াবা, ১ টি দেশীয় বন্দুক ও গুলি উদ্ধারের কথা জানিয়েছে বিজিবি।
চট্টগ্রাম
চট্টগ্রামে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।
নিহত শের আলী (৩০) বাঁশখালী উপজেলার সরল ইউনিয়নের সরল এলাকার বাসিন্দা।
তার বিরুদ্ধে হত্যা ও ডাকাতিসহ বিভিন্ন অভিযোগে অন্তত ১২টি মামলা আছে বলে র‌্যাব কর্মকর্তাদের দাবি।
র‌্যাব-৭ এর সহকারী পরিচালক এএসপি মাশকুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “রাতে সরল ব্রিজের কাছে একদল জলদস্যু ডাকাতির জন্য সাগরে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল- এমন খবর পেয়ে র‌্যাবের টহল দল ওই পথে যাওয়ার সময় জলদস্যুরা তাদেরকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে।
“আত্মরক্ষার্থে র‌্যাব সদস্যরাও পাল্টা গুলি ছোঁড়ে। দুই পক্ষের গুলি বিনিময়ের পর জলদস্যুরা পালিয়ে গেলে সেখানে গুলিবিদ্ধ শের আলীর লাশ উদ্ধার করা হয়।”
ঘটনাস্থল থেকে তিনটি বন্দুক, ১৩টি গুলি ও চারটি গুলির খোসা উদ্ধার করা হয় বলে র‌্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়।
কুষ্টিয়া
কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছন, যাকে মাদক বিক্রেতা বলছে পুলিশ।
উপজেলার ডাংমড়কা সেন্টারমোড় এলাকায় একটি ইটভাটার কাছে শুক্রবার রাত ১টার দিকে গোলাগুলির ওই ঘটনা ঘটে বলে দৌলতপুর থানার ওসি এস এম আরিফুর রহমান জানান।
নিহত কুদরত আলী ম-ল (৫০) উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের সীমান্ত সংলগ্ন মুন্সীগঞ্জ গ্রামের নিয়ামত আলী ম-লের ছেলে।
পুলিশ বলছে, ‘চিহ্নিত মাদক বিক্রেতা’ কুদরতের বিরুদ্ধে মাদক ও অস্ত্র আইনে অন্তত ৬টি মামলা রয়েছে।
এ ঘটনায় ৩ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন এবং ঘটনাস্থল থেকে ১টি বিদেশী পিস্তুল, গুলি, ও ৪৩ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধারের কথা জানান ওসি।
তথ্যসূত্র: বিডিনিউজ